আজ মহান বিজয় দিবস

0
50
728×90 Banner
অপশক্তির বিরুদ্ধে শপথ নেবে কোটি প্রাণ

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: আজ মহান বিজয় দিবস। লোকজনের হাতে হাতে শোভা পাবে জাতীয় পতাকা। গতকাল সারা দেশে জাতীয় পতাকা কেনাবেচার ধুম পড়ে যায়। রাজধানীর গুলিস্তান এলাকায় বিক্রির জন্য সাজিয়ে রাখা লাল-সবুজ পতাকা-এম খোকন সিকদার
মহান বিজয় দিবস আজ। বাঙালি জাতির হাজার বছরের শৌর্যবীর্য এবং বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিন। বীরত্বগাথা ত্যাগ আর মহিমায় ভাস্বর বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার ৪৯তম বছর।
১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিশ্বের বুকে স্বাধীন ভূখণ্ড হিসেবে লাল-সবুজের পতাকাবাহিত বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল। ১৯৭১ সালের এদিনে বাঙালি জাতি পরাধীনতার শেকল ভেঙে প্রথম স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণ করে।
২৪ বছরের নাগপাশ ছিন্ন করে জাতির ভাগ্যাকাশে দেখা দেয় এক নতুন সূর্যোদয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ৯ মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের পর এ দিন বিকেলে রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী যৌথবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। হানাদার মুক্ত হয় বাংলাদেশ।
৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ বাঙালিকে হত্যা, দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম কেড়ে নেয় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও এদেশের দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামস। যে অস্ত্র দিয়ে দমাতে চেয়েছিল বাঙালিকে এই দিনে সেই অস্ত্র পায়ের কাছে নামিয়ে রেখে বীর বাঙালির কাছে পরাজয় মেনে নেয় পাকিস্তানি বাহিনী।
প্রভাত সূর্যের রক্তাভা ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। সমস্বরে ধ্বনিতে উচ্চারিত হয় ‘জয়বাংলা’ বাংলার জয়, পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে, রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল। চলতি বছর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করছে জাতি। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মুজিববর্ষের কর্মসূচিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগামী ২০২১ সালে স্বাধীনতা অর্জনের সুবর্ণজয়ন্তী পালন করবে বাংলাদেশ।
বিশেষ এ মুহূর্ত সামনে রেখে বিজয়ের ৪৯তম বাষির্কীতে উদযাপনও সীমিত করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস-২০২০ উদযাপনের লক্ষ্যে জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সংস্থা বিজয় দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।
তবে কোভিড -১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে এ বছর বিজয় দিবস কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হবে না। কর্মসূচির মধ্যে আজ ঢাকায় ভোর প্রত্যুষে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসটির সূচনা করা হবে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে।
এরপর মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রীর নেতৃত্বে উপস্থিত বীরশ্রেষ্ঠ পরিবার, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও বীর মুক্তিযোদ্ধারা পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এরপর সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য উন্মুক্ত করা হবে। হাতে হাতে ফুল আর দৃপ্ত কণ্ঠে শপথ নেবে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি চলা অব্যাহত ষড়যন্ত্রের বিষদাঁত উপড়ে ফেলার। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে ঐক্যবদ্ধ থাকার শপথও থাকবে প্রাণে প্রাণে।
দিনটি সরকারি ছুটির দিন। সকল সরকারি-আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি ভবনে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে এবং গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও স্থাপনাসমূহ আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হবে। ঢাকা ও দেশের বিভিন্ন শহরের প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপসমূহ জাতীয় পতাকা ও অন্যান্য পতাকায় সজ্জিত করা হবে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বাণী দিয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক অডিও বার্তায় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং নতুন করে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কার কারণে সঠিক স্বাস্থ্য নির্দেশনা মেনে দিবসটি উদযাপনের আহ্বান জানিয়েছেন।
প্রায় ১৭ কোটি মোবাইল ব্যবহারকারীকে ৪৫ সেকেন্ডের একটি অডিও বার্তা পাঠানো হয়েছে। দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে এদিন সংবাদপত্রসমূহ বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করবে। এ উপলক্ষে ইলেকট্রনিক মিডিয়াসমূহ মাসব্যাপী মুক্তিযুদ্ধ-ভিত্তিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে।
এছাড়াও বিজয় দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়ালি ‘জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে জাতীয় সমৃদ্ধি অর্জন’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ৪৮ বছর পেরিয়ে আজ বিজয়ের ৪৯তম বাষির্কী।
বাঙালি জাতির গর্বের মহান বিজয় দিবসে কৃতজ্ঞ জাতি সশ্রদ্ধ বেদনায় স্মরণ করবে দেশের পরাধীনতার গ্লানি মোচনে প্রাণ উৎসর্গ করা বীর সন্তানদের। সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে জনতার ঢল নামবে। শ্রদ্ধার সাথে তারা শহীদদের উদ্দেশে নিবেদন করবেন পুষ্পাঞ্জলি। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের সব প্রান্তের মানুষ অংশ নেবে বিজয় দিবসে। সবাইকে সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
বঙ্গবন্ধুর বজ্র নিনাদ ভাষণ আর মুক্তিযুদ্ধের সময়ের জাগরণী গানে আকাশ-বাতাস হবে মুখরিত। স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাংলাদেশে অবস্থিত বিদেশি কূটনীতিক, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের জনগণ পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলা একাডেমি, জাতীয় জাদুঘর, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, বাংলাদেশ শিশু একাডেমিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন মুক্তিযুদ্ধ-ভিত্তিক আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিশুদের চিত্রাঙ্কন, রচনা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং মুক্তিযুদ্ধ-ভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করবে বিভিন্ন সংগঠন।
এছাড়া মহানগর, জেলা ও উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। ডাক বিভাগ স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করবে।
ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসমূহে দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও উপাসনার আয়োজন করা হবে এবং এতিমখানা, বৃদ্ধাশ্রম, হাসপাতাল, জেলখানা, শিশু বিকাশ কেন্দ্রসহ অনুরূপ প্রতিষ্ঠানসমূহে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে।
দেশের সব শিশুপার্ক ও জাদুঘরসমূহ বিনা টিকিটে উন্মুক্ত রাখা হবে। বিজয় দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে বরাবরের মতো থাকছে রোগীদের বিশেষ খাবার পরিবেশন ও বিনামূল্যে চিকিৎসা।
দিবসটি উপলক্ষে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ‘৭১ ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘শিখা চিরন্তন’ বেদি সংলগ্ন স্বাধীনতা চত্বরে অনুষ্ঠান মালার আয়োজন করেছে। বাংলাদেশ আ.লীগের কর্মসূচির মধ্য রয়েছে, সূর্যোদয় ক্ষণে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে, বঙ্গবন্ধু ভবন ও দেশব্যাপী সংগঠনের কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল ৯টায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন।
১০ টায় ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে রক্ষিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। সকাল সাড়ে ৯টায় টুঙ্গিপাড়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, জিয়ারত, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল।
বেলা ৩টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
যুবলীগের উদ্যোগে সকাল সাড়ে ৮টায় সাভার স্মৃতিসৌধে, সকাল সাড়ে ৯টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, ফাতিহা পাঠ ও দোয়া-মুনাজাত করা হবে।
বিজয় দিবস উপলক্ষে কর্মসূচি দিয়েছে বিএনপি। ভোরে নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল সাড়ে ৮টায় সাভারস্থ জাতীয় স্মৃতিসৌধে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির উদ্যোগে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হবে।
ওই দিনই জাতীয় স্মৃতিসৌধ থেকে ফিরে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে শেরেবাংলা নগরস্থ দলটির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হবে। বেলা সাড়ে ৩টায় বিএনপির উদ্যোগে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে সকালে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। বেলা ৩টায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পার্টি ও জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পার্টির আয়োজনে ‘মহান বিজয় দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

11 + four =