বিআরটির কাজ ৭৯.২৪ ভাগ সম্পন্ন আগামী জুন মাসে খুলে দেওয়া হবে……..বিআরটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক

0
123
728×90 Banner

জাহাঙ্গীর আকন্দ: ঢাকার উত্তরা ও টঙ্গী এলাকার বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের সাড়ে ২০ কিলোমিটার উড়াল সেতু ও রাস্তার ফিজিক্যাল নির্মাণকাজ ৭৯.২৪ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। যেগুলো ২০২৩ সালের জুনে চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে। আজ শুক্রবার দুপুর পৌনে ১২টায় প্রকল্প পরিদর্শন শেষে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তায় প্রেস ব্রিফিংয়ে বিআরটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শফিকুল ইসলাম এসব তথ্য জানান।
তিনি বলেন, প্রকল্পের ফিজিক্যাল নির্মাণকাজ আরএসবি অংশের ১৬ কিলোমিটারের ৮২.৯ শতাংশ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। অন্যদিকে বিএ অংশের সাড়ে ৪ কিলোমিটারের কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৭২.৩৫ শতাংশ। সব মিলিয়ে মোট নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে ৭৯.৯ শতাংশ। শতভাগ সক্ষমতা ব্যবহার করতে পারলে যথাসময়ে কাজ শেষ করা যাবে। তাদের বাকি কাজ সম্পন্ন করার প্রয়োজনীয় সক্ষমতা রয়েছে বলে জানান। তবে এখন পর্যন্ত শতভাগ কাজ আমরা পাইনি। চাপ অব্যাহত রেখেছি। তাদের তিনটি শর্ত পূরণ করতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ফান্ড ও লোকবলের ঘাটতি দূর করা এবং মেজর সেফটি শতভাগ নিশ্চিত করা। শর্তগুলো পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কাজ শুরুর অনুমতি দেওয়া হবে না। তবে শিগগিরই শর্ত পূরণের পর কাজ শুরু হবে। এসব শর্ত পূরণে চাপ অব্যাহত রয়েছে।
প্রকল্পের আওতায় রয়েছে—এয়ারপোর্ট উড়াল সেতু, জসীমউদ্দিন উড়াল সেতু, হাউজবিল্ডিং থেকে স্টেশন পর্যন্ত নির্মিত উড়াল সেতু, টঙ্গীতে উড়াল সেতু অংশে নির্মাণাধীন স্টেশন, সমতলে নির্মাণাধীন স্টেশন (তারাগাছ স্টেশন), বিআরটি করিডোরের নির্বাচিত সড়কের অংশ, গাজীপুর চান্দনা চৌরাস্তা স্টেশন ও উড়াল সেতু, বিআরটি ডিপো (নলজানি, গাজীপুর)। প্রকল্প পরিদর্শন কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেন সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবং ঢাকা বিআরটি কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এএম আমানুল্লাহ নুরী। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন, সড়ক ও জনপথ অধিদফতর, ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ), সেতু কর্তৃপক্ষ, বুয়েটের বিশেষজ্ঞ এবং গাজীপুর সিটি করপোরেশনসহ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here