পূবাইলের মেয়ে রুনু সর্বপ্রথম করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ায় আনন্দিত পরিবার ও এলাকাবাসী

0
129
728×90 Banner

মোঃ রাজীব হোসেন, পূবাইল, গাজীপুর: ‘খুবই সাহসি মেয়ে রুনু। করোনা যোদ্ধাও দেশে করোনা চিকিৎসার শুরুতে ছিল প্রথম সারিতে। প্রথম করোনার টিকা নিলে দেশে ইতিহাস হয়ে থাকবে। বাড়ি ও পরিবারের গর্ব হবে চিন্তা করেই আমরা ওকে প্রথম টিকা নিতে রাজি হতে বলি। আজ আমাদের পুরো পবিবার খুব খুশি এবং পূবাইলে বসবাসরত সকল শ্রেণীর লোকজন গর্বিত ও আনন্দিত। যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে রুনুর প্রতি অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। রুনুর বাড়িতে গেলে এসব বলছিলেন দেশের প্রথম করোনা ভাইরাসের টিকা গ্রহনকারী নারী কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনুর পরিবারের সদস্যরা।
গত বুধবার বিকেল থেকে যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অনেকেই শুভেচ্ছা জানিয়ে নিজেদের আনন্দের ব্যাপারটি জানান দিয়েছেন। মোঃ রাজিবুল হাসান নামের ফেসবুক আইডিতে লিখেছেন, করোনার প্রথম ভ্যাকসিন নিলেন আমাদের পূবাইলের সন্তান রুনু ভেরোনিকা কস্তা, জয় হক আমাদের বাঙ্গালী জাতির। রুনু ভেরোনিকা কস্তা গাজীপুর জেলার পূবাইল থানাধীন ৪২নং ওয়ার্ডের পদহারবাইদ এলাকায় বার্নাড কস্তার মেয়ে।
হাশি মুখে রুনুর মা বিনীতা কস্তা জানান ‘সকালেও মেয়ে ফোন করে প্রার্থনা করতে বলেছে। বাড়ির অন্যদেরও প্রার্থনা করতে বলেছে। যাতে কোন বিপদ না হয়। ওর সাহস আছে, ভয় পাবেনা। তারপরও একদম টেনশন না করতে বলেছি। বাড়ির ছোট-বড় সবাই ওর জন্য প্রার্থনা করেছি। মেয়েকে ঈশ^রের কাছে সপে দিয়ে যা ভালো হয়, তাই করতে বলেছি’।
রুনু ভেরোনিকা কস্তা প্রাইমারী শেষ করেন বাড়ির পাশের ভাদুন মিশনারী থেকে। পরে মামার বাড়ি থেকে ১৯৯৮ সালে ঢাকার সাভারের সেন্ট যোসেফস হাই স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন। এরপর মানুষের সেবায় জীবনব্রতী হয়ে যোগ দেন কুমুদিনী নার্সিং স্কুল ও হাসপাতালে। চার বছরের নার্সিং ডিপ্লোমা শেষে ২০০২ সালে বেরিয়ে আসেন প্রশিক্ষিত নার্স হিসেবে।
ওই বছরই ঢাকার বেসরকারী ইউনাইটেড হাসপাতালে চাকুরি জীবন শুরু করেন। সরকারী নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ২০১৩ সালে যোগ দেন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে।
রুনুর বাবা কৃষক বানার্ড কস্তা বলেন, ‘মেয়ের ইচ্ছা ছিল ডাক্তার হওয়ার। পড়ালেখার বাইরে কিছুই বুঝত না। খেতে বসলেও এক হাতে বই থাকত। কোন পরীক্ষায় প্রথম ছাড়া দ্বিতীয় হয়নি। তাঁর ছিল অভাবের সংসার। খরচ চালাতে না পারায় অবশেষে নার্সিংয়ে যোগ দেয় মেয়ে’।
রুনুর প্রথম টিকা নেয়ার সুযোগ প্রসঙ্গে বানার্ড কস্তা জানান, ‘গত শুক্রবার সকালে স্বামী-সন্তানদের নিয়ে তাঁর বাড়িতে বেড়াতে আসে রুনু। শনিবার বিকেলে রুনু তাঁর মেয়ে নবম শ্রেণীর ছাত্রী প্রথা গমেজেকে (১৩) গান শিখানোর জন্য তার বড় ভাইয়ের ছেলে বাবুল ক্রুসের বাড়িতে যায়। সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে কুর্মিটোলা হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ ফোন করেন রুনুকে। বলেন, “কয়েক জনকে প্রথম টিকা নেয়ার প্রস্তাব দেন। কেউ রাজী হয়নি। তুমিতো সাহসী, তুমি প্রথম টিকা নাও’। প্রথমে ইতস্ত বোধ করলেও পরিবারের সকল সদস্যরা উৎসাহ দেয়। সবার উৎসাহে রাজি হয়ে যায় রুনু ভেরোনিকা। পরে টিকা নেয়ার বিষয়টি জানিয়েদেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে।
গর্বিত বাবা বানার্ড মেয়ের সাহসের বর্ণণা দিয়ে আরো বলেন, ‘দেশে করোনার সংক্রমনের শুরু দিকে প্রথম চিকিৎসা সেবা শুরু হয় কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে। প্রথম চিকিৎসা টিমে সুপারভাইজার ছিল রুনু। জীবনের ভয়ে আমরা তাকে টিমে থাকতে নিষেধ করেছিলাম। উল্টো আমাদের বুঝিয়ে ছিল ‘‘সেবার শপথ নিয়ে এ পেশায় যোগ দিয়েছি। ভয় পেলে চলবে কি করে’’। মেয়ে ডাক্তার হতে পারেনি তাতে কি, নার্স হয়ে মানুষের সেবা করতে পারছে তাই তিনি খুশি ও গর্বিত’। করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার পর রুনু ভেরোনিকা কস্তা জানান যে, আমি এখন শারিরীক ভাবে সুস্থ্য আছি এবং আমি সবাইকে নিরভয়ে টিকা নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 − 4 =