আগামী ২ ফেব্রুয়ারি শুরু বিশ্ব ইজতেমা

0
59
728×90 Banner

অলিদুর রহমান অলি: মুসলিম জাহানের দ্বিতীয় ধমীর্য় সমাবেশ তাবলীগ জামাতের বিশ^ ইজতেমা আগামী ২ ফেব্রুয়ারি তুরাগ তীরে শুরু হবে। প্রতি বছর জানুয়ারি মাসের ১ম সপ্তাহে এ আয়োজন হলেও এ বছর জাতীয় নিবার্চনের কারনে ফেব্রুয়ারি মাসে হচ্ছে।
বিশ্ব তাবলীগ জামাতের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় মহাসমবেশ ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার কর্মযজ্ঞ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ময়দানের প্রস্তুতি চলছে জোরেশোরে। বিশ্ব ইজতেমা মুসল্লীদের সুবিধার্থে রাজধানীর উপকন্ঠে টঙ্গীর কহর দরিয়া খ্যাত তুরাগ নদের তীরে প্রতিদিন ইজতেমা ময়দান প্রস্তুত করতে স্বেচ্ছায় কাজ করছে মুসল্লিরা। ঢাকা ও আশপাশের জেলার আগত শত শত মুসল্লী কনকনে শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে যাচ্ছে। আগত মুসল্লিরা ময়দানে সামিয়ানা তৈরি, চট বাঁধাই, খুঁটি গাথা, মাটি কাটা, ময়দানের ময়লা আর্বজনা পরিস্কার, ড্রেন পরিস্কার, বিদেশিদের কামরা নির্মাণসহ বিভিন্ন কাজ করছেন। আগত মুসল্লীদের নদী পারাপারের জন্য থাকবে সেনাবাহিনী কর্তৃক (পল্টুন) ভাসমান সেতু। জেলাওয়ারী মুসল্লিদের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ময়দান। কহরদরীয়া নদের তীরবর্তী ১৬০ একর জমি বিস্তৃত ময়দানের উত্তর পশ্চিমে তৈরি হচ্ছে বয়ানমঞ্চ। এবং পশ্চিমপ্রান্তে কামাড়পাড়া বিজ্র সংলগ্ন বিদেশি মেহমানদের থাকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। প্রতি বছরের মতো এবারও আগত মুসল্লিরা জেলাওয়ারী খিত্তায় অবস্থান নিবেন। মুসল্লিরা দিনের মেহনত ও আল্লাহকে রাজি খুশি করতেই ময়দানে এসে স্বেচ্ছায় শ্রম দিচ্ছেন। এভাবেই এগিছে চলছে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার সকল প্রস্তুতি। ময়দানে কাজ করা এক মুসল্লী মো. বদিউজ্জামান বলেন, আল্লাহর কাজ করতে এসে যত মেহনত হবে, ততই ছোয়াব হবে। আল্লাহকে পেতে চাইলে একটু কষ্ট করতেই হবে, আর আল্লাহর জন্য কষ্ট করলে, আল্লাহ তায়ালা রাজি খুশি হয়ে যাবেন। এই কষ্টের ফল আখেরাতে পাওয়া যাবে।
প্রতিবছরের মতো এবারও উর্দু ভাষায় বয়ান করবেন। বিভিন্ন দেশ বিদেশ থেকে আসা মুসল্লীদের সুবিধার্থে বয়ানের সঙ্গে সঙ্গে বাংলা ও আরবি ভাষায় তর্জমা করা হবে।
গতবারের ন্যায় এবারও প্রথম পর্বে যোবায়ের অনুসারী মুসল্লীরা টঙ্গী ময়দানে ইজতেমার আয়োজন করছে। এরপর মাঝে চারদিন বিরতি দ্বিতীয় পর্বে মাওলানা সা’দ অনুসারীরা ইজতেমা আয়োজন করবে। মাওলানা জোবায়ের অনুসারী মিডিয়া সমন্বয়কারী মুফতি জহির ইবনে মুসলিম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
ইজতেমা মাঠের মুসল্লী মুফতি কামাল উদ্দিন জাহানপুরী বলেন, আল্লাহর কাজে স্বেচ্ছায় শ্রম, অর্থ ও সময় দেওয়া এর চেয়ে বড় নজির নেই। আল্লার কাজে দ্বিনের দাওয়াতে মেহনত করা, আল্লাহকে রাজি খুশি করা। দ্বিনের মেহনত করলে এর ইজ্জত আল্লাহ তা—আয়ালাই দিবেন। কোরআনে রয়েছে আল্লাহর কাজে জান মাল অর্থ সময় দিয়ে সাহায্যকারী হও, তাহলে আখেরাতে জিহাদের সমতুল্য মর্যাদা পাবে।
এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি আলহাজ¦ মো: জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বর্তমান সরকারের পর্যবেক্ষণে এবারও বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগত মুসল্লিদের সেবায় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে ময়দানের চারপাশে বহুতল ভবন নির্মাণ করে টয়লেট ও গোসল করার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। ইজতেমা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।
গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রধান উপদেষ্টা সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এবারের বিশ্ব ইজতেমা সফল করতে আগত মুসল্লিদের সেবায় সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে।
আগামী ২০২৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি রোজ শুক্রবার বাদ ফজর আমবয়ানের মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হবে বিশ্ব তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা। ২ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে ৪ ফেব্রুয়ারি রোজ রবিবার আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এরপর ৪ দিন বিরতি দিয়ে ৯ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। ১১ ফেব্রুয়ারি রোজ রবিবার আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে উভয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here