গাজীপুরে গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ শিল্প অঞ্চল কমিটির উদ্যেগে শ্রমিক সমাবেশ

0
58
728×90 Banner

মো:শাহজালাল দেওয়ান: গাজীপুর শিল্প অঞ্চল কমিটির উদ্যেগে জাতীয় শোক দিবস পালন এবং শ্যামলী গার্মেন্টস ও প্যানউইন ডিজাইন লিমিটেডের শ্রমিকদের পাওনা আদায় এর দাবিতে এক বিশাল শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় হয়েছে। ৫ আগস্ট শুক্রবার বিকালে গাজীপুর মহানগর ১৮ নং ওয়ার্ডের সাগর সৈকত কনভেনশন হলে গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ গাজীপুর শিল্পাঞ্চল কমিটির আহ্বায়ক, শ্রমিক নেত্রী লাভলী ইয়াসমিন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শামসুন্নাহার ভূঁইয়া এমপি সদস্য, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রমিক নেতা আবুল হুসাইন, সদস্য সচিব কেন্দ্রীয় কমিটি গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ, আরো উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক নেতা রফিকুল ইসলাম সুজন সভাপতি কেন্দ্রীয় কমিটি বাংলাদেশ গার্মেন্টস এন্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশন, মাহতাব উদ্দিন শহীদ, সভাপতি কেন্দ্রীয় কমিটি জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক জোট-বাংলাদেশ, কবির আহমেদ মন্ডল, যুগ্ন আহবায়ক, গাজীপুর মহানগর জাতীয় শ্রমিক লীগ,ন্যাশনাল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মরিয়ম আক্তার, শফিউল আলম, সভাপতি, গাজীপুর মহানগর বাংলাদেশ গার্মেন্টস এন্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের এবং যুগ্ম সদস্য সচিব, গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ গাজীপুর শিল্প অঞ্চল কমিটি, ফিরোজ আহমেদ সাধারণ সম্পাদক গাজীপুর, জেলা জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, মোস্তফা কামাল সাধারণ সম্পাদক গাজীপুর জেলা প্রগতিশীল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, হাসান রহমান মামুন, সভাপতি গাজীপুর জেলা বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন, মোঃ খোকন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক গাজীপুর জেলা, বাংলাদেশ টেক্সটাইল ওয়ার্কার্স ফেডারেশন এছাড়াও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান পরিচালনায়ঃ শামসুল হক সদস্য সচিব গার্মেন্টস শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ গাজীপুর শিল্পাঞ্চল কমিটি। এ সময় বক্তারা বলেন গাজীপুর বিদেশ পালাতক গার্মেন্টস মালিককে ফিরিয়ে এনে শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেওয়ার দাবি জানায় শ্যামলী গার্মেন্টস এবং প্যানউইন ডিজাইন লিমিটারের শ্রমিকদের ৪০ কোটি টাকা আদায়ের উপরে জোর দাবি জানায় , দাবি আদায় না হলে শোকের মাস শেষ হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন নেতৃবৃন্দ,প্রয়োজন হলে শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও করার মতো কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবেন বলে জানিয়েছেন শ্যামলী গার্মেন্টসের শ্রমিক এবং নেতৃবৃন্দ।
কারখানা দুইটি একই মালিকানাধীন বর্তমানে মালিক কানাডায় অবস্থান করছেন,শ্রমিকরা বলেন ২০ বছর যাবৎ মালিক কারখানা চালিয়েছে আমাদেরকে দিয়ে আখের গুটিয়ে মালিক কানাডায় বসে আছেন আমাদের রাস্তায় ফেলে রেখেছেন। শ্রম আইনে স্পষ্ট বলা আছে কারখানা যেদিন থেকে বন্ধ হবে তার ৩০ কর্মদিবসের মধ্যে সমস্ত পাওনা বিল পরিশোধ করিতে হইবে কিন্তু কারখানা বন্ধের প্রায় ১০ মাস হয়ে গেল পাওনা পরিশোধের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি মালিক এবং সরকার। ১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে প্রথমে কোরআন তেলাওয়াত পরে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। যারা নির্মমভাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ স্বপরিবারকে নির্মম ভাবে হত্যা করেছে তাদের বিচার দাবি করেন নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোররাতে সেনাবাহিনীর কয়েকজন বিপথগামী সদস্য ধানমন্ডির বাসভবনে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল।
পৃথিবীর এই জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ নাসের, ভগ্নীপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও সুকান্তবাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন।
সেসময় বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় প্রাণে রক্ষা পান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here