গাজীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে স্বামীকে খুন করে

0
66
728×90 Banner

মোঃ বায়েজীদ হোসেন: গাজীপুর মহানগরীর কাশিমপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় দুধের সাথে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে প্রেমিককে সাথে নিয়ে স্ত্রী বালিশ চাপা দিয়ে খুন করে স্বামী সুমনকে। দু’দিন পর দোকান থেকে নতুন করাত কিনে হাত,পা, মাথা আলাদা করে বস্তায় ভরে সেফটিক ট্যাংকিতে ফেলে দেয়। ভিকটিম নিহত সুমন মোল্লা (২৮) কাশিমপুর সারদাগঞ্জের হাজী মার্কেট এলাকার মাওলানা শফিউল্লাহর বাড়ীর ভাড়াটিয়া এবং বাগেরহাট জেলার চিতলমারী থানার গোলা বরননী বাজার এলাকার জাফর মোল্লার ছেলে। এঘটনায় গত শনিবার ভোরে কাশিমপুর এলাকার সারদাগঞ্জের হাজী মার্কেট হাজী মতিউর রহমানের বাড়ীর ভাড়াটিয়া ও ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানার নরকোনা এলাকার আদিত্য সরকারের ছেলে তনয় সরকার (৩১) এবং একই এলাকার মাওলানা শফিউল্লাহর বাড়ীর ভাড়াটিয়া ও দিনাজপুর জেলার চিবিরবন্দর থানার নারায়নপুর এলাকার মৃত আশরাফ আলী মেয়ে এবং নিহতের স্ত্রী আরিফা বেগম (২৪)কে গ্রেপ্তার করা হয়। দু’জনকেই তাদের ভাড়াবাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার মো: জাকির হাসান জানান, গাজীপুর মহানগরীর কাশিমপুর সারদাগঞ্জের হাজী মার্কেট পুকুরপাড় এলাকার জনৈক জামাল উদ্দিনে বাড়ির সেফটিক ট্যাংকি থেকে গত ২১ এপ্রিল (বুধবার) অজ্ঞাত যুবকের অর্ধগলিত হাত,পা ও মাথাবিহীন মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতদেহের ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করে ক্লু’লেস হত্যার রহস্য খুঁজতে থাকে। বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয় দু’জনকে। এর পরেই পরিচয় পাওয়া যায় মৃতদেহের।গ্রেপ্তারকৃতদের স্বীকারোক্তি মতে ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে তিনি আরো বলেন, নিহত সুমন মোল্লা আরিফার সাথে প্রেমের সম্পর্কে দ্বিতীয় বিয়ে করে। একই গার্মেন্টসে চাকুরীর সুবাদে আরিফার সাথে সুমনের বিয়ের আগেই গোপন প্রেমের সর্ম্পক ছিলো সনাতন ধর্মাবলম্বী তনয় সরকারের। বিয়ে পর বিষয়টি আরিফার স্বামী সুমন মোল্লা জেনে গেলে স্ত্রীকে মারধোর করে এবং তনয়কেও শাসায়। বিষয়টি নিয়ে মাঝে মধ্যেই স্ত্রী আরিফার সাথে সুমনের ঝগড়া-বিবাদ হত। একপর্যায়ে স্ত্রী আরিফা তার প্রেমিক তনয়কে নিয়ে সুমনকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরে গত ১৯ এপ্রিল রাতে সুমনকে স্ত্রী আরিফা দুধের সাথে ১০টি ঘুমের টেবলেট খাইয়ে অচেতন করে তার প্রেমিক তনয়কে ডেকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে। শেষে ঘরের দরজা বন্ধ করে তারা বের হয়ে যায়। দুই দিন পর মৃতদেহ গুম করার জন্য দোকান থেকে নতুন করাত কিনে ফের দুজনের মিলে নিহত সুমনে হাত,পা, মাথা এবং চাপাতি দিয়ে পেট কেটে ফেলে। ওই রাতেই শুধু দেহটি পাশর্^বর্তী বাড়ির সেফটিক ট্যাংকির ভেতরে এবং দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন পাঁচটি অংশ পলিথিনে মুড়িয়ে চক্রবর্তী তেঁতুইবাড়ী মোজার মিল সংলগ্ন ময়লার ভাগাড়ে ফেলে দেয়। গ্রেপ্তারকৃতদের দেয়া তথ্য মতে ওই ময়লার ভাগাড় থেকে বিচ্ছিন্ন পাঁচটি অংশ উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 − 4 =