এখনও জ্বলছে আগুন, বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা

0
47
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এ পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মীসহ নয় জনের লাশ পাওয়া গেছে। এখনও আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি। সারিবদ্ধভাবে এখনও দগ্ধদের নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের সামনে আসছে অ্যাম্বুলেন্স। এ নিয়ে আতঙ্ক বাড়ছে স্বজনদের। কারণ আগুন যতই জ্বলছে ততই দগ্ধ ও নিহতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করছেন তারা। এরই মধ্যে চমেক হাসপাতালে চার শতাধিক আহত ও দগ্ধ ব্যক্তিকে ভর্তি করা হয়েছে। আশপাশের হাসপাতালে ভর্তি আছেন আরও শতাধিক।
রবিবার ভোর ৭টা পর্যন্ত ঘটনাস্থল থেকে দগ্ধদের নিয়ে সারিবদ্ধভাবে সাত-আটটি অ্যাম্বুলেন্সকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আসতে দেখা গেছে।
শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিল। রবিবার ভোর ৭টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি। সেখানে দেখা দিয়েছে পানির সংকট। এ জন্য উদ্ধার কার্যক্রম বিঘ্নিত হচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের। হিসাবে ১০ ঘণ্টায়ও আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি।
চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, সবশেষ ঘটনাস্থলে আরও এক জনের লাশ পাওয়া গেছে। তিনি ফায়ার সার্ভিসের কর্মী। এ নিয়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নয় জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এখনও দগ্ধদের ঘটনাস্থল থেকে সাত-আটটি অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে আনা হচ্ছে। এদের বেশিরভাগই দগ্ধ। অনেকের অবস্থা গুরুতর।
চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক নিউটন দাশ বলেন, এখনও আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা। এরই মধ্যে পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এ জন্য উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে। আমরা পানির ব্যবস্থা করছি।
এর আগে আট জন নিহতের কথা জানিয়েছিলেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। সবশেষ ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মীর লাশ রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। এ নিয়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নয় জনের প্রাণ গেলো।
এখনও নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি। এ ঘটনায় দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন চার শতাধিক।
দগ্ধদের মধ্যে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরাও রয়েছেন।
ভোররাত সাড়ে ৫টার দিকে নয় জন নিহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন চমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক রাজিব পালিত।
তিনি বলেন, এ পর্যন্ত নয় জন নিহত হয়েছেন। দগ্ধ অবস্থায় চার শতাধিক ব্যক্তি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের চিকিৎসা চলছে। এখনও দগ্ধদের হাসপাতালে আনা হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here