টঙ্গীতে মাদক কারবারিরা যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে

0
53
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৬নং ওয়ার্ডের মাদক কারবারিরা যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। আইনশৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনীর নিয়মিত অভিযানেও তাদের দাবিয়ে রাখতে পারছে না। চলছে এ ওয়ার্ডের অলিগলিতে মাদকের বানিজ্য। হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে নিষিদ্ধ ফেন্সিডিল, ইয়াবাসহ হরেক রকমের মাদক দ্রব্য। এমনকি মোবাইল নেটওয়ার্কের সাহায্যেও চলছে হোম ডেলিভারী। নিমিষেই মাদকদ্রব্য পৌঁছে যাচ্ছে সেবনকারিদের হাতে। অপরদিকে এ ওয়ার্ডে অবস্থিত কো অপারেটিভ ব্যাংকের মাঠ বস্তিতে যেন মাদকের এজেন্সী খুলে বসেছেন মাদক কারবারিরা।
সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় নির্ভরশীল সূত্রে জানা যায়, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের টঙ্গী অঞ্চলের অন্যান্য ওয়ার্ড তুলনায় ৫৬নং ওয়ার্ডের মাদক কারবারিরা যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। নিয়মিত মাদক বিরোধী অভিযানেও তাদের দাবিয়ে রাখতে পারছেনা আইনশৃংখলারক্ষাকারি বাহিনীর সদস্যরা। টঙ্গী পূর্ব থানাধীন এ ওয়ার্ডস্থ মধুমিতা, গাজীবাড়ী, গার্লস স্কুল মোড়, বেলতলা, মাছিমপুর, নতুনবাজারসহ, কো অপারেটিভ ব্যাংক মাঠ বস্তির অলিতে গলিতে অবাধে চলছে জমজমাট মাদকের বানিজ্য। আর ব্যাংক মাঠ বস্তিতে মাদকের পাশাপাশি চলছে নারীদের দেহ ব্যবসার অসামাজিক কার্যকলাপ।
নাম না প্রকাশশর্তে স্থানীয় মহিলা শ্রমিকলীগের এক নেত্রী জানান, বিগতদিনে ব্যাংক মাঠের এই বস্তিতে মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যক্রমের বিরুদ্ধে সভা সমাবেশ হয়েছে। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। বরং বিগত দিনের তুলনায় বর্তমানে মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ এলাকাতে শুধু মাদকেরই সমস্যা নয়, দখলবাজী, বাড়ী নির্মাণে চাঁদা দাবী, কিশোর গ্যাংয়ের আতংঙ্ক, প্রকাশ্যে মাদক সেবনের আড্ডা, ইভটিজিং করাসহ ঘটছে ধর্ষণ ও খুনের মতো ঘটনা। দীর্ঘ অনুসন্ধানে গিয়ে জানা গেছে, ঢাকা কালিগঞ্জ মহাসড়কের পাশে কো অপারেটিভ ব্যাংক মাঠ বস্তিটি অবস্থিত। এখানে মাদক স¤্রাজ্ঞী হিসেবে পরিচিত ফেন্সি আরফিনী। তার আদিপত্তের কাছে আইন প্রশাসনও যেন অসহায়। স্থানীয়রা জানায়, আরফিনীর সেন্ডিকেট সদস্যরা অত্র বস্তিসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে পাইকারিভাবে ফেন্সিডিল ও ইয়াবা সরবরাহ করছেন। আর আরফিনীর স্বামী জামালের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে চোর ছিনতাইকারিদের বিশাল সেন্ডিকেট বাহিনী। অপরদিকে ইয়াবা টেবলেট বানিজ্যে সরাসরি জড়িত রয়েছে টুক্কুনী, নাজমা, রুমা, তানিয়া, নীপা, সাবানা, লাকী, শাহজাহানের মা রনি। মূলত তাদেরই নিয়ন্ত্রনে পুরো এলাকাতে মাদকের বিচরণ ঘটছে। এছাড়াও মধুমিতা রেললাইনের পাশে স্থানীয় নেতাদের আশ্রয়ে বিয়ার ইয়াবা বিক্রি করছে আজাদ, মাছিমপুরের বৃষ্টি, শেরে বাংলা রোডের মোড়ে কামাল, বাবুসহ প্রমূখ। আর ব্যাংক মাঠ বস্তিতে মাদকের পাশাপশি দীর্ঘদিন যাবৎ নারীদের দেহব্যবসার আসামজিক কার্যাকলাম চলছে রাজার বাড়ী মক্ষিরানী সেফালী, আকলিমা, ঝর্ণার বাড়ীতে। এইসব বিষয় নিয়ে কথা হয় এলাকাবাসীদের সাথে। নাম না প্রকাশশর্তে তারা জানায়, বিগতদিনে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো ট্রলারেন্সের ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আর যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন প্রশাসনের আইনশৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনী। কিন্তু তাতে কি হয়েছে? এই এলাকায় তো মাদক ব্যবসায়ীদের অনেক ক্ষমতা। তারা আরো জানান, স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ছত্রছায়ায় মাদক ব্যবসায়ীরা নির্দিধায় তাদের বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে। তারা এও জানান, লোক দেখানো মাদক বিরোধী প্রতিবাদ সভা করেছেন নেতারা, কিন্তু তারাই আবার গোপনে ওইসব মাদক কারবারিদের সহযোগিতা করছেন। তা না হলে মাদক ব্যবসা কিভাবে চলছে? এ সময় মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধ নির্মূলে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসীরা। এই সব বিষয়ে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে এলাকার কোন বিষয়েই বক্তব্য দিতে রাজী হননি তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × one =