বাংলাদেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না– সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন

0
140
728×90 Banner

হলধর দাস,নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদী জেলা প্রশাসনের দিক নির্দেশনায় ও সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আলোকবালী ইউনিয়নে গৃহীত কর্মকৌশল বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভা এবং চরাঞ্চলীয় আলোকবালী ইউনিয়ন এলাকার শীতার্ত জনসাধারণের মাঝে কম্বল ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান উপলক্ষে বুধবার(২০ জানুয়ারি,২০২১) আলোকবালী এএমসি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে নরসিংদীর জনবান্ধব জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রে সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেছেন, জনসাধারণের সেবা শতভাগ নিশ্চিত তখনই হবে, যখন সুশীল সমাজের শতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ থাকবে।
জনসাধারণ কী কী সেবা পাবেন, তার জন্য প্রতিটি ইউনিয়নে সেবা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে যে কেউ তার নিজের প্রাপ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।
নরসিংদী সদর উৃপজেলা নির্বাহী অফিসারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আলোকবালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দিপু, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহআলম চৌধুরী, আরিফ চৌধুরী, দরিদ্র অসহায় ইয়াছমিন বেগম।
মোতাহার হোসেন অনিক এর সঞ্চালনায় মঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন ইউনিয়নের প্যানেল মুন্নী বেগম,কৃষি কর্মকর্তা মহুয়া শারমিন প্রমুখ।
পারিবারিক উদাহরণ তথা তাঁর নিজের পিতা’র উদাহরণ টেনে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, যে বা যারা পিছনে পড়ে আছেন, তাকে বা তাদের কথা আগে ভাবতে হবে। এই বিশ^াসটা আমি পোষণ করি। এজন্য আমি বলি, “মানুষ বাঁচে আশায়,আর দেশ বাঁচে ভালবাসায়।” মানুষকে ভাল রাখতে কমিউনিটি ক্লিনিক, ইউনিয়ন ভূমি সেবা অফিস ও সমাজসেবা সহ সকল সরকারি অফিসগুলো রয়েছে। সরকারী কর্মচারীদের মাধ্যমে যে সেবা দেয়া হয়, সাধারণ মানুণকে তা শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে।
নিজেদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হওয়ার জন্য এলাকাবাসীর প্রতি আহŸান জানিয়ে প্রধান অতিথি বলেন, শতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে বিশেষ করে কোভিড-৯০ এর সময় নরসিংদীবাসীর সার্বিক অংশগ্রহণ আমাকে অপরিশোধিত ঋণে আবদ্ধ করেছে।
প্রতিটি মানুষ তাঁর কাজের মধ্যে বেঁচে থাকে। আমিও কাজের মধ্যেই বেঁচে থাকতে চাই। আমার সহকর্মীরাও একদিন আমার চাইতে অনেক বড় অফিসার হওয়ার মধ্য দিয়ে তাদের কাজের দক্ষতা প্রমাণ করবে। কাজে আমার চাইতেও বেশী পুরস্কারে পুরস্কৃত হবে।
এখানকার গ্রামের প্রধান কাজ কৃষি আর মাছ শিকার হলেও বিদেশ আছেন অনেক লোক। তাদের কল্যাণে আমি নরসিংদীতে প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্রও খুলেছি।
চরাঞ্চলবাসীদের মুজিববর্ষের শুভেচ্ছ জানিয়ে বলেন, আপনাদেরকে মানবীয় গুণাবলী সম্পন্ন আলোকিত মানুষ হতে হবে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন বাংলাদেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না। তারা ঘরের সাথে সাথে জমিরও মালিক হবে। তাই তিনি “একটি বাড়ি একটি খামার” প্রকল্প হাতে নিয়েছেন , যা প্রথিবীর আর কোথাও নেই। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে তিনি কিন্তু আগামী ২৩ জানুয়ারী একযোগে ৬৫হাজার ৭শত ঘর দেবেন প্রথম পর্যায়ে। নরসিংদীতেও আমরা ৫০০টি ঘর পেয়েছি। এগুলোর কাজ শেষ হয়েছে। গৃহহীনদের বুঝিয়ে দেয়া হবে।
তিনি সদর এমপি লে.কর্নেল(অবঃ)নজরুল ইসলাম হিরু বীর মহোদয় কর্তৃক আলোকবালী এলাকার লোাকদের চলাচলের সুবিধার জন্য একটি বড় ব্রীজ করবেন বলে জানান। ইতিমধ্যে সয়েল টেস্টের কাজ চলছে। মাননীয় এমপি মহোদয় সাধারণ মানুষ যাতে নিবাপদে ভাল থাকেন সে চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সে মোতাবেক এলাকার চেয়ারম্যানকেও তার এলাকার মানুষজনদের ভাল রাখার জন্য কাজ করে যাবার পরামর্শ দিয়ে বলেন, কেউ যেন হয়রানীর শিকার না হয়। তারা যেন সর্বোচ্চ সেবা পায়।
মায়েদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা ডিস চ্যানেল নিয়ে অপসংস্কৃতিতে মেতে থাকবেন না। নিজের সন্তানদের কীভাবে মানবীয় গুণাবলী সম্পন্ন মানুষ করা যায় সে চেষ্টা করবেন।
তিনি অসহায় স্বামীহারা ইয়াছমিন বেগমের কথা শুনে সহকর্মীদের তাৎক্ষণিক নির্দেশ প্রদান করেন সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা নেয়ার জন্যে।
জনৈক আরিফ চৌধুরীর বক্তব্য শুনে তার উল্লেখিত ৪টি সমস্যা তথা এলাকার আাভ্যন্তরিন সড়ক মেরামত করা, বাজারের সাথে নদীর ওপারের কয়েকটি ইউনিয়নের সাথে যোগাযোগের জন্য একটি ব্রীজ করে দেয়া, এলাকার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের যাতায়াতের সুব্যবস্থা করা যাতে শিক্ষকগণ সর্বোচ্চ তথা শতভাগ সেবা দিতে পারেন সেই ব্যবস্থা নেয়া এবং এলাকার স্বাস্থ্য সেবা নিশি^ত করণে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো সচল করার পদক্ষেপ নেয়ার জন্য তাৎক্ষণিক নির্দেশ দেন সংশ্লিষ্টদের।
বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহআলম চৌধুরীর বক্তব্য শুনে তিনি এলাকায় জায়গা খোঁজ করে মুকিযোদ্ধাদের অফিস ঘর করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি এব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য স্থানীয় তহসিলদারকে নির্দেশ দেন।
পরে তিনি এলাকাবাসীল মধ্যে শীতবস্ত্র কম্বল এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

one × 3 =