বাদীপক্ষকে খুশি করতে বিবাদীকে পিটিয়ে নাকের আঁড়া ভেঙে দিলেন ওসি আসলাম

0
59
728×90 Banner

নিজস্ব প্রতিবেদক : মামলা হয়নি, তবুও শুধুমাত্র অভিযোগের ভিত্তিতে থানায় ডেকে আনা বিবাদীকে দু’হাতে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে ইচ্ছেমতো পিটিয়ে নাকের আঁড়া ভেঙে রক্তাক্ত জখম করেছেন ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম। ঘটনাটি ঘটেছে ১২ ফেব্রুয়ারী বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে থানায় ওসির কক্ষে।
বিবাদী পক্ষের অভিযোগ- বাদীপক্ষকে খুশি করতে এভাবে তিনি আইনের লোক হয়ে নিজেই আইন হাতে তুলে নিয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলাধীন গলাচিপা রূপার বাড়ি এলাকার মরহুম চাঁন মিয়ার রেখে যাওয়া বিল্ডিংসহ বাড়ির ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত ছোট ছেলে রোমেন বনাম বাকি ভাইবোন তথা চঞ্চলগং এর সাথে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে বছর খানেক ধরে দফায় দফায় বৈঠক এবং থানা পুলিশ ছিল অব্যাহত।
আর এরই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি চঞ্চলগং ফতুল্লা থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে ১২ ফেব্রুয়ারী বুধবার বিবাদী রোমেনকে থানায় ডেকে দু’পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসেন ওসি কর্তৃক দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্তা দারোগা মোবারক হোসেন। তাদের মধ্যকার কথোপকথনের এক পর্যায়ে রোমেনের স্ত্রী সম্পর্কে অশ্লীল আপত্তিকর মন্তব্য করায় উত্তেজিত হয়ে অপর বড়ভাই রুবেলের সাথে তর্কে জড়িয়ে পড়েন রোমেন। তর্ক থেকে চঞ্চল-রোমেন-রুবেল তিন ভাই হাতাহাতির এক পর্যায়ে রোমেনের ঘুষিতে দাঁতে রক্তাক্ত জখম হয় রুবেল।
এদিকে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের সামনে অপ্রীতিকর ঘটনা সামাল দিতে সাব ইন্সপেক্টর মোবারক দুই ভাই চঞ্চল ও রোমেনকে থানা হাজতে আটক করেন এবং আহত রুবেলকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠান। তখন সময় রাত ৮টা প্রায়। কিন্তু এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে বিবাদী রোমেনের স্বজনসহ স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক থানায় গেলে তাদের সামনেই ওসি আসলাম থানা হাজত থেকে বের করে বিবাদী রোমেনকে দুহাতে হাতকড়া পরিয়ে চোরের মত পিটিয়ে নাকের আঁড়া ভেঙে রক্তাক্ত জখম করে। পরে নিকটস্থ ক্লিনিকে নাকের প্রাথমিক চিকিৎসা করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন।
এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগের প্রস্তুতি নিচ্ছে ভুক্তভোগি রোমেনের পরিবার।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here