বর্তমানে এমপি সাহেবের আসেপাশে দুধের মাছির আনাগোনা

0
20
728×90 Banner

মোঃরফিকুল ইসলাম মিঠু: ইদানীং ঢাকা-১৮ আসনের সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাবিব হাসান এমপি এর আসে পাশে সব দুধের মাছির আনাগোনা লক্ষ করা যাচ্ছে। ক্ষমতায় যে থাকুক না কেন তাঁদেরই দেখা মিলে। কর্মী বান্ধব নেতা এমপি হাবিব হাসান দলের জন্য একজন নিবেদিত প্রাণ বলে জানা যায়। তাঁর রাজনৈতিক জীবন অনেকটা কন্ঠকাকির্ণ ছিল। বহু ত্যাগ তিতিক্ষার পর তিনি আজকের অবস্থানে এসেছেন। এই আসনের জন্য তিনিই ছিলেন একমাত্র যোগ্য ব্যাক্তি। বর্তমানে কিছু সুবিধাভোগী নেতাকর্মীরা তাকে ঘিরে রেখেছেন। তিনি ত্যাগী, সুবিধা বঞ্চিত ও ১/১১ এর লড়াই সংগ্রামে যাদের কাছে পেয়েছেন তাদের নিয়ে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করতে চান। ডিগবাজীতে পারদর্শী সুবিধা বাদী কিছু নেতা বিএনপি ও জামাত থেকে উঠে এসে অক্টোপাসের মত এমপিকে জড়িয়ে রাখতে চায়। শুধু তাই নয় এমনও অতীতের চিহ্নিত কিছু ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ,খুনি অস্ত্রমামলার আসামী সহ নানা অপকর্মের সাথে জড়িত থাকা ব্যক্তিরা এমপির পাশে দাঁড়িয়ে একসাথে সেলফি তুলে নিজেদেরকে সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা যাচ্ছে এবং তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে জানান দিচ্ছে যে তাঁরা এমপি মহোদ্বয়ের কাছের লোক। আসলে তিনি ঢাকা-১৮ আসনের অভিভাবক হয়ে সাধারণ জনগনের সেবক হিসাবে নিজেকে উৎসর্গ করতে গিয়ে সমালোচনার মুখোমুখি হয়ে পড়ছেন। উত্তরায় মাজেদের কেলেঙ্কারির দৌরাত্ম্য জানেন না এমন লোকের সংখ্যা হাতে গোনা। মাজেদের অতীত ইতিহাস আলোচনা করে শেষ করার নয়। রাজউক কর্মচারী মার্কেট দিয়ে মাজেদের উত্থান শুরু। মাজেদ পর্যাক্রমে তৈরী করেন একের পর এক দূর্নীতির আধিপত্য। মার্কেট ব্যবসায়ী সহ নানা লোকের টাকা আত্মসাৎ কারী মাজেদকে এমপি হাবিব হাসান এর সাথে দেখে অনেক নেতাকর্মী হতবিহ্বল। মাজেদ এতই চতুর যে সে ফিলিং স্টেশন মালিক রবকে সাথে নিয়ে এমপি হাবিব হাসান এর সাথে দেখা করেন। এমন অসংখ্য গুটিবাজ নেতারা সেলফি বাজী করে এলাকায় এলাকায় চাঁদাবাজী করে বেড়ান। এ সকল বিষয় তিনি নাকি জেনেও চুপচাপ থাকেন, বলে জানান এলাকাবাসীমাজেদ নামের ঐ ব্যাক্তি রাজউক কর্মচারী মার্কেটের দোকানদারদের হুমকি ধামকি দিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়াও তিনি রাজউক কর্মচারী কল্যান ইউনিয়নের সভাপতিকে টেলিফোনে বলেন এমপি সাহেবকে দিয়ে পূর্বের কমিটি বিলুপ্ত করে দিয়ে নতুন কমিটি এনে বর্তমান কমিটিকে লাথিমেরে মার্কেট থেকে বের করে দিবেন এমন ধরনের কথার কলরেকর্ড রয়েছে। এবিষয়ে গণমাধ্যমে কর্মী ঢাকা-১৮ আসনের সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোহাম্মদ হাবিব হাসান এমপিকে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আওয়ামীলীগে কোন চাঁদাবাজ, মামলাবাজের জায়গা নেই। যারা দলের পরিচয় দিয়ে সুযোগ সুবিধা গ্রহন করতে চায় তাঁদের চিহ্নিত করে আমাকে তালিকা দিন আমি প্রশাসনিক ভাবে ব্যবস্থা নিব।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here