বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ‘ইতিহাসের মহানায়ক’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

0
40
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: রোববার দুপুরে সমিতির মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন সমিতির বিদায়ী সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন। তিনি অ্যাটর্নি জেনারেলও। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই বই প্রকাশ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু আইনজীবী, আদালত, আইনের শাসন ও বিচার বিভাগ নিয়ে কী ভেবেছেন, সেই বিষয়গুলো মানুষের সামনে তুলেধরতে এই প্রকাশনা।এই আয়োজনে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহসভাপতি মনিরুজ্জামান; সহসম্পাদক ইমতিয়াজ ফারুক, মোহাম্মদ বাকির উদ্দিন ভূইয়া; সদস্য হুমায়ুন কবির প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।সমিতির পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, এই স্মারক গ্রন্থে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবন, বাঙালি জাতিসত্তার আত্মপ্রকাশে তাঁর রাজনৈতিক সংগ্রাম, আত্মত্যাগ ও স্বনির্ভর বাংলাদেশ বিনির্মাণে তাঁর স্বপ্নের বিভিন্ন দিক নিয়ে বিশ্লেষণমূলক ও স্মৃতিচারণামূলক লেখা প্রকাশিত হয়েছে। বইটিতে খসড়া শাসনতন্ত্র নিয়ে পাকিস্তান আইন পরিষদে শেখ মুজিবের ভাষণ, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় তাঁর জবানবন্দি, খসড়া সংবিধান প্রসঙ্গে গণপরিষদে বঙ্গবন্ধুর ভাষণসহ আরও নানা বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে।স্মারক এই গ্রন্থে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী, বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিমসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের লেখা রয়েছে।এই আয়োজনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ‘বর্তমানে দেশে একটি গোষ্ঠী মসজিদ ব্যবহার করে দেশে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করছে। আমরা কি কেউ এমন কর্মকাণ্ড সমর্থন করতে পারি?’ তিনি বলেন, ‘একজন বিদেশি অতিথি আসবেন, তিনি কিন্তু ২০১৫ সালেও এসেছেন, তখন কথা হয়নি। এবার হঠাৎ করে কথা উঠল। তিনি আসায় হঠাৎ করে তাদের (বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী) ঘুম ভাঙল। মনে হলো কিছু করতে হবে। ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় যে কাজটা হয়েছে, তা আমরা কি সমর্থন করতে পারি? এখনই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নেওয়া হলে দেশে আইনের শাসন থাকবে না।’করোনা পরিস্থিতিতে আদালত খোলা রাখা উচিত কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ‘লকডাউনের সময় শারীরিক উপস্থিতিতে আদালত খোলা রাখা ঠিক হবে না। এই সময় যানবহন চলাচলে বিধিনিষেধ আছে। অনেকেই আসতে পারবেন না। আমি মনে করি, বাসায় থেকে ভার্চ্যুয়ালি আদালতে যুক্ত হওয়ার ব্যবস্থায় সবাই উপকৃত হবেন।’ ৪।এক্সারসাইজ শান্তির অগ্রসেনা’ উদ্বোধন করলেন সেনাপ্রধান টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেনানিবাসে রোববার আন্তর্জাতিক সামরিক প্রশিক্ষণ ‘এক্সারসাইজ শান্তির অগ্রসেনা’র উদ্বোধন করা হয়েছে। উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে শান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতির পিতার নিরলস প্রচেষ্টাকে সমুন্নত রাখতে এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়।এ সময় সেনাবাহিনীর কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ডের জিওসি লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম মতিউর রহমান, ১৯ পদাতিক ডিভিশন এবং এরিয়া কমান্ডার ঘাটাইল এরিয়ার মেজর জেনারেল সৈয়দ তারেক হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।এই সামরিক অনুশীলনে ১১টি দেশের প্রতিনিধি যোগদান করছেন। বাংলাদেশের ৩০ জন, ভারতের ৩০ জন, শ্রীলংকার ৩০ জন এবং ভুটানের ৩৩ জনসহ মোট ১২৩ জন সেনাসদস্য সরাসরি প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করছেন। যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, নেপাল, তুরস্ক, সৌদি আরব, ভারত, শ্রীলংকা ও ভুটানের মোট ১৯ জন অবজারভার অংশ নিচ্ছেন।বিশ্বশান্তি বজায় রাখতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর সক্ষমতা বাড়ানোই এ প্রশিক্ষণের মূল উদ্দেশ্য। প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর পারস্পরিক জ্ঞান এবং প্রযুক্তিগত তথ্য বিনিময়ের মাধ্যমে একটি সহযোগী কাজের পরিবেশ তৈরির লক্ষ্য অর্জনে সচেষ্ট হবে।প্রশিক্ষণে সামরিক অপারেশনের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিবর্গের আলোচনা ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। প্রশিক্ষণটিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ব্যবহৃত অত্যাধুনিক অস্ত্র-সরঞ্জামাদি এবং মিলিটারি গ্যাজেটসমূহ সমরাস্ত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে উপস্থাপন করা হবে। এ ছাড়াও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরা হবে।বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এ অনুশীলন বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম বহুলাংশে বাড়াবে। সামরিক প্রশিক্ষণটি আগামী ১২ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। আইএসপিআর।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 × 1 =