বাবুল পাঠানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে পরাজিত প্রার্থীরা

0
248
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর রায়পুর পৌর নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী হাইব্রীড ড্যামি প্রার্থীরা আওয়ামী তৃণমূলের ভোটে ভরাডুবি হয়ে বিজয়ী প্রার্থী রফিকুল হায়দার বাবুল পাঠানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপ-প্রচার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়, গত ৪ ডিসেম্বর শুক্রবার ২০২০ সালে রায়পুর পৌরসভা মেয়র প্রার্থী নিয়ে তৃণমূল আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এতে সর্বোমোট ৬০ জনের মধ্যে ৫৮জন ভোটার তাদের ভোট প্রদান করেন। জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য বাবুল পাঠান সর্বোচ্চ ২৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী রানিং প্যানেল মেয়র কাজী গুলজার পেয়েছেন ১৭ ভোট, রানিং মেয়র ইসমাইল হোসেন খোকন পেয়েছেন ১২ ভোট।
বাবুল পাঠানের অভিযোগ স্থানীয় আওয়ামী তৃণমূলের ভোটে পরাজিত প্রার্থীরা তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে আওয়ামীলীগ হাইকমান্ডের কাছে বিভিন্ন ভাবে অপ-প্রচার করে যাচ্ছেন । যারা তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে রাজনীতিতে তাদের বায়োডাটা আর আমার বায়োডাটাই প্রমাণ করবে রাজনীতিতে কে ত্যাগি ও সাংগঠনিকভাবে কোন প্রার্থীর অবদান বেশী।
মেয়র প্রার্থী বাবুল পাঠান জানান, তিনি যখন আওয়ামী রাজনীতিতে ছাত্রলীগ দিয়ে শুরু করেন, তখন তার প্রতিদ্বদ্ধি প্রার্থীরা রায়পুরে কোন অবস্থানই ছিল না। কালের বিবর্তনে সাগরে ভেসে ভেসে পাড়ে যেমনী কচরি পানা ভিড়ে, তেমনী কোন না কোন ভাবে এসব প্রার্থীরা রায়পুরে অবস্থান নিয়ে এখন আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে।
আমি আওয়ামী রাজনীতি করতে গিয়ে বিএনপি- জামাতের সন্ত্রাসীদের দ্বারা একাধিকবার হামলা-মামলার শিকার হয়েছি। ততকালে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে বিএনপির জামাত শিবিরের ক্যাডাররা। বিএনপি- জামাতের মিথ্যা মামলা করাবরণ করেছি।
১৯৭৬-১৯৭৯ সালে রায়পুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। ১৯৮০ থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। ১৯৮৪ সালে রায়পুর সরকারী ডিগ্রি কলেজ আওয়ামী লীগের মনোনিত ভিপি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছি। ১৯৮৬ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও সাংষ্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। ১৯৯৬ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। ১৯৯৯ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত রায়পুর পৌরসভায় চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বরত ছিলাম। ২০০৩ থেকে অধ্যবধি লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে আছি। এই ছাড়াও সামাজিক ও ধর্মীয় মসজিদ মাদ্রাসা, স্কুল, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি।
এসময় বাবুল পাঠান আরো বলেন, অতীব দুঃখের বিষয়, আমার নিকটতম পরাজিত প্রার্থীরা স্থানীয় ভাবে তৃণমূলের সমর্থন না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ ছড়াচ্ছেন। যার কোন ভিত্তি নেই। হাস্যকর ঘটনা ছড়াচ্ছে, ২০১১ সালে পৌর নির্বাচনে জেলা আওয়ামীলীগের নির্দেশে আমি মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন সংগ্রহ করি । মনোনয়ন সংগ্রহের পরপরই আমার ভগ্নিপতি (কাতার প্রবাসি) ঢাকা মারা যায়। তখন মৃত ভগ্নিপতিকে আনার জন্য ঢাকা যাই। এরই মধ্যে জানতে পারি ইসমাইল হোসেন খোকন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। মৃত ভগ্নিপতিকে রায়পুরে নিয়ে আসার পরেদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে আমি আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করি। তখন নৌকার প্রতীক ছিল না। কিন্তু বর্তমানে আওয়ামী তৃণমূল ভোটের পরাজিত প্রার্থীরা আমাকে ততকালের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে বিভিন্ন জায়গা গুজব চড়াচ্ছে।
বাবুল পাঠান আরো বলেন, ২০০৩ সালে বিএনপির সরকারের সময় পৌর নির্বাচনে কেন্দ্র ও জেলা আওয়ামী লীগ আমাকে মনোনিত করেন। আমি জীবনের সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে বিএনপির প্রার্থী এবিএম জিলানীর সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করি কিন্তু তখনো এসব পরাজিত প্রার্থী ইসমাঈল হোসেন খোকন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হয়ে তিনি রায়পুর পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কামাল ভুইয়াকে আমার বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রার্থীতা করান। বিদ্রোহী প্রার্থীর কারনে আমি ততকালে পৌর নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর নিকট হেরে যাই।
আজ ১৭ বছর পরে আওয়ামী তৃণমূল ভোটারা আমাকে পৌর মেয়র প্রার্থী হিসেবে যোগ্য বিবেচনা করে সর্বোচ্চ ভোট দেয়। বর্তমানে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বোর্ড এর সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার রাজনীতি জীবনের বায়োডাটা দেখে আমাকে রায়পুর পৌর মেয়র প্রার্থী হিসেবে নৌকার প্রতীক দিবেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ হাসিনা আপার প্রতি আমার শতভাগ আস্থা রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

16 − nine =