বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির আহ্বায়কের সামনে অভিভাবককে মারধরে গুরুতর আহত

0
240
728×90 Banner

‘তুই কমিটির সভাপতিকে গালাগাল করিস, এত বড় সাহস তোর’

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক: গাজীপুরে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির আহ্বায়কের সামনে এক অভিভাবক এবং বিদ্যালয় ক্যান্টিনের দুই কর্মচারীকে আটকে বেধড়ক মারধরের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।
মারধরে অভিভাবকের হাত ও কোমরের হাড় ভেঙে গেছে। পাঁজরের হাড়ে ফাটল ধরেছে। লাঠির আঘাতে শরীর ফেটে মোটা লাল দাগ বসে গেছে। গত মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা উচ্চ বিদ্যালয়ে। আহত অভিভাবক আবদুর রাজ্জাককে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত আব্দুর রাজ্জাক জানান, তিনি স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা জামানত ও মাসিক ২৫ হাজার টাকা ভাড়ায় তিন বছরের জন্য স্কুলের ক্যান্টিন ভাড়া নেন। চুক্তির মেয়াদ এখনো ৬ মাস বাকী। গত ১৬ জুলাই মোবাইলে তাকে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে ডেকে নেওয়া হয়।
তিনি পলাশ নামে একজন ব্যবসায়ীকে সাথে নিয়ে সেখানে গেলে ‘তুই কমিটির সভাপতিকে গালাগাল করিস, এত বড় সাহস তোর’ বলেই কোনো কিছু বোঝার আগেই ৩-৪ যুবক স্কুল পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক হালিম সরকারের উপস্থিতিতেই লাঠি নিয়ে তার উপর হামলা চালায়।
এলোপাতাড়ি লাঠির আঘাতে এক পর্যায়ে তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। পরে আর কিছু মনে নেই। প্রধান শিক্ষকের কক্ষে দরজা বন্ধ করে নির্মমভাবে যখন তাকে পেটানো হয় তখন সেখানে আহ্বায়ক ছাড়াও ৫-৭ জন লোক ছিলেন। বিদ্যালয়ের অফিস সহকারীসহ কয়েকজন শিক্ষকও উপস্থিত ছিলেন।
পরে শুনেছেন সাথে যাওয়া ব্যবসায়ী পলাশ তাকে উদ্ধার করেন। হামলায় তার বুকের পাজরের ফেটে গেছে। কোমড়ের হাড় ও হাত ভেঙে গেছে। শরীর জুড়ে লাঠির আঘাত। তিনি হামলার কোনো কারন খুঁজে পাচ্ছেন না। সুস্থ হলে থানায় মামলা করবেন।
পরে শুনেছেন একই দিন তার তার ক্যান্টিনের দুই কর্মচারী জিয়ান (১০) ও ম্যানেজার রজব আলীকে মারধার করে আটকে রাখা হয়। খবর পেয়ে বাসন থানার পুলিশ রাত ১১টার দিকে তাতের স্কুল থেকে উদ্ধার করেন।
ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক আরো জানান, ওই স্কুলের তার এক মেয়ে ১০ম শ্রেণিতে এবং ছেলে কলেজ শাখায় একাদশ শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। এ ঘটনার পর ভয়ে তার সন্তানেরা বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।
ক্যান্টিনটি জোরপূর্বক বন্ধ করে দিয়ে চাবি নিয়ে গেছে সভাপতির লোকজন। দোকানে নগদ ৩২ হাজার টাকা ও মালামাল ছিল। সেগুলোর কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক হালিম সরকার জানান, বিদ্যালয়ে এ ধরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি। বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগতও নন। ক্যান্টিনের ১১ মাসের ভাড়া বকেয়া রয়েছে। তাকে ডেকে ভাড়া পরিশোধের কথা বলা হয়েছিল।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here