দেশের সেবায় নিবেদিত হোক সাংবাদিকতা

0
37
728×90 Banner

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা : ইংরেজিতে ‘জার্নাল’ এবং ‘ইজম’ থেকে জার্নালিজম বা সাংবাদিকতার উৎপত্তি । ‘জার্নাল’ শব্দের অর্থ কোনো কিছু প্রকাশ করা এবং ‘ইজম’ শব্দের অর্থ অনুশীলন বা চর্চা করা। সে হিসেবে কোনো কিছু জনসমক্ষে প্রকাশ করার জন্য যে চর্চা বা অনুশীলন তাকে সাংবাদিকতা বলা হয়। আর যিনি সংবাদপত্রের জন্য সংবাদ সংগ্রহ করেন ও লেখেন তিনিই সাংবাদিক । সাংবাদিকতা একটি মহৎ পেশা। এ পেশার ম‚ল লক্ষ্য হলো মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করা। মানুষের কল্যাণের কথা বলা । মানুষের সমস্যা, সমাজের নানা অসঙ্গতি, অনিয়ম, অবিচার তুলে ধরা । দেশব্যাপী এ পেশায় আত্মনিয়োগ করে সাংবাদিকরা জনসেবা ও সমাজকল্যাণ কাজে গুরুত্বপ‚র্ণ ভ‚মিকা রেখে চলছেন । কিছু পাওয়ার জন্য নয় নিতান্ত ভালোবাসা ও জনসেবার মহৎ উদ্দেশ্য থেকে ঝুঁকিপ‚র্ণ এ পেশায় আসেন একজন প্রকৃত সাংবাদিক। একজন ভালো সাংবাদিককে যেমন সাহসী হতে হয় তেমনি সত্যনিষ্ঠ ও নীতির প্রশ্নে আপসহীন এবং ন্যায়ের প্রশ্নে অবিচল থাকতে হয়। ঝুঁকি থাকলেও অনেকেই ভালোবাসার কারণে এ পেশাকে বেছে নেন এবং আজীবন সাংবাদিকতায় স্বতশ্চল থাকেন । যারা অকপট সততার সঙ্গে এ পেশায় সক্রিয় থাকেন তাদের এক ধরনের আত্মতৃপ্তি থাকে। ভালো কাজের জন্য আনন্দ থাকে। তাদের কাজ মানুষের জন্য কল্যাণ বয়ে আনে। বাহŸা কুড়ানোর অভিপ্রায় ও অর্থের লোভ তাদের থাকে না। অর্থকড়ি উপার্জন তাদের উদ্দেশ্য নয়। প্রতিপত্তির চাহিদা থেকে একজন প্রকৃত সাংবাদিক দ‚রে থাকেন সবসময়। জনসেবার জন্য সাংবাদিকতা করেন। অমিত সাহস নিয়ে ছুটে যান খবরের কাছে। অনেক পরিশ্রম করে তথ্য তুলে আনেন ঘটনার গভীর থেকে। অসীম সাহসিকতার সাথে নানা বৈরী পরিবেশের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হয় অবিরাম। প্রচুর পড়াশোনা করতে হয় একজন ভালো সাংবাদিকের। যাতে তার লেখনীতে মেধার স্ফুরণ ঘটে। সাংবাদিকতা সম্পর্কে সঠিক ধারণা থাকা জরুরি। আমরা যে সমাজে বাস করি এখানে সাংবাদিকতার ঝুঁকি অনেক। অনেক সময় মামলা ও শারীরিক আক্রমণের শিকার হতে হয়। নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে সাংবাদিকতা করতে হয়। একজন সাংবাদিকের কাজ সমাজের প্রকৃত চিত্র তুলে ধরা। সে জন্য গণমাধ্যমকে সমাজের দর্পণ বলা হয়। এই দর্পণে প্রতিবিম্বিত হয় সমাজের প্রতিচিত্র। অন্যায়, অনিয়ম, নিগ্রহ, শোষণ-বঞ্চনা ও অধিকার হরণের বিরুদ্ধে একজন সাংবাদিককে সোচ্চার থাকতে হয় সবসময়। চোখ রাঙানোকে গণ্য না করে নির্ভীক ও নিরলসভাবে কাজ করতে হয়। প্রচলিত সমাজব্যবস্থার চিত্র প্রত্যক্ষ করতে হয়। মানুষের সমস্যার কথা তুলে ধরার দায়িত্ব পালন করতে হয়। অনেক বাধা-বিপত্তির মধ্যে তাদের দিন যায়। ক্ষমতাধরদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সাহসিকতার সঙ্গে এগিয়ে যেতে হয়। অভাব-অনটনের ভেতর শিরদাঁড়া সোজা করে দাঁড়াতে হয়। পরিশ্রম করতে হয় অনেক। সততা নীতি ও আদর্শ নিয়ে যারা সাংবাদিকতা করেন অর্থাভাব তাদের নিত্য সঙ্গী। টানাপড়েনের ভেতর দিয়ে তাদের চলতে হয়। সংসার চালানো তাদের জন্য বড় কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। দরিদ্রের ঘেরাটোপে বন্দি থেকে তাদের জীবন কাটাতে হয় । অনেক ব্যতিক্রম চিত্রও আমরা দেখতে পাই। অযোগ্য অর্বাচীন কিছু মানুষের পদচারণায় কলঙ্কিত হতে দেখা যায় বাংলাদেশের সাংবাদিকতার গৌরবময় জগৎ। কোনো মহৎ উদ্দেশ্য থেকে নয় অর্থ কামানোর এবং সমাজে প্রভাব তৈরি করার ইচ্ছে থেকে অনেকে এ পেশার সঙ্গে যুক্ত হন। ভুঁইফোড় সংবাদ মাধ্যমের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তারা নানা ধান্ধাবাজি করে । নানা রকম অপতৎপরতায় লিপ্ত থাকে। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে টার্গেট করে সংবাদ পরিবেশনের হুমকি দেয়। ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে দেদার অর্থ আদায় করে। খুব অল্প সময়ের মধ্যে এরা অর্থ-সম্পদের মালিক হয়ে যায়। এবং একই ধরনের কিছু সংখ্যক ব্যক্তি মিলে গড়ে তোলে সাংবাদিক সিন্ডিকেট। এদের পড়াশোনা ও মেধার ঘাটতি থাকে। সাংবাদিকতার সঠিক সংজ্ঞাও এরা জানে না। দুয়েকজন সাংবাদিকের সঙ্গে এরা সুসম্পর্ক তৈরি করে। এবং তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত লিখিত নিউজ কপি করে সংবাদ মাধ্যমে প্রেরণ করে। অজ্ঞতা অনেক থাকলেও এরা সাংবাদিকতার তকমা পরে ঘুরে বেড়ায়। লেখালেখির দক্ষতা এদের একেবারেই ক্ষীণ। শুদ্ধভাবে একটি বাক্য লেখার ক্ষমতা অনেকেরই নেই। এদের কারণে সাংবাদিকতা পেশার মর্যাদা নষ্ট হচ্ছে। কলুষিত হচ্ছে সাংবাদিকতার জগৎ। এদের চিহ্নিত করার পাশাপাশি এই সব ব্যক্তির বিরুদ্ধে সবার রুখে দাঁড়ানো প্রয়োজন। সাংবাদিকতার মর্যাদা অক্ষুণ্ন ও সমুন্নত রাখার জন্য সাংবাদিকদেরই পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। এবং সাংবাদিকদের উচিত এদের অসহযোগিতা করা। ভুয়া সাংবাদিকদের নির্ম‚ল করার জন্য মোক্ষম ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি । বর্তমানে বাংলাদেশের আধুনিক সাংবাদিকতায় বৈপস্নবিক পরিবর্তন স‚চিত হয়েছে। আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে সংবাদ মাধ্যমের গুরুত্ব অপরিসীম। সংবাদ মাধ্যম এখন ডিজিটাল যুগে পৌঁছে গেছে। প্রযুক্তির ব্যবহার সংবাদ মাধ্যম ও সাংবাদিকতার বাঁক পরিবর্তন করেছে। সাংবাদিকতা গণমুখী হয়েছে। জনপ্রিয় হচ্ছে অনলাইন সাংবাদিকতা। দেশে এখন অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের সংখ্যা অনেক। প্রায়ই নতুন নতুন সংবাদমাধ্যম আত্মপ্রকাশ করছে। পাঠক এখন খুব সহজে অল্প সময়ের ভেতর জানতে পারে ঘটে যাওয়া যে কোনো ঘটনার খবর। অপেক্ষা করতে হয় না। আগে অপেক্ষা করতে হতো। আগের দিনের ঘটনা জানা যেত পরের দিনের পত্রিকায়। এখন সময় বদলে গেছে। পাল্টে গেছে সংবাদপত্রের দীর্ঘদিনের প্রচলিত ধারা। বৈচিত্র্য এসেছে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে। আধুনিক সাংবাদিকতায় নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে। একটি পত্রিকা কিংবা সংবাদমাধ্যম এখন পাঠকদের চাহিদা মেটাতে পারে। বিভিন্ন বিভাগ সংযোজিত হচ্ছে সংবাদ মাধ্যমে। সম্পাদকীয়, উপসম্পদকীয়, ফিচার কলাম, খেলাধুলা, বিনোদন, সাহিত্য, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সহায়ক বিষয় গুরুত্বসহকারে সংবাদ মাধ্যমে উপস্থাপিত হচ্ছে। গতানুগতিক দৃষ্টিভঙ্গির ও সাংবাদিকতার পুরনো ধাঁচ থেকে বেরিয়ে সংবাদ মাধ্যমগুলো আধুনিক, অনবদ্য দৃষ্টিভঙ্গি এবং নান্দনিকতায় পরিপুষ্ট হয়ে উঠেছে। সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এখন ইন্টারনেট ব্যবস্থা যুক্ত হয়েছে। ফলে পৃথিবীর যাবতীয় দৈনন্দিন ঘটনাবলি মুহ‚র্তে জানার সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে । বিশ্বের চলমান পরিস্থিতির সার্বিক চিত্র আমরা সহজেই দেখতে পাই। অনেক প্রতিক‚ল পরিবেশে প্রতিবেশের মধ্যে বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যমগুলো সর্বদাই গণমানুষের কথা তুলে ধরছে। সংবাদ মাধ্যমগুলো ক্ষুরধার লেখনী ও প্রচার এবং প্রকাশের মাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠতা ও ন্যায় পরায়নতার পরিচয় দিচ্ছে । আমাদের দেশে বর্তমানে স্বাধীন ও মুক্তচিন্তার সাংবাদিকতার পাশাপাশি দলীয় সাংবাদিকতাও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক ঘটনাবলি, দলীয় দর্শন, সাংগঠিক সংবাদ ও কলাম বিশেষভাবে পরিবেশিত হচ্ছে । সাংবাদিকদের মুখ্য উদ্দেশ্য হলো সাংবাদিকতাকে অবলম্বন করে জন মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য ভ‚মিকা রাখা। সে কারণে গণমাধ্যমকে জনগণে ভরসার শেষ ঠিকানা মনে করেন। বাংলাদেশে সাংবাদিকতার ইতিহাসে সাংবাদিকদের ওপর বিভিন্ন সময় চালানো হয় জেল-জুলুম-নির্যাতন, অত্যাচার-নিপীড়ন। সাংবাদিক হত্যার ঘটনাও নতুন নয় । আইনি জটিলতাও মুক্ত সাংবাদিকতায় বাধা সৃষ্টি করছে। এ সব বন্ধ করতে হলে একত্রিত হতে হবে। সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রচেষ্টা চালাতে হবে। নিজেদের মধ্যে বিভাজন দ‚র করতে হবে। তা না হলে সমস্যা থেকেই যাবে। কেবল সংঘবদ্ধভাবে এ সব সমস্যার উত্তরণ ঘটাতে সম্ভব। মুক্ত সাংবাদিকতার চর্চাকে বাধাহীন করতে হলে এবং সাংবাদিকদের সুরক্ষা ও সব ধরনের সংকট নিরসনের জন্য সব সাংবাদিকদের এক সারিতে দাঁড়াতে হবে। তাহলেই পরিশুদ্ধ সাংবাদিকতার পরিবেশ সৃষ্টি করা যাবে। এবং মুক্ত সাংবাদিকতা চর্চার ক্ষেত্রে অবদান রাখার উদাহরণ সৃষ্টি করা সম্ভব হবে। অস্বীকার করার জো নেই বাংলাদেশ একটি অপরাধপ্রবণ দেশ এবং যথাযথ প্রতিবেদন সংবাদপত্রে প্রকাশের কারণে অপরাধ প্রবণতা কমে বলে ধারনা করা হয়। পাশাপাশি উন্নয়নম‚লক ও মানবিক কাজ প্রকাশের মাধ্যমে ভাল কাজে মানুষকে উৎসাহী করা হয় । আমরা চাই, সমাজের আয়নায় পরিণত হোক সাংবাদিকদের লেখনি, যা দেখে মানুষ সচেতন হবেন। তাদের লেখা-পড়ে মানুষ ভাল কিছু শিখবেন, উৎসাহিত হবেন, ভাল কাজ করতে অনুপ্রেরণা পাবেন। পাশাপাশি অপরাধম‚লক সংবাদ পড়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন যাতে সমাজে একটি ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয় । দেশের প্রতিটি অঞ্চলের অন্যায়, অত্যাচার, বঞ্চনা, শোষণের বিপক্ষে সাংবাদিকের কলম ও ক্যামেরা যথাযথ কাজ করুক ও ভাল কাজের প্রশংসার বাস্তব ছবি ফুটে উঠুক, দেশ ও সমাজ উপকৃত হোক।

 

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here