টঙ্গীতে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে বাউন্ডারী ওয়াল

0
92
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: টঙ্গীর ৪৮ নং ওয়ার্ডের বনমালা এর অর্ন্তগত হাজী আলাউদ্দিন ফকির রোড-১ এর একটি শাখা রোড দীর্ঘ ৩০ বছরের পুরাতন জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে বাড়ীর বাউন্ডারী ওয়াল নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০১২ ইং সালে প্রাক্তন মেয়র জনাব আজমত উল্লা খানের শেষ সময়ে তিনি রাস্তাটি ঢালাই করে পাঁকা করে গেলেও বর্তমানে রাস্তাটি বন্ধ করে দিতে কোন কিছুরই তোয়াক্কা করা হচ্ছেনা। জানা যায় যে, বাউন্ডারী নির্মাণ করতে গেলে একবার সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ তাকে বাধা দান করে এবং নির্মিত অংশ তারা ভেঙ্গেও দেন। বেশ কয়েকদিন পর আবারও নির্মাণ কাজ করতে গেলে টঙ্গী পূর্ব থানার ২জন এস আই এসে চলমান কাজ বন্ধ করে দিয়ে যায়। এত কিছুর পরেও কোন আইন কানুন বা কোন নিয়ম নীতি না মেনে এবং জনগণের দাবী উপেক্ষা করে কিভাবে এ সব কিছু করা সম্ভব হচেছ এটা এলাকাবাসীর প্রশ্ন। এব্যাপারে বাউন্ডারী নির্মাণকারী মরহুম রোস্তম আলী পাটোয়ারীর স্ত্রী মোবাশে^রা বেগমকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন যে, তার স¦ামী ১১৯২ সালে এই জমি ক্রয় করার পর তিনি মারা যান। তারপর থেকে এই জায়গা পতিত পড়েছিল। বর্তমানে আমরা এখানে বাড়ী করেছি। এখন আমরা জানতে পারলাম যে, এই রাস্তার পুরা জায়গাটাই আমাদের। পাশের বাড়িওয়ালা কোন জায়গাই ছাড়ে নাই। তাই আমরা এখন অর্ধেক রাস্তা নিয়া নিচ্ছি। পক্ষান্তরে পাশের বাড়িওয়ালাকে এব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি তার বাড়ী নির্মাণের প্ল্যান দেখান এবং পরিষ্কার বুঝিয়ে দেন যে, তিনিও এই রাস্তার অর্ধেক জায়গা দিয়াছেন। অর্থাৎ এই ৬ ফুটের রাস্তা একজনের নয় বরং উভয়ের। এলাকাবাসীর বাধার কারণে বর্তমানে রাস্তাটির নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে।
এলাকাবাসীর দাবী যে, এই রাস্তা ৩০ বছরের পুরাতন। এই রাস্তা বন্ধ হইলে আমাদের খুবই ভোগান্তি হইবে। এই রাস্তা দিয়া আশপাশের লোকজনসহ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও ১০৫ বছর পুরাতন মসজিদের মুসল্লীগণ যাতায়াত করে। শুধু তাই নয় অত্র বাড়ীর সামনের সরকারী প্রাইমারী স্কুলের মাঠে ঈদ ও জানাযার নামাজের মুসল্লীরাও এই রাস্তায় চলাচল করে। এলাকাবাসী আরও জানায় যে, উক্ত মহিলার বাড়ীর সামনে ৩০ ফুটের রাস্তা আর বাকী ৩ পাশেই উচ্চ শিক্ষিত লোকজনের বসবাস। কিন্তু তারা শিক্ষিত ও ভদ্র হওয়ার কারণে এই মহিলার আচরণে খুবই অশান্তিতে বসবাস করছেন। জানা যায় যে, এই মহিলার কোন এক আত্মীয় সরকারের প্রভাবশালী কর্মকর্তা বলে তার সহযোগিতায় এলাকায় এসব চরম অনিয়ম চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। এলাকাবাসীর প্রশ্ন যে, সরকারের উচ্চ পদের কর্মকর্তা বলেই কি তিনি আইন কানুনের উধের্ ?
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, মহিলা তার বাউন্ডারী ওয়াল এর জন্য ৭ ফিট লম্বা একটি পিলার দাড় করিয়েছেন মাটির নিচে মাত্র ২/৩ ইঞ্চি লম্বা রডের উপর যার নিচে কোন বেজমেন্ট নাই এবং যথেষ্ঠ পরিমানের সামানপত্র ব্যবহার করা হয়নি বরং নামে মাত্র নির্মান সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে উক্ত পিলারটি হালকা বাতাসেই মাটিতে পড়েগেছে। এলাকাবাসীর মন্তব্য হলো যে, এই ধরনের এহেন কাজ কোন কুচক্রান্ত ছাড়া আর কিছুই হতে পারেনা । এলাকাবাসী রাস্তাটি সচল রাখার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here