দ্বিতীয় পর্বের আয়োজকদের কাছে বিশ্ব ইজতেমার ময়দান হস্তান্তর

0
15
728×90 Banner

জাহাঙ্গীর আকন্দ : গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান বলেন, আজকে যদিও আমরা প্রথম পর্বের আয়োজকদের কাছ থেকে মাঠ বুঝে নিলাম, কিন্তু কার্যত গতকাল (সোমবার) পর্যন্ত মাঠে জেলা প্রশাসনের নজরদারি ছিল। আমারা দেখেছি ব্যবহার্য জনিত কোনো অসুবিধা হয়েছে কিনা। সেগুলো রিপেয়ার করে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা আয়োজকদের যাতে কোনো ধরনের অসুবিধা না হয় সে সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রথম পর্বের আয়োজনকারী নেতৃবৃন্দ এখানে উপস্থিত রয়েছে। তাদের কাছে আমরা আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করতেছি যে, তারা আমাদের সহযোগীতা করেছেন। আশা করছি সকলের সহযোগীতায় আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্বিতীয় পর্বের আয়োজনকারীদের জন্য সুষ্ঠু সুন্দরভাবে বিশ^ ইজতেমা আয়োজন ও সম্পন্ন করতে সক্ষম হবো।
গতকাল মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারী) বেলা ১১ টায় গাজীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আনিছুর রহমান ইজতেমা মাঠে উভয় পক্ষের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে প্রথম পক্ষের কাছ থেকে গ্রহণ এবং দ্বিতীয় পক্ষের আয়োজকদের কাছে (হস্তান্তর অনুষ্ঠানে) তিনি এসব কথা বলেন। তবে বিশ^ ইজতেমার প্রথম পর্বের আয়োজনকারী ছিলেন মাওলানা জোবায়ের পন্থি অনুসারিগন। তারা গত ১৩, ১৪ এবং ১৫ জানুয়ারী তিনদিন ইজতেমা সম্পন্ন করেছে। এ বছরে কোনো সমস্যা হয়নি।
তিনি আরো বলেন, আয়োজন শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির পক্ষে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে ইজতেমা প্রথম আয়োজনকারীদের কাছ থেকে নির্ধারীত ১১ টার সময় মাঠ হস্তান্তর কার্যক্রম শুরু করে সকল বিষয় আমরা বুঝে নিয়েছে। দুপুরে আগামী পর্বের আয়োজকদের কাছে (মাওলানা সাদ কান্ধলভির) নিকট মাঠ বুঝিয়ে দিয়েছি।
মাওলানা জোবায়ের অনুসারীর পক্ষে প্রকৌশলী মাহফুজ, নাদিম হাসান এবং মিডিয়া সমন্বয়কারী জহির ইবনে মুসলিমসহ নেতৃবৃন্দ।
সা’দ পন্থী তাবলীগ সুরা সদস্য মাওলানা ওয়াসিফ জানান, মঙ্গলবার দুপুরে আমারা জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে ইজতেমা মাঠ বুঝে নিয়েছি। বুধবার থেকে আমাদের তাবলীগ সাথীরা মাঠে জমায়েত হতে থাকবেন। এর আগেই পুরো মাঠ গুছিয়ে নেয়া হবে ইনশাল্লাহ।
হস্তান্তর অনুষ্ঠানে মাওলানা সাদ কান্ধলভি অনুসারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ময়দানের জিম্মাদার ইঞ্জি: মহিবুল্লাহ, ডাক্তার আব্দুছ ছালাম, রেজাউল করিম, মোহাম্মদ সায়েম, মিজানুর রহমান ভাই তানভীর, হাজী মনির হোসেন।
গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ জানান, ইজতেমায় জরুরী পরিচ্ছন্নতা সেবা প্রদানের জন্য গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সার্বক্ষণিক গার্বেজ ট্রাকসহ প্রায় ৬০০ পরিচ্ছন্নকর্মী মোতায়েন রয়েছে। ইজতেমা ময়দানের দক্ষিণ পাশে তুরাগ নদীর তীরে বর্জ্য ফেলার জন্য অস্থায়ীভাবে ড্যাম্পিং পয়েন্ট তৈরি করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় ব্লিসিং পাউডারসহ অন্যান্য উপকরণ মজুত রয়েছে।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তাসহ সার্বিক বিষয়ে প্রথম পর্বে যে ব্যবস্থা ছিল একই ব্যবস্থা থাকবে। আগামী শুক্রবার (২০জানুয়ারী) থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় পর্বের মাওলানা সাদ কান্ধলাভি অনুসারীদের বিশ্ব ইজতেমা এবং তা চলবে রবিবার (২২ জানুয়ারী) পর্যন্ত।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here