ঢাকা ১৮ আসনের পালে নির্বাচনী হাওয়া

0
137
728×90 Banner

মোঃরফিকুল ইসলাম মিঠু : আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে কেন্দ্র করে ঢাকা ১৮ আসনের আওয়ামীলীগ দলীয় নেতাকর্মিদের পালে নির্বাচনী হাওয়া বিরাজমান। সবার মুখে মুখে একই প্রশ্ন কে হতে যাচ্ছেন আগামীর সাংসদ। অপরদিকে বিরোধী দল বিএনপি এখনো পর্যন্ত নির্বাচনী কোন প্রস্তুতির লক্ষণ দেখাতে পারেননি। বর্তমান প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে দয়াল বড়ুয়া নামে একজন হেভি ওয়েট প্রার্থী ঢাকা ১৮ আসনের আনাচে কানাচে চষে বেড়ালেও হঠাৎ করে কেন যেন থেমে গেলেন। এরই মধ্যে তিনি বিভিন্ন মসজিদ, মাদরাসা, মন্দিরে অনুদান ঘোষণা করে আলোচনায় এসেছিলেন বটে। তিনি তার প্রত্যেক সভায় বলে যাচ্ছেন আমি জনগণের সেবক হিসেবে আপনাদের মাঝে হাজির হতে চাই। অপরদিকে সরকারি দলের মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা হচ্ছেন বর্তমান সাংসদ আলহাজ্ব হাবিব হাসান, নিপা গ্রুপের স্বত্বাধিকারী আলহাজ্ব খসরু চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সিদ্দিকুর রহমান, এইচ এম মান্নান কচি, তৃণমূল নেতা নাজিম উদ্দিন, এস এম তোফাজ্জল হোসেন, ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান, ৫০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ডিএম শামীম সাবেক এমপি নাজমা সহ আরো অনেকে। সাধারণ মানুষের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন প্রমি গ্রুপের চেয়ারম্যান সিআইপি সহিদুল ইসলাম । ঢাকা ১৮ আসনের আনাচে কানাচে ঘুরে উল্লেখিত নাম গুলোই শোনা যায়।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইতিপূর্বেই ঘোষণা দিয়েছেন একটি বাগানে অনেকগুলো গোলাপ ফুটবে যেটি পছন্দ হবে সেটি তুলে আনব। প্রধানমন্ত্রীর কথার সাথে তাল মিলিয়ে বলতে হয় যে কটি ফুল ফোটার ফুটতে দাও মালি বাধা দিও না। গত আগস্ট মাসে ঢাকা মহানগর উত্তরের একটি শোক সভায় প্রধানমন্ত্রীর সাথে সেলফি নিয়ে প্রচার-প্রচারণায় মত্ত আছেন কিছু প্রার্থী। প্রবীণ অনেক নেতারাই বলছেন বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনাকে বুঝতে হলে অনেক সময়ের প্রয়োজন। তিনি কাকে কোথায় কি পদে রাখবেন শুধু তিনিই ভাল জানেন। ঢাকা ১৮ আসনের সরকারদলীয় রাজনীতিতে রয়েছে দ্বন্দ্ব এই সুযোগ কে কাজে লাগাতে পারেন বিরোধী দল। এমন মন্তব্য নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সরকার দলীয় প্রবীণ কতিপয় নেতার।এদিকে ২০২৩ সালের শেষ কিংবা ২০২৪ সালের শুরুতে বাংলাদেশের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে নির্বাচন অনুষ্ঠান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রত্যাশা।২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশভাবে জয়লাভ করে সরকার গঠন করে। নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থান লাভ করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এবং এককভাবে নির্বাচনে তৃতীয় স্থান লাভ করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।তবে এই নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে এবং নির্বাচনের ফলাফল ছিল সম্পূর্ণ এক পাক্ষিক।তখন থেকে বিএনপি সহ বিরোধীরা ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে পুননির্বাচনের দাবি তুলেন।বিএনপির ঘোষণা অনুযায়ী দলীয় সরকারের অধীনে তারা আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণ করবে না। এই দিকে দলীয় ও হাইব্রিড কিছু নেতা নিজেদের যোগ্যতা প্রমান না করে বিনাপ্রতিদন্ধীতায় নির্বাচিত হওয়ার দিবাস্বপ্ন দেখছেন। তৃণমূলের অনেক নেতারাই বলছেন এই আসনের জন্য হাবিব হাসান ই যোগ্য। আবার কেউ কেউ বলছেন এইবার আর তিনি নমিনেশন পাবেন না।।কার কথা যে সত্যি হবে এটা শুধুমাত্র নেত্রী জানেন। হেভি ওয়েট প্রার্থী খসরু চৌধুরীকে নিয়েও আছেন নানা রকম জল্পনা কল্পনা। কিছু মানুষকে বলতে শোনা যায় তিনি ইতিপূর্বে বিএনপি থেকে নমিনেশন নিতে চেয়েছিলেন। যাহার স্বপক্ষে নেই কোন সত্যিকারের প্রমাণ। আবার কেউ কেউ বলছেন তিনি হলেন ব্যবসায়ী মানুষ। ব্যবসায়ীরা রাজনীতির কি বুঝেন। সিদ্দিকুর রহমান সাহেবও একজন পাকাপোক্ত ব্যবসায়ী। ব্যবসা করবেন তারা না জনগণকে সেবা দিবেন এমন প্রশ্ন ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের। বাকি যারা রয়েছেন তারা প্রত্যেকেই তৃণমূল থেকে আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। তবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামের আস্থাভাজন লোকেরাই নমিনেশনে এগিয়ে থাকবেন বলে কিছু লোক মত ব্যক্ত করেন। আগামীতে নমিনেশনের ব্যাপারে এমপি আলহাজ্ব হাবিব হাসান ১০০ ভাগ আশাবাদী বলে জানান। অপরদিকে খসরু চৌধুরীও মনে করছেন তিনিই নমিনেশন পাবেন। তবে দেখার বিষয় হচ্ছে তফশিল ঘোষণার পর কোন রাজা বা রানী গোলাপটি প্রধানমন্ত্রী আঠারো আসনবাসীকে উপহার দেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here