পোশাক শ্রমিকদের মাঠে নামিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করতে তারেকের নির্দেশ

0
195
728×90 Banner

একের পর এক কুট-কৌশলের আশ্রয় নিচ্ছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এবার পোশাক শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর ইস্যুকে কেন্দ্র করে তারেক রহমানের নির্দেশে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াও করার চেষ্টা করেছে। সাধারণ শ্রমিকদের উস্কে দিয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে শ্রমিক দলের নেতা নজরুল ইসলাম খানের পরোক্ষ ইন্ধনে রাজপথকে উত্তপ্ত করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
১৩ জানুয়ারি মজুরি কাঠামোর ছয়টি গ্রেড সংশোধন করে পোশাক শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর ঘোষণার পরও ১৪ জানুয়ারি ঢাকার বাইরের বেশ কিছু কারখানায় জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের কর্মীরা বিনা কারণে ফের রাস্তা অবরোধের চেষ্টা করে। তবে, পুলিশ অত্যন্ত ধৈর্য্য আর দক্ষতার সাথে তাদের সড়ক থেকে সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।
জানা যায়, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের নেতা নজরুল ইসলাম খানের সাথে ১৩ জানুয়ারি তারেক রহমান স্কাইপের মাধ্যমে যোগাযোগ করেন। এসময় তারেক রহমান শ্রমিক আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নজরুলকে দিক নির্দেশনা দেন। এছাড়াও জামায়াতে ইসলামীর অঙ্গ-সংগঠন শ্রমিক ফেডারেশনের কর্মীদেরও সংগঠিত করে এই আন্দোলনে শরিক করার জন্য নির্দেশ দেন তারেক রহমান।
এ প্রসঙ্গে শ্রমিক দল থেকে বহিষ্কৃত এক নেতা বলেন, যতটুকু জেনেছি তারেক রহমান শ্রমিক আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে নিতে নজরুল ইসলাম খানকে নির্দেশ দিয়েছেন। জামায়াতের অশিক্ষিত কর্মীদেরও মাঠে নামানোর জন্য বলেছেন। আসলে শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর পর যেসব শ্রমিকরা আন্দোলন করছেন তারা সরাসরি বিএনপি ও জামায়াতের সহযোগী সংগঠনগুলোর কর্মী। সাধারণ শ্রমিকরা এখন আর আন্দোলনে নেই। আমাকেও বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান এই আন্দোলনে সাহায্য করার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু আমি তা প্রত্যাখ্যান করেছি।
এর সত্যতা স্বীকার করে ‘ব্যান্ডো ইকো এ্যাপারেলন্স’ এর জসিম নামের এক শ্রমিক বলেন, আমাদের বেতন তো বাড়িয়েছে শুনলাম কিন্তু কেন যে আবার সবাই বের হয়ে আসল বুঝলাম না। তাই আমিও তাদের সঙ্গে বের হয়ে আসতে বাধ্য হয়েছি। দেখলাম যারা বিএনপি করে এমন লোকজন আন্দোলনে নেতৃত্ব দিচ্ছে। তাই আমি দ্রুত বাসায় চলে যাই।
আন্দোলনের প্রসঙ্গে বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘শ্রমিকদের মজুরি বোর্ডে বৈষম্য আছে বলে তাদের আন্দোলনে নামিয়েছে একটি কুচক্রী মহল। পোশাক শিল্পের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার লক্ষ্যে একটি মহল চক্রান্ত করছে। বৈষম্যের কথা বলে শ্রমিকদের উস্কানি দিয়ে, ভয়-ভীতি দেখিয়ে, কর্মবিরতি করতে প্ররোচিত করা হচ্ছে।’
উল্লেখ্য, শ্রমিকদের বেতন নিয়ে বেশ কিছু দিন ধরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে আসছেন। তবে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের নেতা নজরুল ইসলাম খান এই আন্দোলনকে সংগঠিত করতে মূল ভূমিকা পালন করছেন বলে জানা যায়। আর পর্দার অন্তরালে তারেক রহমানের নির্দেশ অনুসরণ করে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল পোশাক কর্মীদের উস্কানি দিয়ে কর্মবিরতি পালন করতে প্ররোচিত করছে বলেও নিশ্চিত হওয়া গেছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here