আগামী বছরের ডিসেম্বরে চালু হবে মেট্রোরেল

0
10
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : ঢাকার যানজট মুক্তির স্বপ্ন নিয়ে বহু প্রতীক্ষিত মেট্রোরেল চলাচলের উড়ালপথের চার ভাগের তিন ভাগ নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। ইতিমধ্যে জাপান থেকে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ছয়টি কোচ বিশিষ্ট চারটি ট্রেন দেশে পৌঁছেছে। আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে আরও পাঁচ সেট ট্রেন আসবে। মেট্রোরেল নির্মাণ ও পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) বলছে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে প্রথম ধাপে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার মেট্রোরেল চালুর তোড়জোড় থাকলেও এখন বাধা করোনা ভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় বর্তমান পরিস্থিতিতে রেল উদ্বোধন সম্ভব হচ্ছে না। করোনার কারণে কাজের গতি মন্থর হয়ে গেছে। প্রায় দুই মাস প্রকল্পের কাজ বন্ধ ছিল। এখন পর্যন্ত কোনো প্রাণহানি খবর পাওয়া না গেলেও এই প্রকল্পে কর্মরত ৬৬৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ পরিস্থিতিতে প্রকল্প কর্তৃপক্ষ বলছে, এ বছর নয়, আগামী বছরের ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চলবে।
সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম বলেন, এমআরটি-৬ শেষ করার কথা ছিল ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে। পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আগারগাঁও পর্যন্ত শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়। কিন্তু চলমান বৈশ্বিক মহামারির কারণে এখন সেই সময়সীমার ব্যত্যয় ঘটেছে। তবে প্রথমে যে সময়সীমা (২০২৪ সালের জুন) নেওয়া হয়েছিল, তার আগেই মেট্রোরেল প্রকল্প-৬-এর নির্মাণকাজ শেষ করার বিষয়ে আশাবাদী তিনি।
ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক বলেন, প্রকল্প অনুমোদনের সময়, বাংলাদেশের বহুল প্রতীক্ষিত প্রথম মেট্রোরেলের কাজ ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হতে চলেছে। প্রাথমিক পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২৪ সালের মধ্যে মেট্রোসেবা চালু করার কথা ছিল। সে হিসাব অনুযায়ী আমরা আরও দুই বছর এগিয়ে আছি। ২০২২ সালের মধ্যে সমস্ত ট্রেনসহ ডিসেম্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে মেট্রোরেল চালু করা হবে। দেশের চলমান করোনা পরিস্থিতি সত্ত্বেও প্রকল্পের কাজ এখন দ্রুত গতিতে চলছে। মেট্রোরেলের সামগ্রিক কাজের উন্নতি বর্তমানে ৬৮ শতাংশ। প্রাথমিক নির্মাণ পরিকল্পনা অনুসারে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের তৃতীয় পর্যায়ের ৮৭ দশমিক ৮ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
ফাইভ জি ইন্টারনেট চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ
গ্রাম থেকে শহর সবখানে ইন্টারনেট। তথ্য-প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বদলে গেছে মানুষের জীবন মান বদলেছে সময়। তাইতো তথ্য-প্রযুক্তির বিপ্লব ঘটাতে বাংলাদেশ প্রস্তুতি নিচ্ছে ফাইভ জি ইন্টারনেট চালুর জন্য। যা বদলে দিবে শহর থেকে আবহমান গ্রাম বাংলার পুরো চিত্র। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান সময়ে এই ইন্টারনেট সেবার ফলে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে পিছিয়ে পড়বে না বাংলাদেশ।
আবহমান গ্রাম বাংলার চিত্র। গ্রাম ঠিকই আছে তবে এখানে লেগেছে ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়া। এখানকার দোকানী ছেলেটিও দিনভর দোকানে কাজ করে আর মালপত্র কেনে ইন্টারনেটের সহায়তায়।
এখন গ্রামকে পুরোপুরিই বদলে দিয়েছে ইন্টারনেট সেবা। মোবাইল মানি ট্রান্সফার-ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট অথবা সেটটপ বক্স। ফ্রিলানসিং থেকে বিনোদন সবখানেই এখন প্রযুক্তি বিপ্লব। এ সবই হচ্ছে ফোর জি ইন্টারনেটের বদৌলতে।
তবে বাংলাদেশ চাইছে বর্তমান অবস্থারও উন্নতি করতে। তারা চাইছে দেশের বর্তমান অবস্থার উন্নতি ঘটিয়ে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রতিযোগীতায় নামতে যার অন্যতম উপাদান ফাইভ জি ইন্টারনেট।
এই ফাইভ জি ইন্টারনেট বদলে দিবে সারা পৃথিবীকে। গ্রাম থেকে শহর সবখানে যোগাযোগ হবে সুদৃঢ় আর কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা হবে মানুষের সাহায্যকারী। হুওয়ায়ের এই সম্পার্ট সিটি প্রজেক্ট দেখলে যা খানেকটা আন্দাজ করা যায়।
শুধু তাই নয় স্মার্ট সিটির পাশাপাশি কৃষিতেও ব্যাপক উন্নতি সাধন হবে। সুইজার ল্যান্ডের এই ফাইভ জি স্মার্ট ফার্মটি যার বাস্তব উদাহরন। কৃষি প্রধান দেশের হাতে যখন এমন প্রযুক্তি আসবে তখন বদলে যাবে গ্রামীন জনপদ। পার্থক্য হারাবে শহরের সাথেও।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

four × four =