জলদস্যুদের নিয়ে থ্রিলার‘অপারেশন সুন্দরবন’

0
21
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ): ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে খ্যাত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল সুন্দরবন বাংলাদেশের অহংকার। এক সময় সুন্দরবন উপকূলের বনজীবি ও মৎসজীবিরা জিম্মি হয়ে পড়ে-ছিল জলদস্যু ও বনদস্যুদের তান্ডবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শিতায় এই অরাজক পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণ ঘটেছে।
২০১২ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে র‌্যাব মহাপরিচালক’কে প্রধান সমন্বয়কারী করে সুন্দরবনে জলদস্যু দমনে টাস্ক-ফোর্স গঠনের মাধ্যমে গোড়াপত্তন ঘটে জলদস্যু মুক্তকরণ প্রক্রিয়ার। লিড এ্যজেন্সি হিসেবে র‌্যাব ২০১২ সাল হতে সুন্দরবনে জোড়ালো অভিযান পরিচালনা করে আসছে। উক্ত অভিযানে গ্রেফতার হয় ২৬২ জন জলদস্যু ও উদ্ধার হয় বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ। একের পর এক অভিযানে ফেরারী জীবনের অবসান ঘটিয়ে আত্মসমর্পণের পথ বেছে নেয় জলদস্যুরা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ তত্ত¡াবধানে ও র‌্যাবের কর্মতৎপরতায় ২০১৬ সালের ৩১ মে হতে ১লা নভেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত সুন্দরবনের ৩২টি দস্যু বাহিনীর ৩২৮ জন সদস্য ৪৬২ টি অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদসহ আত্মসমর্পণ করেছে।


আত্মসমর্পণ পরবর্তী পুনর্বাসনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যুদের প্রত্যেককে নগদ এক লক্ষ টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান, সরকার কর্তৃক আইনি সহায়তা এবং র‌্যাবের পক্ষ হতে আর্থিক সহায়তাসহ সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের ফলে সুন্দরবনের জলদস্যুরা আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবন যাপন করছে। সুন্দরবন আজ জলদস্যু মুক্ত। নতুন করে সুন্দরবনাঞ্চলে কোন জলদস্যুর প্রাদুর্ভাব আর লক্ষ্য করা যায়নি।
র‌্যাব কর্তৃক সুন্দরবন জলদস্যুমুক্ত হওয়ার প্রেক্ষিতে গত ০১ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুন্দরবনকে জলদস্যু মুক্ত ঘোষণা করেন। এখন শান্তির সু-বাতাস বইছে সুন্দরবনে। অপহরণ-হত্যা এখন তিরোহিত। জেলেদের কষ্টার্জিত উর্পাজনের ভাগও কাউকে দিতে হচ্ছে না। মাওয়ালী, বাওয়ালী, বনজীবী, বন্যপ্রাণী এখন সবাই নিরাপদ। নির্ভয়ে নির্বিঘেœ আসছে দর্শনার্থী-পর্যবেক্ষক, জাহাজ বণিকেরা। এভাবেই সরকারের দূরদর্শিতায় সুন্দরবন কেন্দ্রিক অর্থনৈতিক গতিশীলতার ব্যাপক সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে।
সুন্দরবনে র‌্যাবের এই সাফল্য গাঁথার রোমাঞ্চকর উপাখ্যান জনসাধারণের সামনে তুলে ধরার জন্য ‘‘র‌্যাব ওয়েলফেয়ার কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড’’ এর প্রযোজনায় ‘অপারেশন সুন্দরবন’ নামে একটি পূর্ণ দৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রয়াস নেয়া হয়েছে। গত ০১ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক জলদস্যুমুক্ত সুন্দরবন ঘোষণার বর্ষপূর্তী উপলক্ষ্যে বাগেরহাটে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উক্ত পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘‘অপারেশন সুন্দরবন’’ এর লোগো পোষ্টার উন্মোচন করেন।
মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনুপ্রেরণায় ও তৎকালীন র‌্যাব মহাপরিচালক বর্তমান আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার) এর মূল ভাবনায় বর্তমান র‌্যাব মহাপরিচালক অতিঃ আইজিপি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল-মামুন, বিপিএম, পিপিএম এর উৎসাহ ও অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপস্) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার, বিপিএম, পিএসসি এর সার্বিক দিকনির্দেশনায় চলচ্চিত্রের কার্যক্রম আরো বেগমান হয়েছে। লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া উইং এর সার্বিক তত্ত¡াবধানে চলচ্চিত্রের নির্মাণ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। নির্মাণ কার্যক্রম পরিচালনায় প্রজেক্ট ডিরেক্টর হিসেবে লেঃ কর্নেল আশিক বিল্লাহ, পিপিএম, এসইউপি, পিবিজিএমএস, এক্সিকিউটিভ প্রজেক্ট ডিরেক্টর হিসেবে মেজর হুসাইন রইসুল আজম মনি এবং প্রজেক্ট সহকারী ডিরেক্টর হিসেবে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সুজয় সরকার দায়িত্ব পালন করছেন।
চলচ্চিত্রটিতে সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন এলকার উপকূলীয় অঞ্চলের জীবন, জীবিকা ও জৈব বৈচিত্র্যকেও প্রধান্য দেওয়া হয়েছে। চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করবেন ‘ঢাকা অ্যাটাক’ খ্যাত পরিচালক দীপঙ্কর দীপন। নির্মাণে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের পাশাপাশি যুক্ত থাকবেন জনপ্রিয় দেশী-বিদেশী অভিনেতা-অভিনেত্রীরা, শিল্পী-কলাকুশলী ও মিউজিসিয়ানরা। চলচ্চিত্রটির লভ্যাংশ ভিকটিমদের সহায়তা, আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যুদের পূর্ণবাসন সহ উপকূলীয় অঞ্চলের জনকল্যাণে ব্যয় করা হবে। সর্বমোট ৪৫ দিন শ্যুটিং এর পরিকল্পনা করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৩৩ দিন শ্যুটিং সম্পন্ন হয়েছে।
১ম পর্ব। গত ২০ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখ হতে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখ পর্যন্ত মুন্সিগঞ্জ, সাতক্ষীরার বিভিন্ন এলাকায় এবং র‌্যাব-৬, লবনচরা, খুলনায় শ্যুটিং কার্যক্রম পরিচালিত হয়। সর্বমোট ১২ দিন।
২য় পর্বে। গত ১৫ ফেব্রæয়ারি ২০২০ হতে ২৭ ফেব্রæয়ারি ২০১৯ তারিখ পর্যন্ত মোট ১৩ দিন এবং ০৩ মার্চ ২০১৯ হতে ১০ মার্চ ২০২০ তারিখ পর্যন্ত মোট ০৮ দিন সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকা (দুবলার চর, কটকা, কালির চর, পুটনীচর এবং মংলা) এবং সদর দপ্তর র‌্যাব-৬, লবনচরা, খুলনা এবং মংলায় শ্যুটিং কার্যক্রম পরিচালিত হয়। সর্বমোট ২১ দিন।
৩য়/শেষ পর্ব। গত ২৯ অক্টোবর ২০২০ হতে ০৯ নভেম্বর ২০২০ তারিখ পর্যন্ত ৩য়/শেষ পর্বের শ্যুটিং র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর, র‌্যাব ট্রেনিং স্কুল পোড়া-বাড়ী গাজীপুর, জয়মনি, মংলা এবং খুলনায় অনুষ্ঠিত হবে। সর্বমোট ১২ দিন। পরবর্তীতে একটি গানের চিত্রায়ণ করা হবে।
৩য়/শেষ পর্ব শ্যুটিং শেষে আগামী ২৬ মার্চ ২০২১ তারিখে “অপারেশন সুন্দরবন’’ চলচ্চিত্রটি বাংলাদেশের সকল প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে আমরা আশা করছি । চলচ্চিত্র “অপারেশন সুন্দরবন’’ নির্মাণে ও প্রচারে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সম্মানিত সাংবাদিকবৃন্দদের সহযোগীতায় আমরা এগিয়ে যেতে চাই। আমরা আশা করছি চলচ্চিত্রটি সুন্দরবন কেন্দ্রিক র‌্যাবের সাফল্য জনসাধারণের সম্মুখে তুলে ধরতে সক্ষম হবে। চলচ্চিত্রটি সপরিবারে সিনেমা হলে গিয়ে দেখার জন্য অনুরোধ রইল।
দেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশ বৎসর পূর্তিতে এবং মুজিব-বর্ষে আমাদের এই সাফল্য গাঁথা দেশ বিদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই। গৌরবোজ্জ্বল আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে চাই সবার সাথে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here