ইতালিতে অর্থমন্ত্রীর সাথে আরবিএ,এফএও,ডাব্লুএফপির প্রধানদের বৈঠক

0
329
728×90 Banner

ইসমাইল হোসেন স্বপন ,,ইতালি প্রতিনিধিঃ জাতিসংঘের তিনটি রোম ভিত্তিক সংস্থার (আরবিএ) প্রধান – এফএও, ডাব্লুএফপি এবং আইএফএডি পৃথকভাবে অর্থমন্ত্রী আ হম মোস্তফা কামাল, এফসিএ, এমপি’র সাথে ১৩ ফেব্রুয়ারি রোমে সদর দফতরে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ দারিদ্র্য ও ক্ষুধা মোকাবিলায় বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের প্রশংসা করেন সংস্থার প্রধানগন। এক দশকে বাংলাদেশ ৬ শতাংশেরও বেশি জিডিপি বৃদ্ধি পেয়েছে। জোরপূর্বক বিচ্ছিন্ন মিয়ানমার নাগরিকদের আশ্রয়স্থল বাড়িয়ে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব পদক্ষেপে তারা অত্যন্ত প্রশংসা করেন। তারা বলেছে যে বিশ্বের মানবতার উদাহরণ বাংলাদেশ করেছে।
বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী পরিচালক ডেভিড বেসলি তার সাম্প্রতিক সফরকে স্মরণ করেছেন এবং জোরপূর্বক বিচ্ছিন্ন মায়ানমার নাগরিকদের অমানবিক অবস্থার মধ্য দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণের পক্ষে বাংলাদেশকে সহায়তা করার জন্য তাদের প্রতিশ্রুতি তুলে ধরেন। সম্প্রতি, ডব্লিউএফপি জোরপূর্বক বিচ্ছিন্ন মিয়ানমার নাগরিকদের কাছে ৫৩১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ৯৬৯ মিলিয়ন ইউএসডি পর্যন্ত তার সহায়তা বৃদ্ধি করেছে।
ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচারাল অর্গানাইজেশন (এফএও) এর মহাপরিচালক জসি গ্রাজিয়ানো ড সিলভা তার অসাধারণ অগ্রগতির জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করেন এবং সহযোগিতার শুরু থেকে ৩০০ মিলিয়ন ডলারের মূল্যের ৩১৬ টি জাতীয় প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশকে তার সমর্থন উল্লেখ করেন। তিনি জানান, বর্তমানে এফএও ৩৬ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে যা খাদ্য নিরাপত্তা, খাদ্য নিরাপত্তা এবং খাদ্য ব্যবস্থার উন্নতির ক্ষেত্রে ৯৮.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি। জোরপূর্বক বিচ্ছিন্ন মিয়ানমারের নাগরিকদের জন্য বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডাব্লুএফপি) বরাবর এফএওও প্রধান তার অবিলম্বে এবং দীর্ঘমেয়াদী সমর্থন জানায়। মাননীয় অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশে নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন স্থানান্তর করার জন্য কৃষি গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠায় প্রযুক্তিগত সহায়তা দেওয়ার জন্য এফএও-এর প্রিন্সিপালকে অনুরোধ করেন। তিনি এফএওওকে বাংলাদেশে ফলন (আম, কাঁঠাল, পেঁয়াজ, আনারস, লিচু) প্রক্রিয়াকরণ শিল্পের জন্য তার দক্ষতা ভাগ করার আহ্বান জানান। পরবর্তীতে এফএওও মিডিয়া সেন্টারের ভবিষ্যৎ যাত্রায় বাংলাদেশ ও এফএও-এর মধ্যে সম্ভাব্য সহযোগিতার বিষয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণের জন্য মাননীয় অর্থমন্ত্রী এর একটি সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন।
ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভলপমেন্ট (আইএফএড) এর সভাপতি জিলবার্ট এফ হাউংবো জানান, ১৯৭৮ সালে আইএফএডি ১৮,৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে ৪৬,৫ মিলিয়ন লোকের প্রকল্পে অনুদান এবং নিম্ন সুদের ঋণ প্রদান করেছে। তাছাড়া, আইএফএডি ৩৩টি গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৭১৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ এবং অনুদানে বিনিয়োগ করেছে, ১১,১ মিলিয়ন পরিবারের জীবিকা উন্নত করেছে। গ্রামীণ জনগণের জন্য সম্পদ বিতরণ ও ব্যবহারে রাষ্ট্রপতি সর্বোচ্চ কর্মক্ষম পোর্টফোলিওর জন্য বাংলাদেশকেও প্রশংসা করেন।
৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দারিদ্র্য ও ক্ষুধা দূরীকরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশকে ক্রমাগত সহযোগিতা ও সহযোগিতার জন্য মন্ত্রী এএইচএম মুস্তাফা কামাল, এফসিএ, এমপি, সংগঠনের প্রধানদের ধন্যবাদ জানান এবং জোরপূর্বক মানবিক সাহায্যের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে ত্রাণ ও পুনর্বাসনের জন্য বাংলাদেশকে FAO এর উল্লেখযোগ্য সহায়তা এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধার ও পুনর্গঠনের সহায়তার জন্য মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হাইলাইট করেছেন যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ জিডিপি বৃদ্ধির হার এবং গত দশকে 6% এরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জনসংখ্যা বৃদ্ধি সত্ত্বেও খাদ্য নিরাপত্তার লক্ষ্যে বাংলাদেশ একটি প্রশংসনীয় অগ্রগতি করেছে। তিনি আরও জানান, মিষ্টি পানির মাছ উৎপাদন বিষয়ে বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বের চতুর্থ স্থান। মন্ত্রী আরও জানান, বাংলাদেশ এমডিজি অর্জনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে এবং ইতোমধ্যে ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশের স্থিতি অর্জনের লক্ষ্যে এবং ১৯৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশটির লক্ষ্য অর্জনে এসডিজিগুলির সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা নিয়ে প্রধান প্রজেক্ট তৈরি করেছে।
অর্থমন্ত্রী আন্তর্জাতিক কৃষি ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভলপমেন্ট (আইএফএডি) এর গভর্নিং কাউন্সিলের সভায় ৪২তম অধিবেশনে যোগ দিতে রোমে রেয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here