প্রচলিত গণতন্ত্র, ভোট ও ইসলামি খেলাফত ব্যবস্থার দৃষ্টিভঙ্গি—মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী

0
21
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : ঐতিহাসিক সূত্রে খৃষ্টপূর্ব ৫০ ও ৪র্থ শতকে গ্রীক ভাষাভাষী রাষ্ট্রগুলোতে সাম্যের নীতি অনুসারে রাষ্ট্রশাসনে সর্বপ্রথম গণতন্ত্রের উন্মেষ ঘটলেও বর্তমান বিশ্বের ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র বা দেশগুলোর মধ্যে প্রচলিত গণতন্ত্রের ধারা অনেকটাই ভিন্নতর। পিউরিট্যান বিপ্লব, মার্কিন স্বাধীনতা ও ফরাসী বিপ্লবের প্রভাবে আধুনিক গণতন্ত্রের প্রসার ঘটে। জন লক, জে জে রূশো, ও টমাশ জেফারসন গণতন্ত্রবাদের প্রভাবশালী তাত্ত্বিক ছিলেন। প্রথমে রাজনৈতিক ও পরে আইন সম্পর্কীয় সমান অধিকারের দাবী উত্থাপনের ফলে গণতন্ত্র বর্ধিত হয়। পরবর্তীকালে সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাম্যের দাবিও গণতন্ত্র সম্প্রসারণের সহায়ক হয়। প্রতিযোগিতাশীল রাজনৈতিক দলসমূহের অস্তিত্বের উপর আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নির্ভরশীল। কারণ প্রচালিত গণতন্ত্রে জনগণ কর্তৃক প্রতিনিধি নির্ধারণের জন্য নির্বাচন অপরিহার্য , আর নির্বাচনের জন্য প্রতিযোগিতাশীল রাজনৈতিক দলসমূহের অস্তিত্ব আবশ্যক। বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দার্শনিক চিন্তাধারার জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষ ও সমাজতন্ত্রের সংখ্যা ও দৃষ্টিকোণ উল্লেখিত বিশ্ব মনিষীগণ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা।
প্রচলিত গণতন্ত্রের একটি প্রধানত দিক হলো যেকোন দল নির্বাচনে অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জনগণের ভোটে বিজয় হয়ে সরকার গঠন করার প্রত্যাশা জনগণের সম্মুখেই ব্যক্ত করে। এছাড়াও দল জনগণের ভোটে বিজয় হয়ে সরকার গঠন করার সুযোগ পেলে দেশ ও জাতির কল্যাণে কি কি কাজ করবে তা দলীয় নির্বাচনী ইশতেহারে সুস্পষ্ট উল্লেখ করার মাধ্যমে ইশতেহারের পক্ষে জনগণের রায় (ভোট) আদায় করার চেষ্টা করে থাকে। উল্লেখ্য ইসলামে জনগণের ক্ষমতায়নের বিষয়টি সরাসরি শব্দগত সমর্থন না করলেও রাজনৈতিক ( সিয়াসত ) ভাষায় ব্যাপক অর্থে জনগণকে ধর্ম, দেশ ও কল্যাণকর বিষয়ে উদ্বুদ্ধ এবং মতামত আদায় করার তাগিদ রয়েছে। দাওয়াতী কাজের মূল দাবীই হলো আল্লাহ তা’য়ালার বিধান তথা দ্বীন ইসলামের প্রতি মানুষকে উদ্বুদ্ধকরণ এবং ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রে ইসলাম প্রতিষ্ঠার কাজে আত্মনিয়োগ করার প্রচেষ্টা। প্রক্ষান্তরে মানুষ কিংবা জনগণের রায় বা মতামত ঘোষিত প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাধ্যমে দল, ধর্ম, অথবা কোন গোষ্ঠীর পক্ষে আদায় করার প্রক্রিয়াকে নির্বাচন বলা হয়। এই প্রক্রিয়ার সাথে ইসলামের কোন বৈরিতা আছে বলে ইতিহাসিকভাবে প্রমাণিত নয়। তবে কোন ব্যক্তি বা দল যদি সরাসরি ইসলামের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সেই ক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তি বা দলের দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার বিষয়ে ইসলামে বাধ্যবাধকতা আছে। প্রকাশ থাকে যে, বাংলাদেশে যেসকল রাজনৈতিক ইসলামি দল রয়েছে সেসকল দল ইসলামের কতটুকু প্রতিনিধিত্ব করে সে বিষয়ে ইসলামি চিন্তাবিদের মধ্যেও প্রচণ্ড মতানৈক্য লক্ষণীয়। তাছাড়াও আল্লাহ তা’য়ালার বিধান কিংবা কোরআনুল কারীমের বর্ণনা অনুযায়ী মানুষ আল্লাহ সোবহানাহু তা’য়ালার প্রকৃত প্রতিনিধি(খলিফা)। ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় জনপ্রতিনিধি নির্বাচন ও সংসদে আইন প্রণয়ন সবকিছুই সর্বজনীন। রাষ্ট্রের নাগরিককে ধর্মীয় দিক থেকে বিবেচনা নয় নাগরিক হিসেবে বিবেচনা করে তার মৌলিক অধিকার সুনিশ্চিত করাই রাষ্ট্রের মূল দায়িত্ব।
যেকোনো নির্বাচন সঙ্গত কারণেই গুরুত্ব বহন করে। যেমন- সমাজের শান্তি-শৃঙ্খলা, নীতি-নৈতিকতা, বিচার সালিশ, ন্যায্য অধিকার, সুস্থরাজনীতি, মানবিক মর্যাদা, সুশাসন, সাম্য, ধর্ম-বর্ণে সম্প্রীতি ও জনগণের প্রত্যাশিত জনপ্রতিনিধিত্ব প্রতিষ্ঠায় গণতন্ত্র ও ভোট বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আমরা যে প্রচলিত গণতন্ত্রিক পদ্ধতির নির্বাচন ও ভোট দেখছি বা অংশগ্রহণ করছি তা হলো গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থার অধীনে সরকার নির্বাচনের কিংবা বিভিন্নপর্যায়ে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার পদ্ধতি। তবে প্রচলিত গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা এবং ইসলামিক শাসনব্যবস্থার মধ্যে গুণগত দিক থেকে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। এছাড়াও জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করতে নির্বাচন অপরিহার্য প্রক্রিয়া। তাছাড়াও রাষ্ট্রের নাগরিকগণ ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে তাদের পছন্দের ব্যক্তিকে বাছাই করার সুযোগ পায় এবং নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে। প্রচলিত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় দল ও প্রার্থীদের জন্য ভোট হচ্ছে ক্ষমতায় যাওয়ার মোক্ষম পন্থা। এলাকার উন্নয়ন কাজ-কর্ম যার দ্বারা অধিকতর হবে বলে মনে করে মানুষ সাধারণত তাকেই ভোট দিয়ে থাকে। এমনকি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষেত্রেও রাস্তা-ঘাট ও ব্রীজ ইত্যাদি বিষয়ও মুখ্য হয়ে উঠে। ইসলামের দৃষ্টিতে ভোটের গুরুত্ব অপরিসীম। ইসলামে কাউকে ভোট দেওয়ার অর্থ খুবই ব্যাপক এবং সুদূর প্রসারী। পারিবারিক রাজনীতি, অন্যকে গালমন্দ করা, গীবত-শেকায়েত করা, নিজের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হওয়া, নেতা-নেত্রীর অন্ধ আনুগত্য, একে-অন্যের কোনো ভালই স্বীকার করতে না চাওয়া, নিজের অবাস্তব ও মিথ্যা অবদানের প্রচারণা, মিথ্যা অপবাদ-মিথ্যা প্রতিশ্রুতি, শুধুমাত্র ক্ষমতার লোভে আদর্শিক কোনো মিল না থাকা সত্ত্বেও জোটবদ্ধ হওয়া ও আদর্শিক শত্রুকেও জোটে নেওয়া, মনোনয়ন না পেলে রাতারাতি এত দিনের শত্রুকে বন্ধু বানিয়ে দলবদল করা, মনোনয়ন বাণিজ্য, অর্থ, পদবী ও রাষ্ট্রীয় সুবিধার প্রলোভন দেখিয়ে ভোট কেনা-বেচা এবং ভোটের পর হর্সট্রেডিং ইত্যাদি অনৈতিক বিষয় প্রচলিত থাকলেও ভোটে অংশগ্রহণের প্রয়োজনীয়তা সময়ের দাবিতে সমীচীন। সংক্ষেপে চলে ভোট হলো সুপারিশ, সাক্ষ্য, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, যুলুমের বিরুদ্ধে মযলুমের রায়, দাওয়াত, ঐক্যের সোপান, আমানতের সৎ ব্যবহারের প্রক্রিয়া, নেতা-প্রতিনিধি নির্বাচনের কৌশল, জনগণের সমর্থন আদায়ের মাধ্যম ও নাগরিকের মতামত বা পরামর্শ পাওয়ার ক্ষেত্র।
ইসলামি শাসনব্যবস্থার নাম হলো খেলাফত। খেলাফত সর্বপ্রথম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মদিনা নামক রাষ্ট্রে। আর এরাষ্ট্র পরিচালনায় মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাঃ পৃথিবির মধ্যে সর্বপ্রথম লিখিত সংবিধান প্রণয়ন করেন। উল্লেখ্য তিনিই পৃথিবীতে সর্বপ্রথম আধুনিক রাষ্ট্র-কাঠামোর প্রবর্তক এবং সর্বজনীন রাষ্ট্র ব্যবস্থারেও তিনি বিরল দৃষ্টান্ত। মদিনার সনদ, হুদাবিয়ার সন্ধি ও বিদায় হজ্বের ভাষণে যা পরিলক্ষিত। সর্বশেষ ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দে উসমানি খিলাফতের খলিফা দ্বিতীয় আব্দুল মজিদকে নির্বাসনের মধ্য দিয়ে কামাল আতাতুর্কের আনুষ্ঠানিক খিলাফত বিলুপ্তির ঘোষণা আসে। খিলাফতে নির্বাচন পদ্ধতি বহুমুখী। ইসলামের দৃষ্টিতে তিনটি (৩) বিষয়ের সমষ্টি, ১. সাক্ষ্য প্রদান ২. সুপারিশ ৩. প্রতিনিধিত্বের সনদ প্রদান। অর্থাৎ কোন প্রার্থীকে ভোট দেওয়া মানে ওই প্রার্থী ভালো এবং যোগ্য বলে আপনি সাক্ষ্য দিচ্ছেন। তিনি ভালো এবং যোগ্য বলে আপনি সুপারিশ করছেন। তিনি ভালো এবং যোগ্য বলে আপনি তার প্রতিনিধিত্বের বৈধতার সনদ প্রদান করছেন। ইসলামে প্রতিদ্বন্দ্বিদের পক্ষে-বিপক্ষে সাক্ষ্য দেওয়া, সুপারিশ করা, সনদ দেওয়া এ তিনটি জিনিসেই গুরুত্বপূর্ণ এবং স্পর্শকাতরও। তাই সর্বাধিক সতর্কতার বিকল্প নেই। ভোটের ক্ষেত্রে উল্লেখিত তিনটি বিষয় অত্যান্ত গুরিত্বপূর্ণ। আপনি যার পক্ষে সাক্ষ্য দিলেন বাস্তবেই যদি তিনি ভালো এবং যোগ্য হন এক্ষেত্রে আপনার সাক্ষ্যটা হবে সত্য সাক্ষ্য, অন্যথায় মিথ্যা। আর মিথ্যা সাক্ষ্য যে বড় গুনাহ ও হারাম( নিষিদ্ধ) কাজ।
সহিহ বুখারির একটি বর্ণনায় রয়েছে হযরত আবু বকর (রা.) বলেন যে, রাসুলুল্লাহ একদা এক জায়গায় হেলান দিয়ে বসা অবস্থায় তিনবার সাহাবীদেরকে জিজ্ঞাসা করলেন, আমি কি তোমাদেরকে কবীরা গুনাহগুলোর মধ্যে বড় কবীরা গুনাহের কথা বলব? সাহাবীরা হ্যাঁ সূচক উত্তর দেওয়ার পর তিনি বললেন, আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক করা, পিতা-মাতার অবাধ্যতা (এ দুটি কথা বলার পর তিনি সোজা হয়ে বসলেন) এবং বললেন, শুনে নাও! মিথ্যা সাক্ষ্য অনেক বড় কবীরা গুনাহ। বিখ্যাত হাদিস বিশারদ শামসুদ্দীন যাহাবী রাহঃ মিথ্যা সাক্ষ্যকে চারটি বড় গুনাহের সমষ্টি বলে আখ্যা দিয়েছেন। সেগুলো হলো ১. মিথ্যা সাক্ষ্য ২. যার বিরুদ্ধে সাক্ষী তার উপর জুলুম। ৩. যার পক্ষে মিথ্যা সাক্ষ্য তার উপরেও জুলুম। কারণ, সে যা কিছু পাওয়ার যোগ্য ছিল না মিথ্যা সাক্ষীর ফলে তাকে তার অধিকারী করা হলো এবং তাকে জাহান্নামের পথেও ঠেলে দেয়া হলো। ৪. মিথ্যা সাক্ষ্যদাতা একটি হালাল কাজকে হারাম বানালো। বাস্তবতা হচ্ছে ইসলামি শরিয়াহ দিয়ে বিবেচনা করলে প্রকৃতপক্ষে শতভাগ ভালো এবং যোগ্য প্রার্থী পাওয়াটাই দুঃসাধ্য। এছাড়াও নৈতিক অবক্ষয়ের সমাজের হাতেগোণা গুটিকয়েক ছাড়া ভালো এবং যোগ্য লোক খোঁজে বের করাই কঠিন। মন্দের ভালো যারা তারাও নির্বাচনে স্বতঃস্ফূর্ত অংশ নিতে স্বাচ্ছন্দবোধও করেন না। তাই ভোটারগণ মন্দের ভালোটাকেই বেচে নিয়ে থাকে এবং খারাফের মধ্যে যে একটু কম খারাপ তার পক্ষেই ভোট প্রদান ইসলাম সমর্থিত। এজন্যেই ভোটদানের অর্থ হবে যে লোকটি তার প্রতিদ্বন্দ্বিদের তুলনায় কিছুটা ভালো তাকেই সাক্ষ্যদান।
সাক্ষদানের সর্তকতা অবলম্বনে কোরআনুল মাজিদে পরিস্কারভাবে উল্লেখ রয়েছে, ‘হে ইমানদাররা, তোমরা আল্লাহর জন্য সাক্ষ্য প্রদানে ন্যায়ের ওপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে। যদি তা তোমাদের নিজেদের কিংবা পিতা-মাতা অথবা নিকটাত্মীয়দের বিরুদ্ধে হয়। যদি সে বিত্তশালী হয় কিংবা দরিদ্র হয়। তবে আল্লাহ উভয়ের ঘনিষ্ঠতর। সুতরাং ন্যায় প্রতিষ্ঠা করতে তোমরা প্রবৃত্তির অনুসরণ করো না। আর যদি তোমরা ঘুরিয়ে-পেঁচিয়ে কথা বল কিংবা (প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে) এড়িয়ে যাও, তবে জেনে রেখো তোমরা যা করো, আল্লাহ সে বিষয়ে সম্যক অবগত’। (সুরা নিসা : আয়াত ১৩৫)। এ ছাড়া পবিত্র কোরআন শরিফে আরো অনেক আয়াতে সত্য সাক্ষী প্রদানের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। অতএব যেকোনো নির্বাচনে প্রতিনিধি বা নেতা নির্বাচিত করতে অসৎ, অযোগ্য প্রার্থীকে ভোট প্রদান করলে তার জন্য মহান আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে নিশ্চিত। উক্ত বিষয়ে।আল্লাহ সোবহানাহু তা’য়ালা আরো বলেন, তোমরা সাক্ষ্য গোপন করো না। যে কেউ তা গোপন করবে, তার অন্তর পাপপূর্ণ হবে। তোমরা যা কর, আল্লাহ তাআলা সে সম্পর্কে জ্ঞাত। (সূরা বাকারা-২৮৩)
আমাদের জানা থাকা দরকার যে, ইসলামি খেলাফত পদ্বতিতে রাষ্ট্র ক্ষমতার জন্য শুধু নির্বাচন কিংবা ভোট নয়। নেতা, জনপ্রতিনিধি ও রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচনের পদ্বতি বহুবিধ। যেমন, নেতা কর্মীর দ্বারায়-জনপ্রতিনিধি জনগণ দ্বারায় নির্বাচিত হওয়া,শরিয়ার বিষয়বস্তু মানা ও “শূরা”( পরামর্শ) অনুশীলন ইত্যাদি। সর্বোপরি ভোট নাগরিক অধিকার। শাসনব্যবস্থায় ইসলামি অর্থে খেলাফত ভিত্তিক না থাকলেও কোরআনি শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশগ্রহণ এবং ভোট প্রদান ইসলাম অনুমোদন করে। প্রকাশ থাকে যে, বহুকাল ধরে ইসলামি বিধিবিধান সম্পর্কিত বিষয়ে কোরআন-সুন্নাহর আলোকে মুসলিম দার্শিকদের মধ্যে ঐক্যমতের ভিত্তিতে ইজতেহাদ( সমাধান) নেই। কোন ধর্মীয় পণ্ডিত গবেষণা করে চলমান বিষয়াদি নিয়ে মতামত দিলে তা নিয়েও বিশেষ করে বাহ্যদর্শি আলেম-ওলামাগণ স্বীয় লালিত ফেরকার দৃষ্টিকোণ থেকে নানাহ তর্কবিতর্ক করে থাকে।
এককথায় বলা চলে ইসলামে রাজ্য শাসন পদ্ধতি কি হবে তা নির্দিষ্ট। তা হল কুরআন-সুন্নাহর ভিত্তিতে রাজ্য পরিচালনা পদ্ধতি তথা ইসলামি খেলাফত পদ্ধতি। তবে সরকার প্রধান নির্বাচনের পদ্ধতির ক্ষেত্রে বাহ্যতঃ ইসলামে কয়েকটি পদ্ধতি পরিদৃষ্ট হয়। যথা-(১) পূর্ববর্তী খলীফা কর্তৃক পরবর্তী খলীফার মনোনয়ন। যেমন হযরত আবু বকর সিদ্দীক রাঃ তার পরবর্তী খলীফা হিসেবে হযরত ওমর রাঃ কে মনোনীত করে যান। উম্মতের সর্বসম্মত মতে এটা জায়েজ। তবে হযরত আবু বকর সিদ্দীক রাঃ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে পরামর্শক্রমে এটা করেছিলেন।( ২)খলীফা তার পরবর্তী খলীফা নির্বাচনের জন্য বিশেষ জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি বোর্ড গঠন করে দিয়ে যেতে পারেন, যেমন হযরত ওমর রাঃ তাঁর পরবর্তী খলীফা নির্বাচনের জন্য ছয় সদস্য বিশিষ্ট একটি বোর্ড গঠন করে দিয়ে যান। (৩)খলীফা তাঁর পরবর্তী খলীফা নির্বাচনের রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচনের বিষয়টি জনগণের উপর ছেড়ে দিয়ে যাবেন। তারপর জনগণই তাদের খলীফা নির্বাচিত করবে। যেমন হযরত উসমান রাঃ তাঁর পরবর্তী খলীফা নির্বাচনের বিষয়টি পরবর্তীদের উপর ছেড়ে দিয়ে যান। পরে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের পরামর্শক্রমে হযরত আলী রাঃ কে খলীফা হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। তবে মু’য়াবিয়ার সময়ে এসেই এই ধারাহিকতার অপমৃত্যু ঘটে। উল্লেখিত পদ্বতিটি কিন্তু সাহাবায়ে কেরাম প্রচলন করেন। সরাসরি রাসূলে কারীম রাউফুর রাহীম মুহাম্মদু রাসূল সাঃ কর্তৃক নির্দেশিত না। সুতারং প্রচলিত গণতন্ত্র, ভোট ও ইসলামি খেলাফত ব্যবস্থার দৃষ্টিভঙ্গি ধরণগত ভিন্ন হলেও একটি অপরটির সমর্থক।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here