তুরাগ নদের তীরে শুক্রবার থেকে বিশ্বইজতেমা শুরু

0
36
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : তুরাগ নদের তীরে টঙ্গীতে কাল থেকে শুরু হচ্ছে দাওয়াতে তাবলিগের ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এতে অংশ নিতে এর মধ্যেই মুসল্লিরা ময়দানে আসতে শুরু করেছেন। বুধবারই তাদের পদচারণায় ময়দানের অধিকাংশ স্থান পরিপূর্ন হয়ে গেছে।
শুক্রবার বাদ ফজর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হবে ইজতেমা। রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে মুসলিম জাহানের দ্বিতীয় বৃহত্তম এ সম্মেলনের প্রথম পর্ব। ২০ জানুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। এরই মধ্যে ইজতেমার সার্বিক প্রস্তুুতি সম্পন্ন হয়েছে। ১৬০ একর জমির ওপর নির্মিত সুবিশাল প্যান্ডেল, খুঁটিতে নম্বর প্লেট ও খিত্তা নম্বর বসানো হয়েছে। বিদেশি, জুড়নেওয়ালি জামাত, তাশকিল কামরাও প্রস্তুত। প্রস্তুত ওজু-গোসলের স্থানসহ প্রয়োজনীয় সবকিছুই। আগত মুসল্লিরা যাতে নিরবচ্ছিন্নভাবে শীর্ষ মুরব্বিদের বয়ান শুনতে পারেন সেজন্য পুরো ময়দানে প্রায় ৫শ মাইক স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। এর মধ্যে শব্দ প্রতিধ্বনিরোধক ৩২০টি ছাতা মাইক এবং বিদেশি মেহমানদের বয়ান শোনার জন্য বিদেশি কামরা ও তার আশপাশে ২০০টি ইউনিসেফ (প্রতিধ্বনি প্রতিরোধক) মাইন স্থাপন করা হয়েছে।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইজতেমা ময়দানের মাইকের জামাতের শীর্ষ জিম্মাদার মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক।
কন্ট্রোল রুম
ইজতেমায় আগত মুসল্লিদেরসহ সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে ময়দানের চারপাশে স্থাপিত ১০টি কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। মূল কন্ট্রোল রুমটি থাকবে অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিলস উচ্চবিদ্যালয় মাঠে। এছাড়াও বাটা গেইটের পাশে, বিদেশি মেহমানদের প্রবেশপথ, বিদেশি মেহমানদের নির্ধারিত স্থানের অভ্যন্তরে, তুরাগ নদের পূর্ব পাড়, এটলাস হোন্ডা কারখানার প্রবেশপথ, টেলিফোন শিল্প সংস্থা সংলগ্ন স্থান, মাজারবস্তির সম্রাট প্যাকেজিংয়ের পশ্চিম পাশে ও মন্নু গেটের কামারপাড়ামুখী ৬নং প্রবেশ গেটে স্থাপিত কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে নিরাপত্তা কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
ওয়াচ টাওয়ার
ইজতেমা ময়দানের চারপাশে পুলিশ ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে ১৪টি ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ করা হচ্ছে। ওয়াচ টাওয়ার থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বাইনোকুলার ও নাইট ভিশন গগলস-এর মাধ্যমে পুরো ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করবেন। সেগুলো টঙ্গী বাজার সেনা কল্যাণ ভবনের দক্ষিণ পাশে, আশরাফ সেতু ও বাটার মধ্যবর্তীস্থানে, স্টেশন রোড ক্রসিংয়ের দক্ষিণ পাশে, টেলিফোন শিল্প সংস্থার বাউন্ডারির বাহিরে, কামারপাড়া রোডে পূর্ব মাথায় মন্নু গেট সংলগ্ন সিডিএল ভবন, কামারপাড়া রোডের টিনশেড মসজিদ বরাবর ইজতেমা ময়দানের প্রবেশ পথ সংলগ্ন, কামারপাড়া রোডের ৩নং প্রবেশ পথের পূর্ব পাশে, তুরাগ নদের পাড়ে কামারপাড়া ব্রিজের নিচে, আইইউবিএটি এর পিছনের গেটের বিপরীতে তুরাগ নদের পূর্ব পাড়ে, আহসানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতালের তুরাগ নদের পূর্ব পাড়ে, হোমিওপ্যাথি কলেজ ও কাঁচা বাজারের বিপরীতে তুরাগ নদের পূর্ব পাড়ে, ইজতেমা মাঠের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে ও মাজার বস্তি সামনে স্থাপন করা হয়েছে।
রুফটপ টাওয়ার
ইজতেমা ময়দানে যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা নিরসনে ময়দানের চারপাশে স্থাপিত রুফটপ (বহুতল ভবনের ছাদ) টাওয়ার থেকে নজরদারি করা হবে। সেনা কল্যাণ সংস্থা ভবনের ছাদ, আশরাফ সেতু শপিং ভবনের ছাদ, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম পাশে আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়াম সংলগ্ন নির্মাণাধীন ফ্লাইওভার, টেলিফোন শিল্প সংস্থা ভবনের ছাদ, টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের ছাদ, সিডিএল ভবনের ছাদ, গ্রিন সাবান কারখানার ছাদ, কামারপাড়া রোডের নীরোল্যাক ভবনের ছাদ ও সম্রাট প্যাকেজিং হাউসের ছাদ থেকে দূরবীনের সাহায্যে সার্বক্ষণিক ময়দান ও আশপাশের এলাকা পর্যবেক্ষণ করা হবে।
ড্রোনের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ
মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে টঙ্গী ব্রিজ, বাটা গেইট, স্টেশনরোড, মন্নু গেট, কামারপাড়া ব্রিজ, আইইউবিএটি ইউনিভার্সিটি ভবন, ক্যান্সার হাসপাতাল ও কামারপাড়া এলাকা ড্রোনের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হবে।
প্রবেশপথে মেটাল ডিটেক্টর
ইজতেমা উপলক্ষে ময়দানের চারপাশের ১৯টি প্রবেশপথে মেটাল ডিটেক্টর স্থাপন করা হয়েছে। আগত মুসল্লিদের ইজতেমায়ী সামানাসহ সবকিছু পরখ করে ময়দানে প্রবেশ করতে দেয়া হবে।
মিয়ানমারের নাগরিক অর্থাৎ রোহিঙ্গাদের ময়দানে আসা-যাওয়ার ব্যাপারে সতর্কতা আরোপ করা হয়েছে। তাদের ব্যাপারে বিশেষ নজরদারি রাখার নির্দেশ রয়েছে।
পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের ব্যবস্থা
জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তর গাজীপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী আলমগীর মিয়া জানান,ময়দানে আগত মুসল্লিদের ওজু গোসলসহ অন্যান্য কাজে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে ৪ কোটি লিটার পানির প্রয়োজন হয়। সেজন্য পূর্বের স্থাপন করা ১৪টি গভীর নলকূপের পাশাপাশি এবার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ময়দানে নতুন করে ১ হাজার ফুট গভীর ২টি নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে।
ইজতেমা ময়দানের উত্তর-পশ্চিম কোণে বিদেশি মেহমানদের জন্য নির্ধারিত কামরার পাশে ১৪০ থেকে ১৫০ পিএসআই উচ্চচাপ সম্পন্ন গ্যাসের লাইন সংযোগ দেওয়া হয়েছে। সেখানে শুধু বিদেশি মেহমানদের রান্নার কাজ হয়ে থাকে।
টঙ্গী বিদ্যুৎ বিতরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, উত্তরা, টঙ্গী সুপার গ্রিড ও টঙ্গী নিউ গ্রিডকে বরাবরের মতোই মোট ১৩২ কেভি সোর্স হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে, যাতে করে একটি গ্রিড অকেজো হলেও বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘিœত না হয়। ৪টি ১১ কেভি ফিডার লাইন ও ২১টি বিতরণ কেন্দ্র করা হয়েছে। অতিরিক্ত ব্যবস্থা হিসেবে ৪টি জেনারেটর সব সময় প্রস্তুত থাকবে।
ময়দানে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে তোরণ নির্মাণের পাশাপাশি টঙ্গী-কামারপাড়া রোডে রঙ-বেরঙের সড়ক বাতি লাগানো হয়েছে। এছাড়াও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলমান বিআরটি প্রকল্পের কাজের কারণে মুসল্লিদের চলাচলে যাতে ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্য মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে ৭৫০ এলইডি লাইট স্থাপন করা হচ্ছে।
ইজতেমায় চলবে ৫ জোড়া বিশেষ ট্রেন
বিশ্ব ইজতেমায় আসা মুসল্লিদের যাতায়াত সুবিধার্থে ৫ জোড়া বিশেষ ট্রেন সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ইজতেমার প্রথম পর্বে শুক্রবার থেকে আখেরি মোনাজাত ও দ্বিতীয় পর্বে শুক্রবার থেকে আখেরি মোনাজাত পর্যন্ত বিভিন্ন গšতব্যে এ সেবা চালু হবে।
বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট শহিদুল ইসলাম জানান, ইজতেমার দুই পর্বে ঢাকা থেকে পাঁচ জোড়া স্পেশাল ট্রেন চলবে। এ ছাড়াও জামালপুর থেকে স্পেশাল ট্রেন চলবে এবং ময়মনসিংহে আখেরি মোনাজাতের দিন দুইটি স্পেশাল ট্রেন যাবে। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
পাশাপাশি বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে মুসল্লিদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিতকরণ, সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে টঙ্গী, বিমানবন্দর, তেজগাঁও, কমলাপুর, টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি অফিসারসহ প্রয়োজনীয় বাহিনী মোতায়েন থাকবে।এছাড়াও ইজতেমা উপলক্ষে ১২ জানুয়ারি থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্ষন্ত ৫ দিন বিআরটিসির পক্ষ থেকে ৩শটি বিশেষ বাস চালু থাকবে। প্রগতি সরণি, আশুলিয়া বাইপাস এবং গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত বাস চালু থাকবে। আখেরি মোনাজাতের পর মুসল্লিদের বিভিন্ন জেলায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য একতলা বিশেষ বাস পরিষেবা চালু থাকবে। বিদেশি মেহমানদের জন্য একটি স্টিকারযুক্ত এসি বাস বিমানবন্দর থেকে ইজতেমা ময়দান পর্যন্ত নিয়মিত চলাচল করবে।
চিকিৎসাসেবা: ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি প্রায় ৩০টি সংগঠন তাদের অস্থায়ী চিকিৎসা ক্যাম্প স্থাপন করছে বলে জানা গেছে। এগুলোর মধ্যে হামদর্দ ল্যাবরেটরিজ (ওয়াকফ) লিমিটেড, ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল, আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম, টঙ্গী ওষুধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি অন্যতম।
এছাড়া মুসল্লিদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের পক্ষ থেকে ঢাকা থেকে আগত ১৩টি বিশেষজ্ঞ টিম কাজ করবে। মুমূর্ষু রোগী পরিবহনের জন্য ১৪টি অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক ডা. জাহাঙ্গীর আলম।তিনি আরো জানান, আগত মুসল্লিদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত সব চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা ও সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ১২ জানুয়ারি থেকে ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত সব ধরনের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, ময়দানের আশপাশের অবৈধ স্থাপনা ও দোকানপাট উচ্ছেদ করা হয়েছে। এছাড়া ভেজালমুক্ত খাদ্য পরিবেশন নিশ্চিত করতে বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে।এছাড়াও ময়দানের চারপাশে দেয়াল ও রাস্তার মোড়ে লাগানো অশ্লীল পোস্টার-ব্যানার, সাইনবোর্ড অপসারণ করা হয়েছে।
ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের সুবিধার্থে মাঠে বিøচিং পাউডার ও মশক নিধনের পর্যাপ্ত ওষুধ ছিটানোর কাজ শুরু করা হয়েছে। এছাড়াও ধুলাবালি যাতে না ওঠে সে জন্য পানি ছিটানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।
বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের প্রস্তুতি দেখার জন্য বুধবার মাঠ পরিদর্শন করেন আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন এসময় আইজিপির সঙ্গে এসবির প্রধান অ্যাডিশনাল আইজিপি মনিরুল ইসলাম, ট্যুরিস্ট পুলিশের অ্যাডিশনাল আইজিপি হাবিবুর রহমান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলামসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন পুলিশ প্রধান।
তিনি বলেন, ‘আমরা তাবলিগের উভয়পক্ষের সঙ্গে বসেছি, কথা বলেছি। তাদের মধ্যে যে মতবিরোধ সেটা নিরসনের আহ্বান জানিয়েছি। তারা আমাদের কথা দিয়েছেন, ইজতেমায় একপক্ষ অপরপক্ষকে সহযোগিতা করবে।’‘আমি বিশ্বাস করি, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখতে তাবলিগের উভয়পক্ষ আমাদের সহযোগিতা করবে। তারা আমাদের কথা দিয়েছেন, আমি তাদের ওপর আস্থা রাখতে চাই।’
আইজিপি আরো জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে ১৬০ একর জায়গা খোলা মাঠ ইজতেমার জন্য দিয়েছেন। দেশ-বিদেশের আগত মুসল্লিরা যেন নিরাপদে ইজতেমায় অংশ নিতে পারে সেজন্য পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
প্রসঙ্গত, ১৩ জানুয়ারি শুরু হয়ে ১৫ জানুয়ারি রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে। মাঝে ৪দিন বিরতি দিয়ে ২০ জানুয়ারি দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাযের অনুসারী (ওয়াসিফুল ইসলামপন্থী) মুসল্লিরা বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেবেন। ২২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে এবারের বিশ্ব ইজতেমার পরিসমাপ্তি ঘটবে।
২০২০ সালে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর ২০২১ ও ২০২২ সালে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here