এদেশের মাটিতেও সৌদি আরবের খেজুর ফলানো সম্ভব

0
280
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ফিচার: সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) যেসব খাবার গ্রহণ করেছেন, তা ছিল সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। রাসুল (সা:) খাবারের তালিকায় অন্যতম ছিল খেজুর। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে সালাম (রা.) থেকে বর্ণিত, আমি রাসুল (সা.)-কে বার্লির এক টুকরো রুটির ওপর একটি খেজুর রাখতে দেখেছি। তারপর বলেছেন, ‘এটিই সালন-মসলা।’ (আবু দাউদ:৩৮৩০) অন্য হাদিসে আছে, প্রিয় নবী (সা.) বলেছেন, ‘যে বাড়িতে খেজুর নেই, সে বাড়িতে কোনো খাবার নেই।’ এমনকি প্রিয় নবী (সা.) সন্তান প্রসবের পর প্রসূতি মাকেও খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
আর সেই সৌদি আরবের খেজুর গাজীপুর সদরের পিরুজালী ইউনিয়নের আলিমপাড়া গ্রামে নজরুল ইসলাম বাদল নামে এক যুবক শুরু করেছেন এ খেজুর চাষ। বাণিজ্যিভাবে চাষাবাদ শুরু করলেও পাশাপাশি খেজুর চারা তৈরির একটি নার্সারিও করেছেন তিনি। চারা বিক্রির সঙ্গে সঙ্গে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে নজরুলের ‘সৌদি ডেট পাম ট্রিস ইন বাংলাদেশ’ নামের নার্সারিটিতে। খেজুর চাষাবাদে আগ্রহীদের প্রশিক্ষণও দিচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমানের ছেলে নজরুল ইসলাম বাদল। সৌদি আরবের খেজুর চারার নার্সারিটি নজরুল গড়েছেন শুধু চারা বিক্রির জন্যই নয়, মানুষ যেন খেজুর বাগান করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে পারে সে কথা মাথায় রেখে।
নজরুল ইসলাম বাদল জানান, ২০১৪ সালে ১৮টি চারা গাছ সংগ্রহ করে ১০ কাঠা জমি নিয়ে প্রথমে বাগান শুরু করেন। নাম দেন ‘সৌদি ডেট পাম ট্রিস ইন বাংলাদেশ’। সেসব খেজুর গাছ দেখতে এলাকাবাসী ভিড় করত। এর মধ্যে সৌদি আরব থেকে ৩টি, দুবাই থেকে ১০টি, ভারত থেকে ২টি ও কুয়েত থেকে ২ বছর বয়সী তিনটি চারা বিভিন্ন মাধ্যমে সংগ্রহ করেন। ১৮টি চারা ক্রয় করতে ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা লেগেছিল বলে জানান তিনি। বর্তমানে আড়াই একর জমিতে ১০০ বড় গাছসহ ছোট, মাঝারি সাইজের ৬ হাজার চারা গাছ রয়েছে। বিভিন্ন উপায়ে ২ হাজার চারা গাছ সংগ্রহ করা হয়েছে। বাকি ৪ হাজার গাছ বিদেশ থেকে উন্নতমানের খেজুর এনে এর বীজ থেকে নিজস্ব নার্সারিতে পলিব্যাগে রোপণ করে তৈরি করা হয়েছে। বর্তমানে নজরুলের বাগানে বড় ১১টি ও মাঝারি সাইজের মোট ৩০০টি গাছে খেজুর ধরেছে এবং ৬টি জাতের খেজুর চারা রয়েছে। এর মধ্যে আজওয়া, আনবারা, সুক্কারি, রুথান, বারহি ও মরিয়ম জাতের চারা রয়েছে। বাদলের খেজুর বাগান
তিনি বলেন, বাংলাদেশের মাটিতে সৌদি আরবের খেজুর ছড়িয়ে দিতে চাই। প্রমাণ করতে চাই এ দেশের মাটিতেও সৌদি আরবের বা মধ্যপ্রাচ্যের সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খেজুর ফলানো সম্ভব। এজন্য সরকারের সহযোগিতাও প্রয়োজন। খেজুর চাষ করা নিয়ে এখানে একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্র করারও ইচ্ছা আছে।
খেজুরচারা রোপণ করার নিয়ম সম্পর্কে জানকে চাইলে নজরুল জানান, ৩ফুট দীর্ঘ, ৩ফুট প্রস্ত এবং ৩ ফুট গভীর করে গর্ত করতে হবে। ওই গর্তের অর্ধেক মাটির সাথে অর্ধেক ভিটি বালু এবং ৩০ কেজি শুকনা গোবর মিশিয়ে ওই গত ভরাট করতে হবে। এরপর পানি দিতে হবে। পরে মাটি (দেবে) বসে যাওয়ার পর খেজুর চারা সঠিকভাবে রোপন করতে হবে। রোপনের ৩ মাস পরপর বছরে ৪বার রাসায়নিক সার ও মাল্টিমিক্স (ঔষধ) প্রয়োগ করতে হবে। বর্ষার আগে ও পরে জৈব সার দিতে হবে। যে কোনো মাটিতে খেজুর বাগান করা সম্ভব। তবে বৃষ্টির পানি যাতে না জমে এমন স্থানে চারা লাগাতে হবে তবে রোদ থাকতে হবে। প্রতিবছর বাগানে একটি চারার পেছনে প্রায় ২ হাজার টাকা খরচ হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here