ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে অনলাইন গণমাধ্যমের ভূমিকা

0
73
728×90 Banner

নাসির উদ্দীন বুলবুল: সময়ের সাথে সাথে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। প্রযুক্তির আলো ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। দেশজুড়ে বিস্তৃতি লাভ করেছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট। আজকের সংবাদ জানতে আগামীকালের সংবাদপত্রের জন্য অপেক্ষা করার সময় নেই। যখনই ঘটনা তখনই সংবাদ। দ্রুত অগ্রসরমান বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে অনলাইন নিউজ পোর্টাল। ডিজিটাল যন্ত্রপাতি এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি, অর্থাৎ আইসিটির বহুল ব্যবহারের মাধ্যমে বাংলাদেশকে ২০২১ সালে সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্রে পরিণত করা বর্তমান মহাজোট সরকারের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। মোবাইল,কমপিউটার ও ইন্টারনেটের বহুল ব্যবহার এ দেশের জনগণের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা। জনসাধারণের প্রত্যাশার সাথে সরকারের প্রত্যাশার মিলনের ফলে সমৃদ্ধশালী ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন সম্ভব হবে বলে আমরা আশাবাদী।
এ প্রসঙ্গে গুরত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয় হলো:ই-গভর্নেন্স,ই-কমার্স,ই-এডুকেশন,ই-মেডিসিন, ই-অ্যাগ্রিকালচার ইত্যাদি।অর্থাৎ ডিজিটাল প্রযুক্তি বা আইসিটিনির্ভর প্রশাসন ব্যবস্থা,ব্যবসায়-বাণিজ্য,শিক্ষাব্যবস্থা, চিকিৎসাব্যবস্থা, কৃষি ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি। আর এসব সেকশান সঠিক ভাবে পরিচালিত করতে হলে তথ্যের আদান প্রদানকে সহজতর করতে হবে। জবাব দিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। আর এক্ষেত্রে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বা অনলাইন গণমাধ্যমের ভূমিকা অনস্বীকার্য। জনগনের নিটক দ্রুত ও সহজ উপায়ে তথ্য পৌছার ক্ষেত্রে অনলাইন গণমাধ্যমই একমাত্র উপায়। কিন্তু রাষ্ট্রিয় সুযোগ সুবিদা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে শূণ্যের কৌঠায় অনলাইন গণমাধ্যম সংশ্লিষ্টরা। সঠিক সংবাদ দ্রুত সরবরাহে জীবনের ঝুকিঁ নিয়ে কাজ করতে হয় অনলাইন গণমাধ্যম তথা অনলাইন নিউজ পোর্টালে কর্মরত সাংবাদিকদের। অনেক সময় প্রশাসনিক সেক্টর এবং বিভিন্ন স্পটে তথ্য সংগ্রহে নানা জটিলতা দেখা দেয়। গণমাধ্যম যেহেতু রাষ্ট্রের অন্যতম একটি স্থম্ভ সঙ্গত কারনেই এ সমস্যা নিরসনকল্পে সরকারের সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসতে হবে। একথা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, বর্তমানে প্রিন্ট মিডিয়া থেকে অনলাইন মিডিয়া বেশী জনপ্রিয়। প্রিন্ট মিডিয়া সেখানে পৌছাতে পারছেনা অথবা পৌছতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন সে খানে অনলাইনে বিশেষ করে মোবাইলে সে সংবাদ মুহুতের্ই পৌছেঁ যাচ্ছে। তবে কেন জনপ্রিয় এই গণমাধ্যমের সাথে বিমাতাসুলভ আচরণ?
অনলাইন জাতীয় হোক বা আঞ্চলিক হোক স্বস্ব ক্ষেত্রে সকলেই অবদান রেখে যাচ্ছে। মানের দিকবিবেচনায় এনে সকল গণমাধ্যমকে পৃষ্টপোষকতা করাই হবে সরকারের কর্তব্য। ডিজিটালপ্রযুক্তির ব্যাপক প্রসার তথা অনলাইন মিডিয়া ছাড়া পশ্চাৎপদ বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে সমৃদ্ধশালী মাঝারী আয়ের দেশে পরিণত করা সম্ভব হবে না।
অনলাইন গণমাধ্যম-ডিজিটালপ্রযুক্তি ব্যবহার করে দ্রুতগতিতে সরকারের সেবামূলক কার্যক্রম জনগণের মধ্যে পৌঁছে দেয়া সম্ভব। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তথ্যের স্বচ্ছতা বিধানের মাধ্যমে দুর্নীতি ও অদক্ষতা নির্ণয় করা সহজ হয়। ২০২১ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ হবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত, দুর্নীতিমুক্ত, সুশিক্ষিত, সুদক্ষ এবং সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ। সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা এবং তার বাস্তবায়ন কৌশল ছাড়া কল্পনার এই ‘সোনার বাংলা’বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না।
এটি বেশ সুখের বিষয় যে, বাংলাদেশে অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন শুরু হয়েছে। অনলাইন সাংবাদিকতা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে জাতীয় অনলাইন নীতিমালার চুড়ান্ত হয়েছে। প্রেস ইনস্টিটিউট তাদের সাংবাদিকতার ডিপ্লোমা কোর্সেও অনলাইন সাংবাদিকতার বিষয়টি যুক্ত করেছে। আশার কথা হলো যে, তথ্য মন্ত্রণালয় অনলাইন সাংবাদিকতাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট অনলাইনে কর্মরত সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাকরে সনদ বিতরণ করেছেন, এটাই স্বীকৃতির বড় প্রমাণ।
বর্তমান সরকার যেহেতু ডিজিটাল মিডিয়া বান্ধব,সঙ্গত কারনেই ক্ষমতাসিন সরকারের কাছে অনলাইন গনমাধ্যম কর্মীদের প্রত্যাশা ও অনেক। প্রশাসনিক-রাষ্ট্রিয় কর্মকান্ডে অনলাইন সাংবাদিকদের সম্পৃক্ত করতে হবে। সকল দিক বিবেচনায় ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে অনলাইন গণমাধ্যমের ভূমিকা সর্বাদিক গুরুত্ব দিতে হবে। এই সেক্টরে কর্মরত জনশক্তিকে জনসম্পদে পরিনত করতে হবে। তাদের প্রশিক্ষিত করে বিশ্বের সাথে প্রিয় বাংলাদেশকে এগিয়ে যেতে কার্যকরি পদক্ষেপ নিতে হবে।
তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে। অনলাইন সংবাদপত্রগুলো এখন তাৎক্ষণিক ঘটনার সংবাদ পরিবেশনের পাশাপাশি জাতীয়, রাজনীতি, অর্থনীতি-ব্যবসা, খেলাধুলা, মুক্তমত, শেয়ারবাজার, বিনোদন, লাইফস্টাইল, আইন, ধর্ম, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সাহিত্য, শিশুসাহিত্য, ফিচার, ধর্ম-দর্শন, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, মতামতসহ বিশেষ প্রতিবেদন ও সাক্ষাৎকার প্রকাশ করছে। এই জানার আকাংখাই অনলাইন দুনিয়ায় নিউজ পোর্টালের যাত্রা শুরু হয়েছে। আমাদের দেশে অনলাইন নিউজ পোর্টালের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এজন্য যুতসই নীতিমলা অবশ্যই দরকার। অনলাইন সংবাদ মাধ্যম পরিচালনার জন্য দেশে একটি নীতিমালা ও অধ্যাদেশ থাকা দরকার, তবে তা যেন স্বাধীন মতপ্রকাশ এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের অন্তরায় না হয়। গণমাধ্যমের স্বকীয়তা, সৃজনশীলতা, পেশাদারিত্ব এবং সর্বোপরি, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা যেন কোনোভাবে খর্ব বা ক্ষুণ্ন না হয় সেদিকে বিশেষ সতর্ক থাকা জরুরী। অনলাইন মিডিয়া ছাড়া আমাদের ভবিষ্যত জীবন কল্পনাও করা যায়না। বর্তমানে বাংলাদেশে সাড়ে ৭ কোটিরও বেশী লোক ইন্টানেট ব্যবহারকারী রয়েছেন । প্রধান মন্ত্রীর ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গঠনের ক্ষেত্রে সবচাইতে বেশী ভুমিকা রাখছে এসব অনলাইন গনমাধ্যম গুলো।বিশেষত খবর আপডেটে অনলাইন নিউজ পোর্টালের জুড়ি নেই। গতিময় নাগরিক জীবনে তাই এখন জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম অনলাইন নিউজ পোর্টাল।
ফলে নিশ্চিতভাবে বলা যায়, সামনের দিনগুলোতে প্রযুক্তি সংবাদ মাধ্যমের জন্য আরও নতুন নতুন সম্ভাবনার দরজা খুলে দেবে। এ সুযোগ যোগ্যতার সাথে কাজে লাগাতে পারলে অনলাইন নিউজ পোর্টাল হয়ে উঠতে পারে একক নেতৃত্বদানকারী সংবাদমাধ্যম।

লেখক:
নাসির উদ্দীন বুলবুল
মহাসচিব
জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটি,
সম্পাদক
ডেইলি গাজীপুর অনলাইন.কম।

Main Home

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here