জুলহাজ-তনয় হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন টঙ্গীতে গ্রেফতার

0
184
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: রাজধানীর কলাবাগানে সমকামী অধিকার কর্মী জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন আসাদুল্লাহ ওরফে ফয়জুল ফয়সালকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. ওবায়দুর রহমান জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টা গাজীপুরের টঙ্গী এলাকা থেকে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সদস্যরা। এই গ্রেফতারের ফলে এই মামলায় এখন পর্যন্ত মোট ৫ জনকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হলো। বুধবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, জুলহাজ ও তনয় হত্যাকান্ডে ৭ জন অংশ নেয়। তারা হত্যাকান্ডের প্রস্তুতি নিয়ে টঙ্গী থেকে প্রথমে কলাবাগান আসে। এরপর কলাবাগানে জুলহাজের বাসার পাশের একটা মসজিদে নামাজ পড়া শেষ করে হত্যাকান্ড ঘটায়। সাতজনের মধ্যে পাঁচজন অপারেশনে অংশ নেয় এবং বাকি দু’জন বাইরে থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছিল। ওই পাঁচজনের মধ্যে আসাদুল্লাহ ও আরাফাত সরাসরি হত্যাকান্ড ঘটায়। জড়িতরা সবাই আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, সবশেষ গ্রেফতার আসাদুল্লাহর বাড়ি ঝিনাইদহের মহেশপুরে। সে যশোর পলিটেকনিকে পড়াশোনা করেছে। আসাদুল্লাহার বাবা ছিলেন জামায়াতের রুকন পর্যায়ের নেতা। আনসারুল্লাহ বাংলা টিমে যোগদানের আগে ২০১৫ সালে যশোরের নওয়াপাড়া ইউনিয়নের ছাত্রশিবিরের সাথী ছিলেন আসাদুল্লাহ। বুধবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক মুহাম্মদ মনিরুল ইসলাম গ্রেফতার আসামি আসাদুল্লাহ ওরফে ফয়জুল ফয়সালকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানি শেষে ঢাকা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদলতের হাকিম মো. মামুনুর রশীদ তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। দেশজুড়ে ‘উগ্রপন্থিদের’ একের পর এক হত্যা-হামলার মধ্যে ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল রাজধানীর কলাবাগানের লেক সার্কাস রোডের এক বাসায় ঢুকে ইউএসএইড কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু থিয়েটারকর্মী মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। জুলহাজ-তনয়কে হত্যার পর খুনিরা পালানোর সময় ওই বাড়ির দারোয়ান পারভেজ মোল্লাও তাদের হামলার শিকার হন। ওই সময় একজনের কাছ থেকে একটি ব্যাগ ছিনিয়ে রাখেন কলাবাগান এলাকায় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এএসআই মমতাজ; সেখানে একটি পিস্তল, একটি দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও মোবাইল ফোন পাওয়া যায়। ঘটনার রাতেই জুলহাজের ভাই মিনহাজ মান্নানের পক্ষ থেকে অজ্ঞাতপরিচয় পাঁচ-ছয়জনকে আসামি করে কলাবাগান থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। এএসআই মমতাজের ওপর হামলা এবং অস্ত্র পাওয়ার ঘটনায় অপর মামলাটি করেন কলাবাগান থানার এসআই শমীম আহমেদ। সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক দীপু মনির খালাত ভাই জুলহাজ (৩৫) সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনার প্রটোকল কর্মকর্তা ছিলেন। পরে তিনি যোগ দেন উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএইডে। ‘রূপবান’ নামে একটি সাময়িকীর সম্পাদনায় যুক্ত ছিলেন তিনি। জুলহাজের বন্ধু নিহত মাহবুব রাব্বী তনয় (২৬) নাট্য সংগঠন লোকনাট্য দলের কর্মী ছিলেন। শিশু সংগঠন ‘পিপলস থিয়েটার’ এ ‘শিশু নাট্য প্রশিক্ষক’ হিসেবেও কাজ করতেন তিনি। পুলিশ বলে আসছে, নিষিদ্ধ জঙ্গি দল আনসার আল-ইসলাম ওই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। সন্দেহভাজন কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হলেও গত প্রায় তিন বছরে এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দিতে পারেনননি তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। আগামী ২৩ জানুয়ারি আদালতে এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার দিন ধার্য রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here