কলাপাড়ায় শিক্ষার মানোন্নয়নে মতবিনিময় ও সংবর্ধনা সভা

0
10
728×90 Banner

মো. ছগির হোসেন,কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: কলাপাড়ায় শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষে সরকারি মোজাহারউদ্দিন বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজে মতবিনিময় সভা ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় মত বিনিময় সভায় এমপি মহিব্বুর রহমানকে সবংর্ধণা দেয়া হয়।
সভায় ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শহীদুল আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন এমপি মহিব্বুর রহমান মহিব। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম রাকিবুল আহসান, ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল আলম, সীমা আক্তার, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুলতান মাহমুদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহŸায়ক ফাতেমা আক্তার রেখা, অধ্যক্ষ সৈয়দ নাসির উদ্দিন, আব্দুল মোতালেব তালুকদার, অধ্যাপক মঞ্জুরুল আলম, ড. শহীদুল ইসলাম বিশ^াস, এমপি পুত্র মোহাইমিনুর রহমান শোভন প্রমুখ। বক্তারা মোজাহারউদ্দিন বিশ^াস কলেজের শিক্ষার মান উন্নয়নে বিভিন্ন পরামর্শ দেন। কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্র/ছাত্রীদের হোস্টেল নির্মাণ। শ্রেণি কক্ষ সঙ্কট সমাধানের জন্য এমপি মহিব্বুর রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

জেলেরা পায়নি বিশেষ ভিজিএফএর চাল
মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞার নয় দিন পেরিয়ে গেলেও সরকার ঘোষিত খাদ্য সহায়তা মেলেনি জেলে পরিবারে। তাই তাঁদের পরিবারে বিরাজ করছে কষ্টকর পরিস্থিতি। দুরাবস্থায় পড়েছে কলাপাড়ার ৪০ টি জেলে গ্রামের দুই হাজার আট শ’ পরিবার। বেকার হয়ে পড়া এ জনগোষ্ঠী এখন বিপাকে পড়েছেন। ১২ ইউনিয়ন ও দুইটি পৌরসভার সর্বত্র বিরাজ করছে একই দশা।
সরেজমিনে জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার মৎস্য বন্দর আলীপুর, মহীপুর, লালুয়া, কুয়াকাটা, ধুলাসার, বাবলাতলার ঢোস, চাপলী, খাজুরা, ফাতরা, আন্দারমানিক ও রাবনাবাঁধ মোহনা, লালুয়া, গঙ্গামতি, ধানখালীতে জেলে পরিবারের বেশি বাস। গত বছর এ সময় তাদের জন্য সরকারি সহায়তার চাল জুটলে ও এ বছর এখ নপর্যন্ত জোটেনি।
ধুলাসার ইউনিয়নের গঙ্গামতি গ্রামের আলী হোসেন খাঁ জানান, নিষেধাজ্ঞা চলায় বাড়িতে জাল সেলাই করছেন। আর কোনো আয় রোজগারও নেই । টানা ২২ দিনের অবরোধে এখন ঘরে চাল নেই। ধার-দেনায় কাহিল হয়ে পড়েছেন। সরকারের বরাদ্দ থাকা চালের প্রয়োজন এ পরিবারে। পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে আছেন তাঁরা। একই দশায় অধিকাংশ জেলে পরিবারের।
উপজেলা মৎস্য অফিস সুত্রে জানা গেছে, এ বছর নিষেধাজ্ঞাকালীন উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও দুটি পৌরসভা ১৮ হাজার তিন শ’ পাঁচ জন নিবদ্ধিত জেলের মধ্যে ১১ হাজার ছয় শ’ ৩৫ জন জেলেকে বিশেষ ভিজিএফ কর্মসুচী আওতায় ২০ কেজি করে ২৩২ টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছ্।ে কিন্তু খাদ্য গুদামে চাল না আসার কারনে এখন পর্যন্ত চাল বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া জেলেদের দাবি যাদের নিবন্ধন রয়েছে তাঁদের সবাইকে চাল দেয়া হোক।
মৎস্য বন্দর আলীপুর মৎস্যজীবি সমিতির সভাপতি আনসার উদ্দিন মোল্লা জানান, নিষেধাজ্ঞা চলায় এখন হাজার হাজার জেলে বেকার। এ সময়ই সহায়তা দেয়া উচিত।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনোজ কুমার সাহা জানান, চাল না আসার কারনে জেলেদের বিশেষ ভিজিএফ কর্মসুচীর আওতায় ২০ কেজি করে চাল দেয়া সম্ভব হয়নি। কিছু দিনের মধ্যে চাল আসলেই জেলেদের সহায়তা করা হবে। খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা জানান, চাল সরবরাহকারী ঠিকাদারকে তাগিদ দেয়া হয়েছে।

বিদ্যুতের খুটি ববসানোর কথা বলে টাকা নেয়ায় দুইজনকে পাকড়াও
পল্লী বিদ্যুত লাইনের সাতটি খুটি বসানোর কথা বলে স্থানীয়দের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে খুটি না পোতায় গ্রামবাসী পাকড়াও করেছে ঠিকাদারের দুই কর্মচারী ফিরোজ ও পান্নাকে। বৃহস্পতিবার বিকেলে চাকামইয়া ইউনিয়নের চুঙ্গাপাশা গ্রামে প্রায় দুই শ’ গ্রামবাসী এ দু’জনকে পাকড়াও করেন। ওই এলাকার বাসীন্দা আজিজুল হক জানান, এরা কারেন্ট লাইনের সাতটি পোল বসানোর কথা বলে গ্রাম থেকে ৩০ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু পোল বসায়নি। আজ কাজ করতে অন্যত্র যাচ্ছিল। স্থানীয়দের এন্তার অভিযোগ, যে টাকা দেয় তাকেই লাইন দেয়ার কথা বলে। বিনা টাকায় কোন কাজ হয় না। গ্রামটির সাধারণ মানুষের অভিযোগ ঠিকাদারের এসকল লোকজনের কারনে গ্রামে বিদ্যুত লাইন টানার আগে এক শ্রেণির দালাল ফিট করা থাকে। এদের কারণে এখন বিদ্যুত দেয়ার সুনামের বদলে সরকারের বদনাম হচ্ছে বেশি। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটক দুইজনকে ছাড়িয়ে নেয়ার জন্য জোর লবিং চলছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here