টঙ্গী পূর্ব থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী কাউসার আহমেদ

0
419
728×90 Banner

মো: জাহাঙ্গীর আকন্দ : গাজীপুর মহানগর টঙ্গী পূর্ব থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী কাউসার আহমেদ ১৯৭৩ সালে টঙ্গীর পূর্ব আরিচপুর মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম ফজলুল করিম। তিনি পেশায় একজন ঠিকাদার। পরিবারে ৩ ভাই, ৫ বোনের মধ্যে কাউসার আহমেদ ৫ম। তার প্রাইমারী শিক্ষা জীবন নোয়াগাঁও স্কুল। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নোয়াগাঁ স্কুল। ১৯৮৮ সালে এসএসসি ও ১৯৯০ সালে এইচএসসি এবং ১৯৯৩ সালে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তাছাড়া কাউসার আহমেদ তার বড় ভাই সাবেক থানা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ফারুক আহমেদের হাত ধরে ১৯৮৭ সাল থেকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতিতে হাতে খড়ি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ টঙ্গী সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ থেকে ১৯৯১ সালে জিএস পদে নির্বাচন করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শে অনুপ্রাণিত আওয়ামীলীগ রাজনীতির দলের দু:সময়ের একজন ত্যাগী কর্মী।
নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে লড়াই সংগ্রামে অগ্রনী ভুমিকা পালনকারী মেধাবী ও সাহসী সাবেক ছাত্রনেতা, তৃনমূলের আস্থাভাজন আওয়ামীলীগ নেতা কাউসার আহমেদ। তিনি ৯০ দশকে ছাত্রসমাজের রক্তস্নাত ১০ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রাজপথে সক্রীয় ভূমিকা পালন করেছেন। সেই সময় তিনি টঙ্গী সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের ক্রীড়া সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। রাজপথে আন্দোলনের তিব্রতা এবং তার স্বচ্ছ নেতৃত্বের গুনাবলীর কারণে ১৯৯১ সালে টঙ্গী সরকারী কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে নাসির-কাউসার (নাসির মোল্লা-নাসির খান-কাউসার আহমেদ) পরিষদে নির্বাচনে প্রতিদন্ধিতা করার জন্য টঙ্গীর আওয়ালীলীগের নেতৃত্ব বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে তাকে মনোনীত করেছিলেন। শুধু নেতৃত্বের গুনাবলীর কারণেই ১৯৯২ সালে জাহাঙ্গীর-কাউসার-ডলার (জাহাঙ্গীর মোল্লা-কাউসার আহমেদ-দেলোয়ার হোসেন ডলার) পরিষদে নির্বাচন করার জন্য পুনরায় তাকে মনোনীত করা হয়। স্বচ্ছ নেতৃত্বের কারণেই ১৯৯৪ সালে টঙ্গী থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক এবং পরবর্তীতে ছাত্রলীগের ১নং সদস্যও তাকে মনোনীত করেছিলেন। ১৯৯৫-৯৬ সালের বিএনপি সরকারের দুঃস্বাশন ও একতরফা নির্বাচন বিরোধী আন্দোলন, পরবর্তীতে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের দুঃস্বাশন বিরোধী আন্দোলনেও টঙ্গীর আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব তাকে প্রথম সারিতে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ছাত্র রাজনীর পাশাপাশি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠনের নেতৃত্বে তার অবধান ছিল। তিনি ১৯৮৮ সালে টঙ্গী সূর্য তরুণ একটি সামাজিক সংগঠন গঠন করেন। সেখানে প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন টঙ্গী ক্লাবের ১নং কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মেধাবী এই ছাত্রনেতা সাহেব বাড়ী দারুস সালাম জামে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন। নিজের চেষ্টা ও মেধায় গড়ে তুলেছেন ছোয়া এগ্রো ফার্ম ও পিয়ারেজ সিটি আবাসন এর পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন। মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে এলাকার মানুষের মাঝে খাদ্য ও চিকিৎসা সামগ্রী বিভিন্ন সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাধ্যমে বিতরণ করেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ হৃদয়ে লালন করে তার যোগ্য কন্যা প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের অগ্রধারাকে তন্বরানিত করার লক্ষ্যে একটি সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে দুর্দিনের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন হবে এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করে অতীতে তার স্বচ্ছ নেতৃত্বের কারণে টঙ্গীর আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব যেমনি ভাবে তার উপর আস্থা রেখেছিলেন, বর্তমানেও রাখবেন। ছাত্র রাজণীতির সেই সোনালী অর্জন এবং সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সক্রিয় ভূমিকায় এলাকার আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ-কে টঙ্গী পূর্ব থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here