কর্পোরেট শিক্ষা ও আমাদের গতিবিধি

0
205
728×90 Banner

নিজাম উদ্দিন: শিক্ষাক্ষেত্রে জ্ঞান চর্চার প্রয়োজনীয়তা কেউ অস্বীকার করেন না, কিন্তু জ্ঞান চর্চা না থাকিলেও দু:খ নাই,যদি পরীক্ষার ফল ভাল হয়, সেটা যেভাবেই হউক!দলমত নির্বিশেষে শিক্ষাকে অর্থ উপার্জনের হাতিয়ার বানানো কর্পোরেট শিক্ষার বিশেষ বৈশিষ্ট্য। কমলাকান্তও বলিয়াছিল যে বিদ্যায় অর্থ উপার্জন হয় না সে বিদ্যা দিয়া কী হইবে?
কি হইবার কথা, কি হইতে পারিত এইসব কেবলই অনুমান। এই অনুমানকে কেন্দ্র করিয়াই যুক্তির ইমারত গড়িয়া তুলিতে হয় তাতে কোন সন্দেহ নাই । অনুমানের সঙ্গে বাস্তব অভিজ্ঞতা যুক্ত হইয়া নতুন পথ সৃষ্টি হইতে পারে। এইসব ভাবিতেছি আর লোককথার সঙ্গে অতীত বর্তমান মিলাইয়া দেখিতেছি।
প্রসঙ্গ: ছেলেপুলেদের লেখাপড়া।
পত্রিকা ও প্রযুক্তির অলিগলি ঘুরিয়া দেখিতে পাই, সাধারণেরা কিছু কথা বলিয়া চলিতেছে। আজকাল লেখা পড়া কঠিন হইয়াছে,অর্থ বেশি খরচ হইতেছে।
জাতির ভবিষ্যৎ অন্ধকার , সীমাহীন অসঙ্গতির কবলে দেশের শিক্ষাদিক্ষা, ছাত্ররা খুব সামান্যই শিখিতেছে, প্রতি বছর পাঠ্যক্রম বদল হইতেছে এবং জটিল হইয়া উঠিতেছে, বছর বছর দুর্বোধ্য পাঠ্যক্রম রচিত হইতেছে, প্লেজারিজম হইতেছে, বাজারে নিষিদ্ধ নোট (?) ছাপা হইতেছে, বিবর্তনবাদের মতো দুর্বোধ্য বিষয় ছোটদের পাঠ্যপুস্তকে জুড়িয়া দেওয়া হইয়াছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বড় দোকানে পরিণত হইতেছে, যারা বিজ্ঞান জানেন না তাহারা বিজ্ঞান প্রচার করিতেছে, নৈতিক শিক্ষা নাই বলিয়া ঘুষ বাড়িয়া যাইতেছে।মোটকথা কর্পোরেট শিক্ষার তিনটি প্রধান বৈশিষ্ট্য ব্যাপক আকার ধারণ করিতেছে —
১) শিক্ষায় ধর্মীয় করন হইতেছে
২) বেসরকারি করণ হইতেছে
৩) বাণিজ্য করণ হইতেছে।
কেননা স্বাধীন বাংলাদেশের শিক্ষার ইতিহাস ঘাটিয়া দেখিতে পাই এইসব দোষ পাঠ্যপুস্তকে নতুন নহে । লোকমুখেও এসব কম চলে না। লোকমুখের সকল কথা গ্রহণ করিব সাধ্য নাই ,বাতিল করিবার সাহস নাই ।তাই লোকমুখের কথা কিছু না কিছু শুনিতেই হইবে।
একটু পেছনে ফিরিয়া দেখিতে চাই। অতীতে লোকেরা কী কী বলিয়াছিল? লোকেরা বলিতেছে, দাদাজান মেট্রিক পাশ করিয়া হাইস্কুলের হেডমাস্টার হইয়াছিল। বাবা কাকাদের জেনারেশন- ছয় ক্লাশ পার করিয়াই তারা তুখোর ইংরেজি বলিতে পরিতেন। আজকালকার জেনারেশন এম এ পাশ করিয়াও তাহা পারে না । এইসব কথা বাতিল করিবার যুক্তি নাই,গ্রহন করিবারও সাহস নাই। বাতিল করিলে ইতিহাস ক্ষুন্ন হয়,গ্রহন করিলে নতুন প্রজন্মকে অস্বীকার করা হয়।এ এক উভয় সংকট। অবশ্য তাদের সমগ্র বিদ্যা জীবন জুড়িয়া দুইখান জিনিসই পাড়িতে হইতো।
এক খানা হইলো গণিত, অন্যখানা ইংরেজি। এই দুই বিষয়ের শিক্ষক ছিল ছাত্রদের নিকট আতঙ্কের বিষয়। আর ছিল বাংলা ও সংস্কৃতের পন্ডিৎ মহাশয় । পন্ডিত মহাশয়ের কহিনী আরও বিছুটা আগের লোককথা ।
সেকালের পুস্তকে কতগুলো ভুল ছিল তাহা কোথাও লেখা নাই । থাকিলেও লোকমুখে তার কোন নিন্দা শুনিতে পাই না। সাধারণ নিয়মে পুস্তক বদল হইত,সাধারণ নিয়মেই শিক্ষার নিয়ম কানুন বদল হইত ।
কিন্তু পুস্তক বদলের মধ্যে কীভাবে হৈচৈ যুক্ত হইল তাহার কয়েকটি নমুনা উল্লেখ করিতে চাই। ৮৩/৮৪ সনের পুস্তক বদল নিয়া কোন হৈচৈ শুনিনাই। ৯০/৯১ সনে দেখিতে পাই ৫০ নম্বরের অবজেক্টিভ চালু হইল। চারিদিকে ব্যাপক হৈচৈ শুরু হইল। যিনি কোনদিন স্কুলের চৌকাঠ পার হননি, তার পক্ষেও টিক চিহ্ন দিয়া ২৫ নম্বর পাওয়া সম্ভব হইয়াছিল । ইত্যাদি সব সমালোচনায় ভীড়ে সে নিয়ম বদলাইয়া গিয়াছিল। এইভাবে সামান্য সময়ের ব্যবধানে একটি পদ্ধতি চালু করিয়া অন্য নিয়ম চালু করিলেন তাতে কার লাভ হইল?
এরপরে কি হইয়াছিল আপনাদের মনে আছে নিশ্চয়ই! পন্ডিতগণ আগের জায়গা থেকে তেমন একটা নড়িতে পারিলেন না। মাল্টিপল চয়েজ আবারো থাকিয়া গেল। এবারে ভুল উত্তরে নাম্বার কাটার ব্যবস্থা থাকিল। অবজেক্টিভ এবং রচনামূলকে আলাদাভাবে পাশ করিতে হইবে। যাতে অহেতুক কেউ ২৫ নম্বর না পাইতে পারে । আবারও হাসি পাইতে পারে, অবশ্য হাসিতে নিষেধ নাই।
বলা বাহুল্য ইতিমধ্যেই পাঁচ সাত বছর পার হইয়া গেল এবং বিষয়জ্ঞানহীন একটি জাতি এসএসসি সনদ হাতে লইয়া সগৌরবে পরান ঠান্ডা করিল।
আগে যেসব শিক্ষক জনতা হৈচৈ করিয়াছিল, এখন তাহারা হতাশায় বলিল ছাত্ররা গিনিপিগে পরিণত হইল। তথাপিও গিনিপিগ কাটিয়া পরিক্ষা নিরীক্ষা পর্যবেক্ষণ বন্ধ হইল না। এরপরে প্রস্তাব করা হইল টিক চিহ্নের প্রশ্নের পরিমাণ কমানো দরকার! কদিন পরে ঠিকই কমিয়া গেল।
দুঃখের সঙ্গে বলিতে হয়, এতসব পরিবর্তনের হেতু শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে পড়াশুনা না করার অভিযোগ। পাশাপাশি অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধেও।
শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ নতুন নহে ,যুগে যুগে বংশ পরম্পরায় এসব অভিযোগ চলিয়া আসিতেছে।
প্রথমদিকের সনাতন অভিযোগ – এরা পড়ে না,টিভি দেখে, সারাদিন শন্ডাদের সাথে আড্ডায় মজিয়া থাকে , সারাদিন খেলা আর খেলা, স্কুল কলেজ কামাই করিয়া সিনেমা দেখিয়া তাস খেলিয়া সময় কাটায় ইত্যাদি। আধুনিককালের অভিযোগ – এরা পড়ে না, সারাদিন মোবাইল চালায়,গেমস খেলে, টেলিভিশন তো দেখেই না, খেলাধুলার কোন বালাই নাই। শরীর মগজ ধুইয়া গিয়াছে।
অতএব এমন ব্যবস্থা করা চাই, তাদের পড়িতেই হইবে।চব্বিশ ঘন্টা পড়িতে হইবে। আলাদিনের চেরাগে ঘসা দেওয়া হইল, দৈত্ত আসিয়া গেল। পরামর্শ দিয়ে গেল দুষ্ট কোমলমতিদের পড়াইতে হইলে শিশুকাল হইতেই চাপিয়া ধরিতে হইবে। চালু হইল নতুন কান্ড। পিইসি জেএসসি জেডিসি ইত্যাদি পরীক্ষার মাধ্যমে সবাইকে আটকাইতে হইবে। সবাই আটকা পড়িল । ছোট বড় সকলের ঘরেই শুরু হয়ে গেল ধুমধাম লেখাপড়া। মাঠ থেকে সকলেই ঘরে ফিরিয়া আসিতে বাধ্য হইলো।সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ হয়ে গেল শিশু-কিশোরদের শিল্পকলা চর্চা, নাটক কবিতার চর্চ, চিত্রকলার চর্চা ইত্যাদি সৃজনশীল চর্চা। কি একটা শিক্ষা শিক্ষা জমজমাট ব্যাপার সমাজব্যাপী! কোচিং ওয়ালা বলিলেন বেশ ভালো! বেশ ভালো চলিতেছে সার্কাস!! আমলারা বলিলেন বেশ!শিক্ষা কর্মকর্তা বলিলেন বেশ! মধ্যবিত্তরা কিংকর্তব্যবিমূঢ়,তাহারা কিছুই বলিতে পরিলেন না। কেউ বলিলেন জগাখিচুরি! সার্বিক পরিস্থিতি দেখিয়া শিক্ষাবিদরা বলিতে লাগিলেন ইহা জাতির জন্য সর্বনাশ! দৈত্যাকার বুদ্ধিজীবীরাও বলিলেন এটা শিশু নির্যাতন। তবু সকলেই যেন কিংকর্তব্যবিমূঢ়! প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত কেহ তাহার কর্তব্য নির্ধারণ করিতে পারলেন না!!!
সরকার বাহাদুর মহা বিপদে। একটা বিহিত করা দরকার। দৈত্যাকার বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে আবার বসিলেন। তাহারা মাথা চুলকাইতে থাকিলেন, মনে রাখিবেন স্কুল কলেজের বাচ্চাকাচ্চা যেন কোনভাবেই মাথা সোজা না করিতে পারে। কেননা তাহাদের হইতে হইবে বিশ্ব নাগরিক(?)
অতএব সৃজনশীল পদ্ধতি দিয়ে তাহাদেরকে ধরিতে হইবে। আসলেই তাহা হইলো,তাহারা ধরা পড়িল বটে। দোকানের ব্যবসা জমজমাট হইয়া উঠিল। প্রথমে সৃজনশীলতা প্রয়োগ করা হইল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের উপর। কয়েক বছর পরে এ পদ্ধতির সীমাবদ্ধতা দেখিয়া চমকে উঠিলেন এবং শহর নগরের অলিতে গলিতে সরব উঠিতে লাগিল । বুদ্ধিমান জীবীরা বলিলেন, সৃজনশীল পদ্ধতি মন্দ না, সমস্যা হইলো এজন্য উপযুক্ত শিক্ষকের অভাব। হ্যাঁ মানিলাম না হয়! যথাযথ শিক্ষকের অভাব হঠাৎই জানা গিয়াছিল এই দেশে ? পূর্বেকি সেসব আমরা জানিতে পারি নাই? প্লেন বানাইবার পরে মনে হইল পাইলট নাই! বাহ বেশ! একজন খ্যাতিমান বিজ্ঞান শিক্ষক বলিয়াই ফেলিলেন, বিজ্ঞানের পুস্তক এতটাই জটিল আমি নিজেই তাহ বুঝিতে পারি না, শিক্ষার্থীরা বুঝিবে কিভাবে?
আসলে কি জানেন, শিক্ষা গ্রহণটাই মূলকথা! কিন্তু বর্ণিত প্রচেষ্টা যে সহীহ নয় তাহা চারপাশে তাকাইলে সহজেই বুঝিতে পারি । জনতার পরামর্শ বিপজ্জনক হইলেও তার প্রতিক্রিয়া সঠিক। সঠিক জিনিস গ্রহণ করিতে আপত্তি কেন?
এইসব পরিবর্তনের ফলে দেশের উচ্চ শিক্ষার মান কতোটা বাড়িল? বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের কী চিত্র আমরা দেখি? শিক্ষক হিসাবে যারা বাহির হইয়া আসেন তাহারাকি আন্তর্জাতিক মানের? বিদেশি শিক্ষার্থীরাকি বাংলাদেশের শিক্ষায় আগ্রহী হইতেছে ? আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকাতে আমাদের অবস্থান কতো? কিন্তু শিক্ষা ব্যবস্থাকে গিনিপিগ করিয়া পরীক্ষা নিরিক্ষার বয়স ত্রিশ বছর পার হইয়াছে । কাজেই সংশয়হীনভাবে বলা যায়, সংখ্যা ব্যাতিত গুনগত মান বৃদ্ধি পায়নি।
আসল কথা বলিয়া শেষ করিব। সকল মানুষ সমান নহে, সকল শিক্ষক সমান নহে, সকল কৃষিবিদ সমান নহে,সকল বৈজ্ঞানিক সমান নহে। সকল শিক্ষার্থীও সমান নহে।কিন্তু আমাদের শিক্ষাবিদদের প্রচেষ্টা দেখিয়া মনে হইতেছে তাহারা সকলকে সমান করিয়া তুলিতে চান। ইহা ভাল প্রচেষ্টা কিন্তু অবাস্তব প্রচেষ্টা। অতএব, যোগ্যলোক বেশি তৈরি করা থেকে যোগ্য লোক খুঁজিয়া বাহির করা সহজ। ইহা করা সম্ভব হইলে যোগ্যতম লোক তৈরি করা সহজ হইবে । মহাকাশ গবেষণায় কৃষিবিদ বসিলে হইবে কেন ? কাজেই শিক্ষাব্যবস্থার উন্নতির জন্য যোগ্যতম শিক্ষকে উপরই দায়িত্ব ন্যাস্ত করিতে হইবে। কিন্তু সেইজন্য যোগ্য শিক্ষক খুজিয়া বাহির করিতে হইবে। বর্তমান সময়ের শিক্ষা কার্যক্রমে যে ব্যাপক পরিবর্তন হইতেছে তার সঙ্গে প্রজ্ঞাবান শিক্ষকের সংশ্লিষ্টতা নাই বলিয়া অনুমান । ইতোমধ্যে অনেকের সঙ্গে আলাপ করিয়া জানিয়াছি পরিবর্তিত জটিল শিক্ষা প্রবাহকে তাহারা যুক্তিযুক্ত মনে করেন না । শিক্ষা ক্ষেত্রে যাহারা আছেন তাহারা শিক্ষিত হইলেও মূলত শিক্ষক নহেন । সাধারণ মানুষের আলোচনা আমলে নিতে হইবে।শিক্ষকদের স্বাধীন মতামত প্রকাশ করিবার সুযোগ থাকিতে হইবে। কোন শিক্ষা ব্যবস্থার সবখানি ত্রুটিযুক্ত হইতে পারে না,কাজেই যতখানি সংশোধন প্রয়োজন ততখানি সংশোধন করিতে হইবে।
অন্যথা যতদিন চলমান পরিস্থিতি অব্যাহত থাকিবে ততদিন শিক্ষা ব্যবস্থার কাঙ্ক্ষিত উন্নতি সম্ভব নহে।
লেখক: নিজাম উদ্দিন, সহকারি শিক্ষক,সরকারি প্রা: বিদ্যালয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here