জনগণের রায়ে ভারতীয় গণতন্ত্র ও সরকারের বিজয়

0
38
728×90 Banner

মোহাম্মদ আলম : ভারতের পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসকে দুই তৃতীয়াংশ আসন ২১৩টিতে বিজয়ী করেছে বাংলার জনতা। দলটির নেতা জনতার ‘দিদি’ মমতা ব্যানার্জি তার প্রথম বিজয়ী ভাষণে যথার্থই বলেছেন ‘এই জয় বাংলার জয়’। পরাজিত ক্ষমতাসীন বিজেপি। তৃণমূল ঝরে কংগ্রেস-বাম-আইএসএফ সংযুক্ত মোর্চা নিশ্চিহ্ন। সাম্প্রদায়িক শক্তি বিজেপি বেশ আত্মবিশ^াসী ছিলো পশ্চিমবঙ্গে সরকার গঠনের ব্যপারে। কিন্তু বাংলার মানুষ তাদের সাম্প্রদায়িক মনোভাব যে ভালভাবে গ্রহন করেনি ভোটের ফলাফলেই তা স্পষ্ট। পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফলাফল বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ্রের কপালে রেখাপাত করলেও তারা কিন্তু দিদি মমতাকে অভিনন্দন জানাতে কোন কার্পণ্য করেনি। বিজেপির অবিসংবাদিত নেতা নরেন্দ্র মোদি, সভাপতি অমিত শাহ, বর্ষিয়ান রাজনাথ সিং এরা সবাই আলাদা আলাদা ভাবে দিদিকে অভিনন্দিত করেছে।
এটাই ভারতীয় গণতন্ত্র। ভোট নিয়ে পরাজিত পক্ষের কোন অভিযোগ নেই। আবার পরাজিত প্রতিদ্বন্দীকে প্রতিহিংসার বাণিতে জর্জরিত করছে না বিজয়ী গোষ্ঠি। বর্তমান ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং বিজেপির প্রধান ট্রাম্পকার্ড নরেন্দ্র মোদি এক টুইটে মমতা দিদিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্য সরকারকে সব রকম সহযোগিতা করবে।’ শুধু তাই নয় দলীয়ভাবে ভারতীয় জনতা পার্টির পক্ষ থেকে বিবৃতি দিয়ে বিজয়ী তৃণমূল কংগ্রেসকে অভিনন্দন বার্তা দেয়া হয়েছে। সেখানে তারা করোনাকালে সহযোগীতার আশ^াস দিয়ে জানিয়েছে, মানুষের রায়কে মাথা পেতে নেয়া হয়েছে। তাদের উপলব্ধি মানুষের কাছে হয়ত সঠিক বার্তা দিতে পারেনি। আত্মসমিক্ষা ও ভুল সংশোধন করবে তাদের দল। আবার বিজয়ী তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান মমতা দিদি তার প্রথম বিজয়ী ভাষনে ঘোষণা দিলেন, সবার আগে করোনা মোকাবেলা। এখন কোন বিজয় মিছিল হবে না।
ভারতের এই গণতান্ত্রিক রাজনীতি আমাদের জন্য শিক্ষনীয় নয় কি! আমাদের বৃহত প্রতিবেশী ভারতের অনেক কিছুই অনুসরণ করি। রাজনীতির এই শিষ্টাচারও খুব সহজেই আমরা গ্রহন করতে পারি।
বিশে^র বৃহত্তম গণতান্তিক দেশের একটি সাম্প্রদায়িক সরকার ‘ভারতীয় জনতা পার্টি’র নেতৃত্বে অত্যন্ত সফলভাবে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করার নজির আমরা প্রত্যক্ষ করলাম। যার ফল¯্রুতিতে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল, কেরালায় বাম, তামিলনাড়–তে ডিএমকে রাজ্য সরকারের নির্বাচনে বিপুল ভোটে সরকার গঠন করছে। আরও একটি বিষয় লক্ষ্য করা যায়। দল হিসাবে বিজেপি এবং বিজেপি সরকার সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রতিষ্ঠান। ভারতের গণতন্ত্রের শিকড় তার ঐতিহ্যের অনেক গভিরে প্রথিত। যা একটি কট্টর সাম্পদায়িক বিজেপিও ভাঙতে পারেনি। যে কারনে ক্ষমতাসীন হয়েও খেয়াল খুশিমত নিজেদের মতামত জনসাধারণের উপর চাপিয়ে দিতে অক্ষম। নির্বাচনের ময়দানে বিজেপির হেভিওয়েট নেতৃবৃন্দ নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহ চরম সাম্প্রদায়িক কথা বলেন। সংখ্যালঘুদের দেশ থেকে বিতারিত করার কথা বলতেও ছাড়েন না। তাই বলে নির্বাচনের দিন সেই সংখ্যালঘু গোষ্ঠির ভোট প্রয়োগে কোন বাধার সৃষ্টি করেছেন বলে আমাদের জানা নেই। রাজনৈতিক মঞ্চে দাড়িয়ে দলকে বিজয়ী করার কৌশল বাতলে দেয়া হয় মাত্র। তাই বলে রাতের অন্ধকারে ভোটবাক্স ভরে জনসাধারণের উপর রাজনৈতিক মতামত চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে না। ভারতের ক্ষমতাসীন সরকার বিজেপি’র এখানে রাজনৈতিক বিজয়। সর্বোপরি এটা ভারত সরকারের বিজয়। আর সরকার ও বিরোধীরা যে কথা বলছে, ‘জনগণের রায়’। সত্যিকারের গণতান্ত্রিক বিজয়।
বাংলাদেশের জাতীয় বা স্থানীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসিন সরকার কখনোই এই ধরনের গণতান্ত্রিক চর্চা করেনি। আবার বিরোধী রাজনীতিকগণ নির্বাচনের সাথে সাথে জনসাধারণের রায়কে প্রত্যাখান করেন। অভিনন্দন জানানোতো দূরের কথা। স্বাধীনতার পর থেকে প্রতিটি নির্বাচনে পেশী শক্তির আস্ফালন দেখা গেছে। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতিয় পার্টি পত্যেক দলই এই পথে হেটেছে এবং হাটছে। ক্ষমতাসীনরাই সব, এই মনোভাব প্রয়োগ এবং ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়ার ধারা অব্যাহতভাবে জনসাধারণের উপর চাপিয়ে দেয়া হয়। করোনা মহামারিতে কি বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দের মনে ক্ষণিকের জন্য হলেও মৃত্যু ভয় তাড়া করে না। জাতির সাথে এ ধরনের তামাশার জন্য নিশ্চয়ই উপরওয়ালার কাছে জবাবদিহীতা করতে হবে।
মানব জাতির ইতিহাসই হচ্ছে পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাওয়া। এই করোনা হয়ত মানব জাতিকে নতুন কোন পথের দিশা দেখাবে। মানুষ স্বজন হাড়াচ্ছে। ধন-দৌলত, বিষয় সম্পত্তি কোন কিছুতেই রক্ষা হচ্ছে না। রাজনীতিতো ¯্রফে মানব সমাজের একটি বিধান মাত্র। বিপ্লবের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ নামে এই ভুখন্ডে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবেই হবে। জাতির পিতাই বলেছেন, ‘আমি মানুষের অধিকার চাই’।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

eleven + fifteen =