নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের দাবি নাগরিক মঞ্চের

0
72
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : আজ ২৬ ডিসেম্বর সকালে বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদের হলরুমে নাগরিক মঞ্চের আত্মপ্রকাশ উপলক্ষে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল, আলেম ওলামাসহ সকল রাজবন্দীদের মুক্তি ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের দাবিতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক আহসান উল্লাহ শামীম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, মেজর জেনারেল ও রাষ্ট্রদূত (অবঃ) আমসাআ আমিন সভাপতি নৈতিক সমাজ। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের চেয়ারম্যান ও নাগরিক মঞ্চের সমন্বয়ক মোঃ মাসুদ হোসেন, বাংলাদেশ সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম, বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টির চেয়ারম্যান অধ্যাপক বাজলুর রহমান আমিনী, নৈতিক সমাজের উপদেষ্টা মেজর (অবঃ) মুজিবুল হক, বাংলাদেশ স্বাধীন পার্টির চেয়ারম্যান মির্জা আজম, বাংলাদেশ ইসলামি জনতা পার্টির চেয়ারম্যান শেখ ওসমান গনি বেলাল, বাংলাদেশ ইসলামিক সমাজতান্ত্রিক দলের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান, জাগপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নববই’র গণআন্দোলনের নেতা আসাদুর রহমান আসাদ, সুশীল ফোরামের সভাপতি মোঃ জাহিদ, দেশপ্রেমিক নাগির পার্টির মহাসচিব ডা. মোঃ শওকত হোসেন, নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোঃ শামসুদ্দিন, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, বাংলাদেশ আইডিয়াল পার্টির চেয়ারম্যান কে এম ইব্রাহিম খলিল, মফস্বল সাংবাদিক পরিষদের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন, বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের মহাসচিব ডা. মোঃ মাসুম হোসাইন, শ্রমিক অধিকার পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী, বাংলাদেশ মুসলিম সমাজের প্রেসিডিয়াম সদস্য আসাদুল্লাহ দেওয়ান, মোঃ মনির হোসেন প্রমুখ।
উক্ত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ২০০৮ সালে ১/১১ সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় নির্বাচনের মাধ্যমে বর্তমান অবৈধ ও অগণতান্ত্রিক সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করার পর থেকে দেশবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত এবং তারই চক্রান্তের অংশ হিসেবে বিডিআর বিদ্রোহের মাধ্যমে ৫৪ জন দেশপ্রেমিক সেনা অফিসারকে হত্যা করে আমাদের সীমান্তকে অরক্ষিত করে। পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ শক্তির ধুয়ো তুলে জাতিকে বিভক্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয় এবং তারই প্রমাণস্বরূপ শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের নামে ইসলাম ও ধর্মীয় মূল্যবোধ বিরোধী মঞ্চ তৈরী করে দেশের জনগণের হৃদয় মনে রক্তক্ষরণ সৃষ্টি করে। দেশের শ্রেষ্ঠ আলেম-ওলামাদের সমন্বয়ে সর্বস্তরের জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণআন্দোলন গড়ে তুলে। তখনই এই অগণতান্ত্রিক সরকার আন্দোলনকে নস্যাৎ করার লক্ষ্যে রাষ্ট্রযন্ত্রকে অবৈধ ব্যবহার করে এবং এরই ধারাবাহিকতায় একের পর এক রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। আপনারা অবগত আছেন যে, ১৯৯৬ সালে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হয়। যাহা দেশে-বিদেশে গ্রহণযোগ্যতা পায়। অত্যন্ত দূর্ভাগ্যের বিষয় বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার যখন বুঝতে পারে যে, জনগণ তাদের এই দেশবিরোধী কর্মকাণ্ড জেনে গেছে ও নির্বাচনে তাদের ভরাডুবি হবে। তৎক্ষণাৎ তড়িঘড়ি করে আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিলুপ্তি করে নিজেদের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করে। ২০১৪ সালে দেশের সকল রাজনৈতিক দল দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের বিরোধীতা করে। রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও তারা রাষ্ট্রযন্ত্রকে অবৈধভাবে ব্যবহার করে জনগণকে জুজুর ভয় দেখিয়ে একতরফা নির্বাচন করে ১৫৪টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত করে। বাকি আসনগুলিতে ১ শতাংশেরও কম ভোটার উপস্থিত হয়। আপনারা দেখেছেন ভোট কেন্দ্রগুলোতে কুকুর ঘুমিয়ে ছিল এবং গবাদি পশু বিচরণ করেছিল। তথাপিও তারা সেই অবৈধ নির্বাচনকে বৈধতা দিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতাকে ধরে রেখে একের পর এক দেশ বিরোধী চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে। দেশে আজ দুর্নীতির মহোৎসব চলছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের ছত্রছায়ায় দুর্নীতিবাজরা ব্যাংক-বীমা, শেয়ার বাজার থেকে বিভিন্ন ভূইফোড় কোম্পানীর নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করে দিয়েছে। আপনারা ইতিমধ্যেই জেনেছেন কানাডা, মালয়েশিয়ায় বেগমপাড়া গড়ে তুলেছে। দেশে মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা দুর্নীতি চলছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করে জনগণের বাক-স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছেন। অপহরণ, গুম-খুন, মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরোধী মত দমনের চেষ্টা করছে। ইতিমধ্যেই আপনারা আয়নাঘর কেলেঙ্কারির মাধ্যমে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ গোয়েন্দা সংস্থাকে বিতর্কিত হতে দেখেছেন। কুইক রেন্টালের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল বৃদ্ধি করেও জনগণকে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিতে ব্যর্থ হয়েছে। অন্যদিকে তাদের নতজানু পররাষ্ট্র নীতির কারণে ১৫ লক্ষ রোহিঙ্গাদের ঘানি রাষ্ট্র বহন করে চলেছে। সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার কথা বললেও আজ তা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। দেশের অভ্যন্তরে সরকারদলীয় নেতাদের অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদীতে ব্যাপক ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। সরকার নদী ভাঙন রোধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। যার ফলে নদীর তীরবর্তী হাজার হাজার মানুষ উদ্বাস্তু হয়ে শহরে বিভিন্ন জায়গায় ছিন্নমূল জীবনযাপন করছে। অন্যদিকে শহরে বসবাসকারী সাধারণ নাগরিক ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। সরকার বারবার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করে জনগণকে নতুন গ্যাস সংযোগ দিতে ব্যর্থ হয়েছে। গৃহস্থ থেকে কলকারখানায় এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্ধ্বগতি জনগণের ক্রয় ক্ষমতায় বাইরে চলে গেছে।
বর্তমান সরকার সুষ্ঠভাবে দেশ পরিচালনায় সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ। ক্ষমতা গ্রহণের পর অপহরণ-গুম-খুনের মতো জঘন্য কর্মকান্ড করে এতোটি বছর পার করেছে। এ সরকারকে আর এক মুহুর্ত সময় দেয়া যায় না। আজ দেশের রিজার্ভ শূন্যের কোঠায় পৌঁছে গেছে। বিদেশীরা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। আইএমএফ ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রেও অনিহা প্রকাশ করছে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না।
গুম হওয়া পরিবারগুলোতে শোকের মাতম চলছে। তাদের দেখার মতো কেউ নেই। অসংখ্য মায়ের বুক খালি করা হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে দেশে এতিমের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। সরকার একদলীয় শাসন জারি রাখতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নামে কালো আইন করে মানুষের বাক স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে। অনতি বিলম্বে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। আজ সকল বিরোধী মতের নেতৃবৃন্দ একটি দাবিতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে তাহলো নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন। একটি গ্রহণযোগ্য জাতীয় নির্বাচনের মধ্য দিয়েই দেশের এই অচলাবস্থার নিরসন সম্ভব বলে আমরা মনে করি।
দেশে আজ নীরব দুর্ভিক্ষ চলছে। অপরদিকে সরকার জনগণের সীমাহীন দুর্ভোগ লাঘবের পরিবর্তে আগাম দুর্ভিক্ষের ভয় দেখাচ্ছে। সরকারদলীয় নেতাদের ছত্রছায়ায় কিশোর গ্যাংয়ের জন্ম নেয়ায় সারাদেশে মাদকদ্রব্যে সয়লাব হয়ে গেছে। ফলে পারিবারি ও সামাজিক বিশৃঙ্খলা দেখে দিয়েছে। দেশের এই দূরাবস্থা ও ক্রান্তিকালে সর্বস্তরের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমে এই ফ্যাসিবাদী সরকারের পতন ঘটানো ছাড়া বিকল্প কোন পথ নেই। আর এই উপলব্ধি থেকেই নাগরিক মঞ্চের আত্মপ্রকাশ ঘটলো।
নিম্নোক্ত দাবিগুলো বাস্তবায়নের পক্ষে জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
১. নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে হবে। দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন পদ্ধতি বাতিল করতে হবে।
২. বিরোধী দলীয় সকল রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।
৩. দেশের জাতীয় আলেমসহ সকল আলেম ওলামাদের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।
৪. গুম, হত্যা, ধর্ষন, নির্যাতন বন্ধ করতে হবে। বাকস্বাধীনতা হরণকারী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। সুশাসন, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
৫. গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির বিল কমাতে হবে। নিত্যপ্রয়োজনী দ্রব্যমূল্য জনগনের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে।
৬. সড়ক, নৌ, আকাশপথ ব্যবস্থা নিরাপদ করতে হবে। ব্যাংক-বীমা, শেয়ারবাজার, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সড়ক-রেল, আকাশ যোগাযোগ খাতে অনিয়ম দূর্নীতি বন্ধ করতে হবে। নদী ভাঙ্গা, ভূমিহীন, ভবঘুরে ভাসমানদের পূনর্বাসন করতে হবে।
৭. প্রবাসী শ্রমিকদের নিরাপত্তা ও চাকরির নিশ্চয়তা দিতে হবে। নিত্য নতুন শ্রমবাজার সৃষ্টি করতে হবে।
৮. পাট, তাঁত, গার্মেন্টসসহ, বন্ধ কলকারখানা খুলে দিতে হবে। বেকারদের কর্মসংস্থান ব্যবস্থা করতে হবে।
৯. মাদক, জুয়া মুক্ত সমাজ ব্যবস্থা গঠন করতে হবে। রোহিঙ্গাদের স্বদেশ মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তন করতে হবে।
১০. সীমান্তে নির্যাতন হত্যা বন্ধ করতে হবে। পানির ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে হবে।
১১. রাজনৈতিক দল নিবন্ধন পদ্ধতি গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ, ১৯৭২ আইনে ৯০বি ধারা সংযুক্ত কালো আইন বাতিল করতে হবে।
নেতৃবৃন্দ সর্বশেষ ১১ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কর্মসূচির নিম্নরূপ- মানববন্ধন, নাগরিক সমাবেশ, গণমিছিল, গণঅবস্থান, সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের দাবিতে সংসদ অভিমুখে গণপদযাত্রা। এছাড়াও দেশের সর্ববৃহৎ বিরোধী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ঘোষিত ২৭ দফা কর্মসূচির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে রাজপথের আন্দোলনে দাবি আদায়ের ঘোষণা দেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here