গোটা বিশ্বে বাংলাদেশের পারিবারিক ব্যবসায়ের প্রবৃদ্ধি উন্নত অবস্থা

0
216
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: বহুকাল ধরে চলে আসা পারিবারিক ব্যবসার সফল প্রসারের ধারাবাহিকতা এখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও হচ্ছে। তালিকায়নতুন করে যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ। গত বছর প্রবৃদ্ধির বৈশ্বিক গড় ছিল ৩৪ শতাংশ, যেখানে বাংলাদেশের ছিল ৫৩শতাংশ। তবে, এবার বাংলাদেশের পারিবারিক ব্যবসায়ের প্রবৃদ্ধি বৈশ্বিক গড়ের চেয়েও ভালো অবস্থানে রয়েছে।
বিশ্বজুড়েই পারিবারিক ব্যবসায়ের চ্যালেঞ্জ বেশি। বাংলাদেশে এই চ্যালেঞ্জের পরিমাণ আরও বেশি। দেশের পারিবারিকব্যবসায় পাঁচটি বড় চ্যালেঞ্জের মধ্যে রয়েছে, এগুলো হচ্ছে – দক্ষতার প্রশ্ন, উদ্ভাবন সক্ষমতা, অভ্যন্তরীণ প্রতিযোগিতা,জ্বালানি ও কাঁচামালের দাম এবং তথ্য ব্যবস্থাপনা। বিশ্বখ্যাত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান প্রাইস ওয়াটার হাউস কুপার্স(পিডব্লিউসি)-এর ‘বৈশ্বিক পারিবারিক ব্যবসায় জরিপ ২০১৮’ প্রতিবেদনে এসব কথা উঠে এসেছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের পারিবারিক ব্যবসায়ের চ্যালেঞ্জগুলো বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জের চেয়েও বেশি। দক্ষতারপ্রশ্নে বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ যেখানে ৬০ শতাংশ, বাংলাদেশে তা ৬৬ শতাংশ। তবে উদ্ভাবনী সক্ষমতায় বৈশ্বিকের ৬৬শতাংশের চেয়ে বাংলাদেশে চ্যালেঞ্জ একটু কম (৬৩ শতাংশ)। এছাড়া অভ্যন্তরীণ প্রতিযোগিতায় বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ ৪৯শতাংশের চেয়ে বাংলাদেশে ১৪ শতাংশ বেশি। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা জ্বালানি ও কাঁচামালের দামে। আবার, তথ্যব্যবস্থাপনায় বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ যেখানে ৩৯ শতাংশ, বাংলাদেশে তা ৫৩ শতাংশ।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে পারিবারিক ব্যবসায়ের পুঁজির উৎস বহুমাত্রিক হলেও ব্যাংক ঋণই হচ্ছে প্রধান উৎস।শেয়ারবাজার এবং ভেনচার ক্যাপিটাল-ও পুঁজির উৎস হিসেবে রয়েছে, তবে সেগুলো ব্যাংকের চেয়ে অনেক কম। দেশেরপারিবারিক ব্যবসায়ে ব্যাংক ঋণ ৯৪ শতাংশ, এ ব্যাপারে বৈশ্বিক হার ৮১ শতাংশ। আবার অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে পুঁজিনিয়ে বাংলাদেশে ব্যবসা করে ৬৩ শতাংশ, বৈশ্বিক গড় যেখানে ৭১ শতাংশ। আর বাংলাদেশে ৭৫ শতাংশ পারিবারিকব্যবসায়ে পরিবারের বাইরের দক্ষ লোকদের নিয়োগ দেয়া হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের পারিবারিক ব্যবসায়ীদের দীর্ঘ ও মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনা কম। বৈশ্বিক হার ৪৯শতাংশের পরিপ্রেক্ষিতে মাত্র ৩৪ শতাংশ পারিবারিক ব্যবসায়ীর দীর্ঘ ও মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনা রয়েছে। বিভিন্ন কারণেব্যবসায় তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতাকারীর দরকার পড়ে। এদিক থেকে বাংলাদেশের হার ৯ শতাংশ, যেখানে বৈশ্বিক হার ২৪শতাংশ। ৬৩ শতাংশ ব্যবসায়ীর দাবি পারিবারিক ব্যবসায়ের বিরোধ নিষ্পত্তি করে তারা নিজেরাই মিটিয়ে ফেলেন। আর৬ শতাংশ দাবি হচ্ছে, বিরোধ নিষ্পত্তিতে তাঁরা অন্যদের হস্তক্ষেপ নেন।
বিশ্বজুড়েই উত্তরাধিকার-এর বিষয়টি একটি বড় চ্যালেঞ্জ, যা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বেশ ভালোভাবেই প্রযোজ্য। পরবর্তীপ্রজন্মই ব্যবসায়ের উত্তরাধিকার হবে, বৈশ্বিক হার এ ব্যাপারে ৩৭ শতাংশ এবং বাংলাদেশে এ হার ৯১ শতাংশ।প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের পারিবারিক ব্যবসায়ের পর্ষদের ২৫ শতাংশ নারী রয়েছেন। অথচ, বিশ্বে এর হারআরও কম, (২১ শতাংশ)। দেশে মাত্র ১৪ শতাংশ নারী রয়েছেন পারিবারিক ব্যবসায়ের ব্যবস্থাপনায়, যার হার বিশ্বে ২৪শতাংশ। তবে ব্যবসার উন্নয়নের জন্য ব্যক্তি নির্ভরশীলতা কমিয়ে এদেশের পারিবারিক ব্যবসা পদ্ধতি আরও দৃঢ় ওশক্তিশালী হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন পারিবারিক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here