ফকির আলমগীর বেঁচে থাকবেন বাংলার মানুষের মনিকোঠায় : সৈয়দ আবুল হোসেন

0
63
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : দেশের কিংবদন্তি গণসংগীত শিল্পী, বিশিষ্ট মুক্তিযােদ্ধা ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে গভীর শােক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন বলেন, দেশের এই ক্ষনজন্মা ব্যক্তিত্ব ফকির আলমগীর তার গানের মধ্য দিয়ে চিরদিন বেঁচে থাকবেন বাংলার মানুষের মনিকোঠায়। তাঁর মৃত্যু দেশের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।
এক শোক বার্তায় তিনি বলেন, “মায়ের এক ধার দুধের দাম নিয়ে গান গাওয়া শিল্পী ফকির আলমগীর নেই ভাবতেই মন খারাপ হয়ে যায়। আমি মহান আল্লাহর কাছে মােনাজাত করি, আল্লাহ তায়ালা যেন তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করেন। তিনি আরও বলেন, ফকির আলমগীর ছিলেন এক বর্নাঢ্য ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ। তিনি ছিলেন গণসংগীত শিল্পী। একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা। একজন বীর মুক্তিযােদ্ধা।

উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ এবং নব্বইয়ের সামরিক শাসন বিরােধী আন্দোলনের এক উজ্জীবিত কণ্ঠস্বর। স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সংগে দেশজসুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপ গানের অন্যতম প্রবর্তক।
সৈয়দ আবুল হোসেন বলেন, ফকির আলমগীর ছিলেন উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় এম. এ ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি একজন লেখক। বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে গণসংগীতের উন্নয়নেও বিশেষ অবদান রেখেছেন তিনি।
সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী আরও বলেন, ফকির আলমগীরকে আমি ব্যক্তিগতভাবে জানি। তিনি একজন ভালাে মানুষ ছিলেন। তিনি আমার আমন্ত্রণে আমার জন্মস্থান কালকিনিতে একাধিকবার স্বউদ্যোগে গান পরিবেশন করেছেন। তিনি গানের জগতে ছিলেন এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। সংগীতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ১৯৯৯ সালে একুশে পদক পান।
সৈয়দ আবুল হোসেন বলেন, আমি ফকির আলমগীরের রুহের মাগফিরাত কামনা করি। তার শােকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজন, আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও শুভানুধ্যায়ী ও অগনিত ভক্তকুল সকলের প্রতি সমবেদনা জানাই। পরম করুনাময় আল্লাহ আমাদের সবাইকে এই শােক বইবার তৌফিক দিন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

13 + eight =