উপকূলের ঘরে ঘরে ডিজিটাল ব্যাংক

0
21
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : দুর্গম এক চর ঢালচর। বর্ষায় বলতে গেলে বাকি দেশের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ। আবহাওয়া ভালো থাকলে দিনে দুয়েকবার যাতায়াতের সুযোগ আছে উপজেলা হাতিয়া বা মনপুরার সঙ্গে। এ চরে ১০ হাজার মানুষের বাস। এখানকার বাসিন্দাদের অনেকে কাজ করেন শহর ও অন্যান্য অঞ্চলে। অন্যসব যোগাযোগ অনুন্নত হলেও লোকগুলোর উপার্জিত অর্থ মুহূর্তেই চলে যাচ্ছে তাদের ঘরে। আর এমনটা সম্ভব হয়েছে ডিজিটাল মোবাইল ব্যাংকিং সেবার কারণে।
এই চরের মসজিদ মার্কেট এলাকায় বাস করেন মাইমুনা আক্তার। স্বামী গিয়াস উদ্দিন চট্টগ্রামে রিকশা চালান। তার দিনের উপার্জিত অর্থ সন্ধ্যায় চলে আসে মাইমুনার মোবাইলে। বিকাশ, নগদ, রকেট ও ড্যাচ বাংলাসহ সব সুবিধাই আছে এই পরিবারের। টাকা পাওয়ার পর তা তুলতে ও বাজার করতে সন্ধ্যায় বের হন মাইমুনা।
মাইমুনার মতো চরের বাকিসব পরিবারেরও আছে মোবাইল ওয়ালেট ও মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা। চরের বাজারে রয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং-এর দোকান। মুহূর্তেই নগদ টাকা উঠিয়ে নিতে পারেন তারা।মাইমুনার সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এক সময় স্বামী দূরের কোনও জেলা শহরে কাজের সন্ধানে গেলে সুদে টাকা নিয়ে আমাদের দিয়ে যেতো। মাসের পর মাস সেই ঋণ ও সুদ পরিশোধ করতে হতো আমাদের। দিশেহারা হয়ে পড়তাম। এখন সুদের কারবারিরা সেধেও ঋণ দিতে পারে না। কারণ স্বামী দিনে যা আয় করে সন্ধ্যার মধ্যেই সেটা আমার মোবাইলে চলে আসে। মোবাইলই এখন আমাদের ব্যাংক।’
সরেজমিনে দেখা গেছে, ঢালচরের প্রতিটি মানুষের মোবাইল ফোনে ব্যাংকিং কোম্পানিগুলোর অ্যাকাউন্ট রয়েছে। উপকূলীয় উপজেলা সুবর্ণচরের দুর্গম এলাকাগুলোতেও মোবাইল ব্যাংকিং জনপ্রিয়তা পেয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ও হাটবাজারগুলোতে মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানিগুলোর এজেন্ট আছে যথেষ্ট।
ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং (রকেট ) কর্মকর্তা মো. এরশাদ হোসেন জানান, ‘২০১১-১২ সালে সুবর্ণচরে মোট এক হাজার গ্রাহকও বানাতে পারিনি। ধীরে ধীরে মানুষের আস্থা ফিরলে প্রচুর গ্রাহক হয়।’
এ কর্মকর্তার মতে সুবর্ণচরের প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকই এখন মোবাইল ব্যাংকিং-এর আওতায় আছে। ডিজিটাল এ লেনদেন ব্যবস্থা বদলে দিয়েছে এখানকার মানুষের জীবনযাত্রা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 + three =