এবার খাদ্যে ভেজাল বন্ধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

0
188
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: দেশে সুশাসন ও শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বিগত মেয়াদেই জঙ্গি, সন্ত্রাস ও মাদকেরবিরুদ্ধে অভিযানে জিরো টলারেন্স নীতি প্রয়োগ করেছিলেন। এরপর গত ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচনে জয়ের মধ্য দিয়ে টানাতৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। নতুন মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের শুরুতেই সরকারি ও বেসরকারি সর্বক্ষেত্রে দুর্নীতিরবিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেন তিনি। যার ফলে দেশ জুড়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলছে ধারাবাহিক অভিযান।
এবার খাদ্যে ভেজাল দেয়াকে এক ধরণের দুর্নীতি আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণ মানুষের জীবন রক্ষার্থে খাদ্যদ্রব্যেভেজাল প্রদান বন্ধ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। খাদ্যে ভেজাল দেয়াটা কিছু কিছু শ্রেণীর একটি চরিত্রগত বদ অভ্যাস বলেমন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেছেন, ‘কোন বিষ খেয়ে আমাদের দেশের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হোক এটা আমরা চাই না। এটা বন্ধ করতে হবে। এই ভেজালখাদ্য খেলেতো মানুষের উপকার নয়, অপকারই হয়।’
বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরায় ভেজাল বা বাসি খাবার বা পঁচা খাবার সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে নাগরিক সচেতনতা একান্তভাবে দরকার। জনগণ যদি সচেতন হয় তাহলে তাদেরকে এভাবে কেউ ঠকাতে পারবে না।সরকারের পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালনার সাথে সাথে এসব বিষয়ে মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার।’
প্রধানমন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে সরকার সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে সেখানে সফলতা অর্জন করেছি, আমরা মাদকেরবিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছি। খাদ্যে ভেজাল দেয়াও এক ধরণের দুর্নীতি, এই দুর্নীতির বিরুদ্ধেও আমরা অভিযান অব্যাহত রেখেছি।
তিনি বলেছেন, ‘দেশে ভেজাল খাদ্য বিরোধী অভিযান চলছে এবং এটিকে ভালোভাবে পরিচালনার জন্য আমরা বিভিন্নমন্ত্রণালয়কে নিয়ে একটি আলাদা কতৃর্পক্ষ করে দিয়েছি এবং তাদের লোকবলের যে সমস্যা রয়েছে সে সমস্যা আমরা দূর করেদেব। হাটে, মাঠে, ঘাটে সর্বত্রই যেন এই ভেজাল বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকে তার ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি এবং ভবিষ্যতেওনেব।
নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ অনুযায়ী দেশের মানুষকে নিরাপদ খাদ্য দেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা।
তিনি আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘আমাদের নির্বাচনী ইশতেহারে আমরা পুষ্টিসমৃদ্ধনিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তা বিধান করার কথা বলেছি। নির্বাচনী ইশতেহার যথাযথভাবে পূরণ এবং সেটা আমরা বাস্তবায়নকরবো। ভেজাল রোধে খাদ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বিশেষ ল্যাবরেটরি প্রতিষ্ঠা করা হবে। আমাদের একটি কেন্দ্রীয় ল্যাবরেটরিযেমন থাকবে তেমনি প্রতিটি বিভাগেও এর একটি করে শাখা থাকবে, যাতে করে যে কোন জায়গায় যেকোন ভেজাল খাবারসাথে সাথে আমরা পরীক্ষা করে দেখতে পারি।’
জঙ্গি, মাদক ও দুর্নীতির ছোবল থেকে মুক্তির পর এবার ভেজাল খাদ্যের অভিশাপ থেকে মুক্তির অপেক্ষায় বাংলাদেশ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here