চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কারণে সব থেকে বেশি দূষণের শিকার জনগণ: সবুজ আন্দোলন

0
31
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি): পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ আন্দোলন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের উদ্যোগে আজ ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে মালিবাগে ঢাকা অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সংগঠনের পরিচালক অভিনেতা উদয় খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সবুজ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান বাপ্পি সরদার। উদ্বোধক ছিলেন সবুজ আন্দোলন পরিচালনা পরিষদের মহাসচিব মহসিন সিকদার পাভেল।
প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, আজকে বিশ্ব পরিবেশ দিবস হলেও সবুজ আন্দোলনের নেতা কর্মীদের কাছে প্রত্যেকদিনই পরিবেশ দিবস। কারণ সবুজ আন্দোলন প্রতিদিন পরিবেশ বিপর্যয় রোধে জনসচেতনতা কাজ করে। বর্তমান সময়ে চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কারণে সব থেকে বেশি দূষণের শিকার সাধারণ জনগণ। প্রকল্প গ্রহণ ও ব্যয় নির্ধারণ করে পরিবেশ সমুন্নত রেখে উন্নয়ন করার বিষয়টি একনেকে পাস করা হয়। কিন্তু কোন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পরিবেশের বিষয়টি বিবেচনায় না নিয়ে উন্নয়ন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। যার ফলে মানুষের মৌলিক অধিকারকে ব্যাহত করে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ফেলছে এ সকল প্রকল্প গুলো। এক্ষেত্রে দায়মুক্তির জন্য হলেও সরকার ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের তদারকি করার কথা থাকলেও অবিবেচকের মতো তারা তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সাধারণ জনগণের জীবন যেন এখন তামাশার পাত্রে পরিণত হয়েছে।
উদ্বোধক তাঁর বক্তব্যে বলেন, সভ্যতার উৎকর্ষ সাধন ও মানুষের জীবনমান উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন অবশ্যই জরুরি। তবে পরিবেশ বিপর্যয় করে কোন উন্নয়ন টেকসই হতে পারে না। ঢাকা শহরের জনগণ প্রতিনিয়ত বায়ু দূষণ, শব্দ দূষণ, বর্জ্য দূষণ ও অনিরাপদ পানি পান করার ফলে চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে। এক্ষেত্রে সিটি করপোরেশন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের উদাসীনতা এবং অদক্ষতা অন্যতম কারণ। আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবসে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের সকলের দাবি ঢাকা শহর সহ সকল জেলা শহরে পরিবেশ বিপর্যয় রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।
পরিবেশ বিপর্যয় রোধে সবুজ আন্দোলনের পক্ষ থেকে বেশ কিছু প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়:
১) পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে “স্বতন্ত্র পরিবেশ কমিশন” প্রতিষ্ঠা করা।
২) চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজে পরিবেশ বিপর্যয় রোধ করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে প্রয়োজনে জরিমানা করতে হবে।
৩) দিনে দুইবার ঝাড়ু ও সপ্তাহে একদিন রাস্তা পানি দিয়ে ধোঁয়ার ব্যবস্থা করা এবং জোড়—বিজোড় নিয়মে একদিন পর একদিন গাড়ি চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে।
৪) ঢাকা শহরের চারপাশে নদী বন্দর ব্যবহারের উপযোগী করতে নদীর গভীরতা বাড়ানো এবং নদীর চারপাশ দিয়ে সবুজ বেষ্টনী গড়ে তুলতে হবে।
৫) জলবায়ু তহবিল আদায় করতে দেশের বাইরে অবস্থিত সকল প্রবাসীদেরকে সচেতন করতে রাষ্ট্রীয়ভাবে কর্মসূচি গ্রহণ করা এবং উন্নত রাষ্ট্রকে চাপ প্রয়োগ করতে হবে।
৬) চলতি বাজেটে পরিবেশ উন্নয়ন ও বিপর্যয় থেকে রোধ করতে ২০ হাজার কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।
৭) সবুজায়ন বৃদ্ধির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নতুন ১০ কোটি গাছের চারা রোপণের উদ্যোগ গ্রহণ করা এবং উপকূলীয় অঞ্চলের জনগণের জন্য নিরাপদ পানির ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আলাদা প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে।
৮) পরিবেশ খাতের সকল প্রকার দুর্নীতি বন্ধে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের তালিকা প্রণয়ন ও তাদের অবৈধ সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা।
৯) নদীর ভাঙ্গন রোধে টেকসই বেড়িবাঁধের ব্যবস্থা করা এবং নদীর দখল ও দূষণ রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালক আবু হানিফ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সহ—দপ্তর সম্পাদক আব্দুল আজিজ, কেন্দ্রীয় সদস্য খালিদ সাইফুল্লাহ। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সবুজ আন্দোলন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ—সভাপতি জোৎস্না আক্তার মুন্নি, সেলিনা চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন পলাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান, আবাদ হোসেন রতন, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহবায়ক এম এ মামুন, ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য শফিকুল ইসলাম প্রমুখ। আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে সবুজ আন্দোলনের পক্ষ থেকে ৪০টি জেলায় একযোগে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here