প্রসঙ্গঃ এইচ এস সি পরিক্ষা বাতিল ও প্রাসঙ্গিক কিছু কথা

0
67
728×90 Banner

এস.এম.কামাল হোসেন: কোভিড১৯ এর মহামারি পরিস্থিতির বর্তমান পেক্ষাপটে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় এইচ এস সি -এর মতো গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক পরিক্ষা বাতিল করে সিদ্ধান্ত গ্রহন সময়োপযোগী।
জেএসসি ও এসএসসি পরিক্ষার রেজাল্ট মূল্যায়নের ভিত্তিতে রেজাল্ট তৈরি করার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই। হয়তো অনেকেই এই সিদ্ধান্তকে নিয়ে সমালোচনা করবেন এবং এই সিদ্ধান্তের বিপক্ষে যুক্তিসঙ্গত যুক্তি তুলে ধরবেন।
জেএসসি ও এসএসসি-তে GPA 5 প্রাপ্ত অনেক শিক্ষার্থী জেএসসি ও এসএসসি পাসই করতে পারে না।
বর্তমান পেক্ষাপটে পরিক্ষার মাধ্যমে ১০০ % মেধাভিত্তিক মূল্যয়ন ঝুঁকিপূর্ণ বিধায় বিশেষ পরিস্থিতিতে বিশেষভাবে স্পেশাল পদ্ধতিতে মূল্যায়ন কিছু সমস্যা থাকবে, গৃহীত সিদ্ধান্তের কারনে মনে হচ্ছে কিছু সমস্যা হলে সেটিও সহনশীল পর্যায়ে থাকবে। উপরোক্ত রেজাল্টের ভিত্তিতে মূল্যয়ন ও প্রচলিত পরিক্ষার মাধ্যমে মূল্যায়ন কখনো এক হবে না এটাই স্বাভাবিক কিন্তু কোভিড১৯ – এর বৈশ্বিক ও জাতীয় মহামারি দূর্যোগের এই কঠিন সময়ে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত কোমল মতি শিক্ষার্থীরা একজনও ফেল করছে না এই পদ্ধতিতে সেটি ১০০% নিশ্চিত।
কথা হলো, যদি সঠিক ও স্বচ্ছ পদ্ধতি তৈরি করে, নির্ভুল রেজাল্ট করা যায় সেক্ষেত্রে অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের জন্য মঙ্গলজনক হবে।
জেএসসি ও এসএসসি- তে খারাপ রেজাল্ট করে এইচএসসি – তে খুব ভালো রেজাল্ট করেছে এইরুপ শিক্ষার্থীদের সংখ্যা পূর্বে খুবই কম দেখা গেছে, অন্য দিকে এই পদ্ধতিতে পূর্বের দুইটি পাবলিক পরিক্ষায় ভালো রেজাল্ট করা শিক্ষার্থীদের খারাপ করার কোন সম্ভাবনা থাকবে না, যেটি পরিক্ষার মাধ্যমে মূল্যায়নে বেশি হয়েছে।
তাই আমি মনে করি,শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে শিক্ষার্থীদের জন্য মঙ্গলজনক পদক্ষেপ গৃহীত হয়েছে।
জোর দাবি জানাচ্ছি, একটি সুন্দর ও সঠিক পদ্ধতি তৈরি করে রেজাল্ট তৈরিকারীদের কঠিন জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে ১০০% নির্ভুল রেজাল্ট প্রকাশ করার, যাতে করে কোভিড১৯ এই বিরূপ পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত কোমলমতি একজন শিক্ষার্থীকে রেজাল্ট পরবর্তী বিড়ম্বনার শিকার হতে না হয়।
কোভিড১৯ এর বর্তমান কঠিন অবস্থার পেক্ষাপটে শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে ঝুঁকি না নিয়ে সরকারসহ শিক্ষামন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ এইচএসসি এর মতো গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক পরিক্ষা বাতিলসহ মাসের পর মাস সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।
অনলাইনে সকল শিক্ষা কার্যক্রম চালু রেখে শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠানে না এনে শুধু অফিস খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে।
কিন্তু কতিপয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন অজুহাতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদেরকে প্রায়ই প্রতিষ্ঠানে জড়ো করে তাদের ব্যবসাকে সুদৃঢ় রাখার চেষ্টা করছে এবং কতিপয় শিক্ষক নামধারী ব্যবসায়ী কোচিং চালু করে রেজাল্ট পাগল অভিভাবকদের মোটিভেশনে মাধ্যমে শিক্ষার্থীদেরকে ঝুঁকির সম্মুখীন করে তাদের ব্যবসা করে যাচ্ছে।
এমতাবস্থায় শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় এইচএসসি পরিক্ষা বাতিল অধিকাংশ জনমনে প্রশান্তির পরিবর্তে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করেছে।
স্থানীয় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষ ও সচেতন নাগরিকদের উপরোক্ত বিষয়ে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি না দিলে সরকারের শীর্ষস্থানীয় পর্যায় থেকে গৃহীত সুন্দর ও বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্তগুলো জনমনে আশার আলো সঞ্চয়ের পরিবর্তে হতাশা তৈরি করবে এবং বাস্তবতার আলোকে সময়োপযোগী সিদ্ধান্তসমূহ দায়িত্বশীলদের যথাযোগ্য ভূমিকার অভাবে ব্যর্থতায় পর্যবসিত হবে।
লেখক : এস,এম,কামাল হোসেন
( সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তি )
সাধারণ সম্পাদক
টঙ্গী কালচারাল সোসাইটি।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here