ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মত প্রকাশের সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা

0
19
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ( সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ) : “করোনার দ্বিতীয় ঢেউ:জাতির নতুন ঝুঁকি -গণমাধ্যমে গভীর সংকট” শীর্ষক ওয়েবিনারে বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় প্রতিবন্ধকতার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে দৈনিক প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হাসান বলেন,”স্বাধীনতার ৫০ বছরেও কোনো সরকারই গণমাধ্যমের স্বাধীনতা দেয়নি। নানা ভাবে কৌশলে তথ্য প্রকাশ করতে হয়েছে গণমাধ্যমকে। যে দলই ক্ষমতায় যাক না কেন তাদের চেহারা পাল্টে যায়। এমনকি
রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রচারমাধ্যমগুলোও পরিণত হয় ক্ষমতাসীন দলের সম্পদে। অথচ এটি হওয়ার কথা জনগণের প্রচারমাধ্যম।“
এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় বিশ্ব মুক্ত গণমাধ‌্যম দিবসের প্রাক্কালে এই ওয়েবিনারের আয়োজন করে যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা আর্টিকেল-১৯। “জনগণের কল্যাণে তথ্য” প্রতিপাদ‌্য সামনে রেখে এ ওয়েবিনারটি অনুষ্ঠিত হয়।
সোহরাব হাসান বলেন আরো বলেন, করোনাকালেও গণমাধ্যমের তথ্য প্রকাশের স্বাধীনতা ছিল না।এ সময় হাসপাতাল ও করোনা সুরক্ষার সামগ্রি বাণিজ্যসহ নানা ধরনের দুর্নীতির বিষয়ে বিভিন্ন বাহিনীর অভিযানসহ সব বিষয়ে সরকার যতটুকু প্রকাশ করেছে, সাংবাদিকরাও ততটুকুই পেয়েছেন।এ সময় বিভিন্ন বিষয়ে কর্মকর্তাদের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের বিষয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।এছাড়া সাংবাদিকতার পেশাগত মর্যাদা, ঐক্য, সাংবাদিকদের আর্থিক অনিশ্চয়তা, ছাঁটাই ও নিজস্ব পূঁজির অভাবসহ নানা প্রতিবন্ধকতা গণমাধ্যমের স্বাধীনতার খর্ব করে বলে মনে করেন তিনি।
একাত্তর টেলিভিশনের কারেন্ট অ‌্যাফেয়ার্স এডিটর মিথিলা ফারজানা বলেন,বাক স্বাধীনতা বা তথ্যের অবাধ প্রবাহের নামে অনলাইন ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মানুষকে হয়রানি করা হচ্ছে।সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে সাংবাদিক, কার্টুনিস্ট, লেখক ও মুক্ত চিন্তাবিদদের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় গ্রেপ্তার করা হচ্ছে, কিন্তু যৌন হয়রানিকারী ও ট্রলকারীদের মতো প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে না।
তিনি আরও বলেন, যে এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করা এবং সাংবাদিকদের রক্ষা করার জন্য অবশ্যই যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে,বিশেষত নারীরা অনলাইনে অপব্যবহারের শিকার হচ্ছেন।তথ‌্য প্রকাশের ক্ষেত্রে সবারই একটি দায়বদ্ধতার রয়েছে। জনগণকে বিভ্রান্ত করা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত না হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। মহামারিতে একই সঙ্গে সাংবাদিকদের ছাঁটাই,বেতন-বোনাসসহ পেশাগত সুরক্ষার বিষয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে আলোচনা জরুরি বলেও মনে করেন তিনি।
এদিকে মতামত প্রকাশ ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা বলে মনে করেন রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার এর প্রতিনিধি সালিম সামাদ। তিনি বলেন, এই আইনের খড়গ মাথার ওপর ঝুলে থাকে সবসময়। এ কারণে গণমাধ্যমে এক ধরনের সেলফ সেন্সরশিপ থাকে। এই আইন কাদের ওপর প্রয়োগ করা হবে তা সরকারই নির্ধারণ করে।মহামারিতে মৌলবাদীরা ব্যাপক ভূয়া সংবাদ ছড়িয়েছে এবং করোনাভাইরাস নিয়ে অপপ্রচার করেছে । কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি। অথচ মাস্কের নিম্নমানের কথা বলায় একজন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামরা দায়ের করা হলো। এই অস্ত্রটা (ডিজিটার নিরাপত্তা আইন) কার বিরুদ্ধে ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

six + nine =