ফেরিতে ভিড়ের চাপে ৫ জনের মৃত্যু: বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে ৩ জন নিহত

0
30
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : মাদারীপুরের বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের পদ্মানদীতে একটি রোরো ফেরিতে ভিড়ের চাপে ৫ জনের মৃত্যু ও নরসিংদীর শিবপুরে বাস-মাইক্রোবাস মুখোমুখী সংঘর্ষে এক নারীসহ তিনজন নিহত ও ৫ জন আহত হয়েছেন।
ঈদের আনন্দ অবশেষে বিষাদে পরিণত হলো ঘরমুখো পরিবারে । পথের শত ভোগান্তি মাথায় নিয়েও ঘরে ফেরা হলো না তাদের।
বুধবার (১২ মে) দুপুরে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের পদ্মানদীতে একটি রোরো ফেরিতে আসছিল কয়েক হাজার যাত্রী। ফেরির যানবাহন রাখার খোলা জায়গায় তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। প্রখর রোদের তাপে ফেরি যখন বাংলাবাজার ঘাটের কাছাকাছি আসে তখনই অসুস্থ হয়ে পড়তে শুরু করে যাত্রীরা। পানির পিপাসা আর গরমে হাঁসফাঁস করতে থাকেন তারা। ওই ফেরিতে পার হওয়া একাধিক যাত্রীর বর্ণনা ছিল এমনই।
ফেরিটি বাংলাবাজার ঘাটে ভিড়লে অসুস্থ যাত্রীদের মধ্যে চারজনকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। এছাড়া পন্টুনে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোরকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। অসুস্থ অর্ধশতাধিক যাত্রীকে দ্রুত স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।
বাংলাবাজার ঘাট সূত্রে জানা যায়, বুধবার বেলা ১১টার দিকে শিমুলিয়া থেকে রোরো ফেরি এনায়েতপুরীতে উঠেন কমপক্ষে তিন হাজার যাত্রী। ফেরিটি মাঝপদ্মায় যাওয়ার পরে তীব্র গরমে ফেরির ডেকে দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। ফেরিটি শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে এসে ভিড়লে দেখা যায় কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী জ্ঞান হারিয়ে পড়ে আছে।
এদের মধ্যে এক কিশোর, দুইজন নারী ও দুইজন পুরুষের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার বালীগ্রাম এলাকার নিপা আক্তার (৩৪) এবং শরিয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার কলিকা প্রসাদ এলাকার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে আনচুর মাতুব্বরের (১৪) পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। বাকিদের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।
মৃত নিপা আক্তারের ছেলে রিফাত হোসেন (১৪) কান্নারত অবস্থায় জানান, তার মা ফেরিতে থাকার সময় অসুস্থ হয়ে পড়ে। তবে ফেরি যখন ঘাটের ভিড়ে তখন লোকজন নামতে শুরু করে। এসময় সেও ব্যাগ হাতে নেমে আসে। পন্টুনে নামার পর তার মাকে দেখতে না পেয়ে খুঁজতে থাকে ভিড়ের মধ্যে। লোকজন নেমে গেলে ফেরির ডেকে মৃত অবস্থায় তার মাকে পড়ে থাকতে দেখে সে।
আমির হোসেন নামের এক যাত্রী জানান, ফেরিতে প্রচুর ভিড়। ফেরির ডেকে বেশিরভাগ যাত্রী গায়ের সঙ্গে গা লাগিয়ে দাঁড়িয়েছিল। প্রায় দুই ঘণ্টারও বেশি সময় দাঁড়িয়ে থেকে ফেরি বাংলাবাজার ঘাটে যাওয়ার আগেই অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ে। লোকজনের ভিড়ে আমরা প্রায় শ্বাস নিতে পারছিলাম না। তার ওপর রোদের কড়া তাপ। অনেকেই পানির জন্য চেঁচামেচি করছিল।
বাংলাবাজার ঘাটের একটি সূত্র জানায়, ভিড়ের মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়লে ফেরি যখন ঘাটে ভিড়ে তখন হাজার হাজার মানুষে নামতে শুরু করে। এ সময়ই অসুস্থ লোকগুলো চাপে পড়ে মারা যায়। অসুস্থ হয় অনেকে। তাদের পিকআপে ভ্যানে করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।
শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিরাজ হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, লোকগুলো হিটস্ট্রোকে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ প্রচণ্ড ভিড় আর তীব্র গরম রয়েছে। এ কারণেই এক কিশোর, ২ নারী ও ২ পুরুষ যাত্রীর মৃত্যু হয়। অসুস্থ হয়ে পড়ে অর্ধশতাধিক। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।
শিবপুরে বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে তিনজন নিহত, আহত ৫
হলধর দাস,নরসিংদী থেকে : নরসিংদীতে বাস-মাইক্রোবাস মুখোমুখী সংঘর্ষে এক নারীসহ তিনজন নিহত ও ৫ জন আহত হয়েছেন। আজ বুধবার (১২ মে,২০২১ ) বিকেলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শিবপুর উপজেলার সৃষ্টিগড় এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।
নিহতদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি। ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ পরিদর্শক নূর হায়দার তালুকদার ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন জানান, একটি যাত্রীবাহী লোকাল বাস ভৈরব থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে সৃষ্টিগড় নামক স্থানে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে যাওয়া সিলেটগামী একটি হাইয়েস মাইক্রোবাসের মুখোমুখী সংঘর্ষে পতিত হয়।
এতে মাইক্রোবাসটি দুমড়ে মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাস চালক ও এক নারীসহ তিনজন নিহত ও মাইক্রোবাসটির আরও ৫ জন আহত হয়। খবর পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস হাতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় এবং দুর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দুটি উদ্ধার করে।
যাত্রীবাহি বাসটি বেপরোয়া গতিতে অন্য একটি গাড়িকে পাশ কাটাতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে আসা মাইক্রোবাসটিকে চাপা দিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে হাইওয়ে পুলিশ। এ দুর্ঘটনায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে হাইওয়ে পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

11 + five =