বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে শ্রদ্ধা নিবেদন

0
13
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মরণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপিত শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি ফলকে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের সাবেক ডিন অধ্যাপক আ ব ম ফারুক এর নেতৃত্বে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল-মামুন, রেহান সোবহান, মতিউর রহমান লাল্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম লুৎফর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য আনন্দ কুমার সেনসহ বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয়, মহানগর ও থানা কমিটির নেতৃবৃন্দ। মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীরদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। পরে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়- সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল-মামুন এর নেতৃত্বে। এসময় কেন্দ্রীয় ও মহানগর কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অন্যান্যদের মধ্যে চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসিম আক্তার প্রমুখ। এরপর সংগঠনের সদ্য প্রয়াত শ্রদ্ধাভাজন সভাপতি ডা. এস এ মালেক এর কবর জিয়ারত ও ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এসময় প্রয়াত ডা. এস এ মালেক এর পুত্র ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল মামুনসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সংগঠনের সাবেক সভাপতি শ্রদ্ধাভাজন বিচারপতি কে এম সোবহান এর কবর জিয়ারত ও দোয়া করা হয়। রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে শহীদ স্মৃতি সৌধেও শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। ঐসময় দলীয় নেতৃবৃন্দ ও মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সকল বীরদের আত্মার শান্তি কামনায় এক মিনিট দারিয়ে নিরবতা পালন করা হয়।
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে বিএফইউজে-ডিইউজের আলোচনা সভা
সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেছেন, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস জাতীয় ইতিহাসে গভীর বেদনা ও শোকের একটি দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে বিজয়ের ঊষালগ্নে স্বাধীনতার শত্রুরা হত্যা করে জাতির অনেক কৃতী সন্তানকে। ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর চার দিকে যখন বিজয়ের রব, মুক্ত পরিবেশে মানুষ যখন রাস্তায় বের হয়ে আসতে শুরু করেছে, ঘরে ফিরতে শুরু করেছে, বিজয়কে বরণের আনন্দে দুলছে, ঠিক তখনই এক শোকাবহ ঘটনার অবতারণা ঘটায় স্বাধীনতার শত্রুরা। পরিপূর্ণ বিজয়ের আগ মুহূর্তে জাতির মেধাবী সন্তানদের তারা বাসা থেকে ধরে নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করে। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বরেণ্য ব্যক্তিত্ব তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিল্পীদের হত্যা করা হয় বেছে বেছে; যাতে এ জাতি স্বাধীনতা পেলেও মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে। তাদের ধরে নিয়ে রায়েরবাজার বেড়িবাঁধ এলাকা ও মিরপুরে জড়ো করে হাত-পা ও চোখ বেঁধে হত্যা করে লাশ ডোবার মধ্যে ফেলে রাখা হয়; যা এখন বধ্যভূমি নামে পরিচিত। বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করার লক্ষ্যে বুদ্ধিজীবী নিধনের এই পরিকল্পনা করে কুচক্রী মহল । দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে, স্বাধীনতার ৫১ বছর পরও সেইসব শহীদ বুদ্দিজীবী হত্যার তদন্ত হয়নি। আমরা অবিলম্বে মুক্তিযুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যার সঠিক তদন্ত দাবি করছি।
বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে আয়োজিত শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। বিএফইউজে ও ডিইউজে কার্যালয়ে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
বিএফইউজের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেন, অত্যন্ত দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে, স্বাধীন বাংলাদেশে এখনো শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করা হয়নি। একটি স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য শহীদ হয়েছিল বুদ্ধিজীবীরা। যে বাংলাদেশে থাকবে গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও সুশাসন। কিন্তু দুঃখজনক যে, স্বাধীনতার ৫১ বছর পরও এগুলো আজ অনুপস্থিত। এতো বছর পরও শহীদ বুদ্ধিজীবী হত্যার তদন্ত হয়নি। তিনি আরো বলেন, দেশে ন্যায় বিচার নেই, কথা বলার স্বাধীনতা নেই, ভোটাধিকার নেই। এজন্যই কি দেশ স্বাধীন হয়েছিল? এমন পরিস্থিতিতে বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকারকে বিতারিত করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। এজন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে শরিক হতে হবে।
বিএফইউজের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় যেসব বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন ছিলেন সাংবাদিক। যারা স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছেন তারাই বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছে। এখন পর্যন্ত সেইসব হত্যাকান্ডের বিচার হয়নি। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এতো বছর পরে এসেও শহীদ বুদ্ধিজীবী হত্যার তদন্ত দাবি করতে হচ্ছে।
সভাপতির বক্তব্যে বিএফইউজের সভাপতি এম আবদুল্লাহ বলেন, ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবীদের কেন হত্যা করা হয়েছিল? কারণ তারা একটি স্বাধীন সার্বোভৌমত্ব রাষ্ট্র চেয়েছিলেন। তাই কতৃত্ববাদী গোষ্ঠী তাদেরকে হত্যা করেছে। সদ্য স্বাধীন হওয়া দেশটি যেন মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে তাই তাদের হত্যা করা হয়েছে, যা এখনো অব্যাহত। গত ১৫ বছরে ৫০ জন সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। অসংখ্য সাঙবাদিককে নির্যাতন করা হয়েছে। গুম, খুন ও হত্যাকান্ড চলছেই। এভাবে দেশ চলতে পারে না। কাজেই গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করতে হবে। এসময় তিনি বর্তমান বুদ্ধিজীবীদের নির্যাতনের কথা তুলে ধরেন এবং নিন্দা জানান।
বিএফইউজের মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন বলেন, ১৪ ডিসেম্বর এলেই আমরা এ দিবসটি পালন করি এবং ইতিহাস শুনি। কিন্তু বাস্তবিকভাবে আমরা এর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারিনি। আমরা এই বুদ্ধিজীবী হত্যার সঠিক তদন্ত চাই। তিনি আরো বলেন, দেশে মানবাধিকার নেই, গণতন্ত্র নেই। আমি বলবো আইনের জন্য মানুষ না, মানুষের জন্য আইন। তাই আমাদের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে রাজপথে আন্দোলন করতে হবে। আর সেই আন্দোলনের মাধ্যমেই আমরা আমাদের অধিকার আদায় করতে পারবো।
ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মতো এখনো দেশের বুদ্ধিজীবীরা নিরাপদ নন। প্রতিনিয়ত সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীরা সরকারের রোষানলে পড়ে স্বাধীন মতামত ব্যক্ত করতে পারছেন না। সাংবাদিকরা আজ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না। এখনো রাষ্ট্রীয় বাহিনী দিয়ে, কখনো কালো আইন করে সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে। দেশে স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি পর্যন্ত নেই। এসময় তিনি বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকারের হাত থেকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য এবং মানবাধিকার রক্ষার জন্য আন্দোলনে শরিক হওয়ার জন্য সবাইকে আহ্বান জানান।
ডিইউজের সাবেক সভাপতি আবদুল হাই শিকদার বলেন, জাতীকে মেধাশূন্য করতেই মুক্তিযুদ্ধের সময় বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। দুঃখজনক যে, স্বাধীনতার ৫১ বছরেও বুদ্ধিজীবী হত্যার তদন্ত হয়নি। আমি সেই হত্যাকান্ডের তদন্ত শুরু করার দাবি করছি।
ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে যেভাবে মেধাশূন্য করেছিল, ঠিক তেমনি এখনো সরকার জাতীকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের নির্যাতন করছে।
বিএফইউজে’র সভাপতি এম আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে ও ডিইউজের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. দিদারুল আলম দিদারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- বিএফইউজের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী ও শওকত মাহমুদ, বিএফইউজের মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন, ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, সাবেক সভাপতি আবদুল হাই শিকদার, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাকের হোসাইন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাসান হাফিজ, ডিআরইউ’র সাবেক সভাপতি ইলিয়াস হোসেন, সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা কামাল মজুমদার, ডিইউজের সহ-সভাপতি বাসির জামাল ও রাশেদুল হক, সাবেক সহ-সভাপতি সৈয়দ আলী আসফার, বিএফইউজের কোষাধ্যক্ষ খায়রুল বাশার, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এরফানুল হক নাহিদ, প্রচার সম্পাদক খন্দকার আলমগীর, দফতর সম্পাদক ডি এম আমিরুল ইসলাম অমর, বিএফইউজের নির্বাহী সদস্য জাকির হোসেন, ডিইউজের নির্বাহী সদস্য জেসমিন জুঁই প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here