গাজীপুরে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

0
28
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে দগ্ধ কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনির শ্বাসনালী ও এক কান পুড়ে গেছে তিনি শঙ্কামুক্ত নন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।
শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস.এম আইউব হোসেন শনিবার সকালে সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আবু হেনা রনিকে আইসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। এখনই কিছু বলা সম্ভব নয়। সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো হচ্ছে। রনির শরীরের ২৫ শতাংশ পুড়ে গেছে।
এছাড়া গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদস্য (কনস্টেবল) জিল্লুর রহমান (৩২) কেও আইসিইউতে রাখা হয়েছে। তার শরীরের ১৯ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তারও শ্বাসনালী পুড়ে গেছে বলে জানান ওই চিকিৎসক।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুকঘটনাস্থলে থাকা এক ব্যাক্তি জানান, মঞ্চে যখন বেলুন গুলো উড়েনি তখন কয়েকজন পুলিশ সদস্য বেলুনগুলো নিয়ে মঞ্চের পূর্ব পাশে চলে যান এবং বেলুন বিক্রেতাকে ডেকে এনে বলেন, বেলুন উড়েনি তোকে টাকা দেওয়া হবে না। তখন বেলুন বিক্রেতা সবাইকে দেখানোর জন্য বেলুন গুলো উচিয়ে বেলুনের নিচে ঝুলতে থাকা একটি সূতোর মধ্যে হঠাৎ গ্যাস লাইটার দিয়ে আগুন ধরিয়ে ছেড়ে দেয়। এসময় বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পাশে অবস্থান করাদের মধ্যে ৫ জন দগ্ধ হয়। পরে তাদের মধ্যে তিনজনকে দ্রুত শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে প্রেরণ করা হয়।
এদিকে দ্বগ্ধের ঘটনায় গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করে সমবেদনা জ্ঞাপন ও চিকিৎসাসহ সার্বিক সহযোগিতার আশ্বস দেয়া হয় এবংপুলিশের পক্ষ থেকে ঘটনা তদন্তে ৪ সদস্যে কমিটি ঘঠন করা হয়।
তদন্ত কমিটি গঠন: বেলুন বিস্ফোরণে আহত হওয়ার ঘটনা তদন্তে শুক্রবার রাতেই গাজীপুর মহানগর পুলিশের ডিসি (উপ-কমিশনার, উত্তর) আবু তোরাব মো. শামসুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠণ করেছেন গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার। অন্য সদস্যরা হলেন এডিসি (উত্তর) রেদোয়ান আহমেদ, এসি প্রসিকিউশন মো. ফাহিম আশজাদ ও গাজীপুর সদর থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম। তিন কার্য দিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
এছাড়াও শনিবার সকালে গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে গিয়ে বেলুন বিষ্ফোরণে দ্বগ্ধদের খোঁজ নেন।
এসময় ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেনসহ অন্যান্য চিকিৎসকবৃন্দের সাথে নিয়ে পুলিশ কমিশনার আহতদের চিকিৎসা বিষয়ে খোঁজখবর নেন এবং সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সাথে চিকিৎসা প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার (ডিবি-মিডিয়া) আবু সায়েম নয়ন জানান, পুলিশ কমিশনার এসময় উপস্থিত কমেডিয়ান আবু হেনা রনি, পুলিশ সদস্য জিল্লুর রহমানের স্বজনদের কাছে অনাকাঙ্খিত এ দুর্ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সমবেদনা জ্ঞাপন করেন এবং চিকিৎসাসহ সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন এবং সুস্থতার জন্য যা যা করণীয় সবকিছুই করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. সামন্ত লাল সেন আহতদের চিকিৎসায় ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনায় গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশ গভীর মর্মাহত এবং আহতদের দ্রæত আরোগ্য কামনা করছে।
উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় জিএমপি’র ৪র্থ বর্ষপূর্তীর অনুষ্ঠানের মঞ্চের পূর্ব পাশে ছোট উদ্বোধন মঞ্চে ওড়ানোর জন্য কিছু গ্যাস বেলুন নেয়া হয়। কিন্তু বার বার চেষ্টা করলেও বেলুনগুলো উড়ছিলনা। পরে কয়েকজন পুলিশ সদস্য এতে সেই বেলুনগুলি মঞ্চের পিছনে নিয়ে যায় পরে পায়রা উড়িয়ে স্বরাষ্ট্রামন্ত্রীসহ অন্য অতিথিবৃন্দ অনুষ্ঠানের মুল মঞ্চে চলে যান। তারা মূল মঞ্চে চলে যাওয়ার কিছু সময় পর কয়েকজন পুলিশ সদস্য বেলুন বিক্রেতাকে বকাঝকা করলে বেলুন বিক্রেতা নিজেই বেলুন গুলো উড়ানোর চেষ্টা করার সময় বিস্ফোরণ ঘটে।
বিস্ফোরণে কমেডিয়ান আবু হেনা রনি, গাজীপুর জেলা পুলিশের কন্সটেবল মোশারফ হোসেন, গাছা থানার কনস্টেবল রুবেল মিয়া ও ইমরান হোসেন, টঙ্গী পূর্ব থানার কনস্টেবল জিলুর রহমান আহত হয়ে নিচে লুটিয়ে পড়েন। পরে আশপাশের পুলিশ সদস্যরা তার গায়ে পানি ঢেলে আগুন নেভায় এবং গাড়িতে করে দ্রুত গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আবু হেনা রনি ও কনস্টেবল জিল্লুর রহমানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে পাঠান।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here