প্রযুক্তি মাঠ ও চাষি পর্যায়ে না গেলে উদ্ভাবনে কোনও লাভ নেই : কৃষিমন্ত্রী

0
272
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, প্রযুক্তি আবিষ্কারের পর তা যদি মাঠ ও চাষি পর্যায়ে না যায়, তাহলে উদ্ভাবনে কোনও লাভ নেই । এ দায়িত্বটি কৃষি বিজ্ঞানীদেরকেই নিতে হবে। উদ্ভাবিত প্রযুক্তির কতটি চাষি পর্যায়ে পৌঁছেছে, তা দেখা উচিত। সেজন্য কৃষি বিজ্ঞানীদের সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।
রোববার গাজীপুরের বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গনে দুই দিনব্যাপী এক প্রযুক্তি প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সোমবার প্রদর্শনীটি শেষ হবে।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে ৪০ লাখ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদন হয়, আর আমদানি করতে হয় ৩৫ লাখ মেট্রিক টন। পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশ ঘটেছে, ফলে আমদানি করতে হচ্ছে।
আমরা আগামী তিন বছর পর এক টন ভুট্টাও আমদানি করবো না। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ডক্টর আবুল কালাম আজাদ এর সভাপতিত্ব অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসিরুজ্জামান, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডক্টর মদন গোপাল সাহা, ড. মো. আব্দুল ওয়াহাব ও ড. মোহাম্মদ লুৎফর রহমান প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, আগে কৃষি বিষয়ের শিক্ষার্থীরা শিক্ষক ও গবেষক হতে চাইতেন। বর্তমানে তারা চান ব্যাংক ও অন্যান্য পেশায় যেতে। এটি অনুধাবন করতে হবে। এ ধারণা পাল্টাতে হবে।
কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসিরুজ্জামান বলেন, ‘বাংলাদেশ সবজি উৎপাদনে বিশ্বে তৃতীয়। ২০০৬ সালে বাংলাদেশে ৪০ লাখ মেট্রিক টন সবজি উৎপাদন করতো। বর্তমানে উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৬০ লাখ মেট্রিক টনে। দেশে আগে ৫ লাখ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদন হতো, বর্তমানে তা দাঁড়িয়েছে ৩৮ লাখ মেট্রিক টনে। পরে কৃষিমন্ত্রী গাছের চারা রোপন করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here