বিশ্ব ইজতেমার নিরাপত্তায় মোতায়েন থাকবে সাড়ে ৭ হাজার পুলিশ….. জিএমপি কমিশনার

0
26
728×90 Banner

মোঃ শাহজালাল দেওয়ান: ২০২৩ সালের বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক নিরাপত্তায় সাড়ে ৭ হাজার পুলিশ মোতায়েন থাকবে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্লা নজরুল ইসলাম। সিসিটিভি ক্যামেরা, ওয়াচ টাওয়ার ও রুফটপ থেকে পুরো ইজতেমা ময়দানের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ করা হবে। এছাড়াও স্পেশালাইডজস টিমসহ প্রতিটি খিত্তায় সাদা পোশাকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা দায়িত্ব পালন করবেন। সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের আয়োজনে বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমন্বয় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
জিএমপি কমিশনার আরও বলেন, দুই পর্বের ইজতেমার আয়োজকদের মধ্যে মতপার্থক্য থাকলেও ইজতেমা আয়োজনে কোনো বিশৃঙ্খলা হবে না। ইজতেমা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এম পি, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণসহ ইজতেমার দুই পর্বের আয়োজক মাওলানা জোবায়ের ও মাওলানা সা’দ গ্রুপের শীর্ষ মুরব্বিরা। এ সময় জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ বিভাগ, ওয়াসা, জেলা সিভিল সার্জন, হাইওয়ে পুলিশ, সেনাবাহিনী ও র্যাবসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। করোনা মহামারির কারণে দু-বছর বন্ধ থাকার পর এবারও আগামী জানুয়ারিতে তাবলিগ জামাতের দু’গ্রুপের বিশ্ব ইজতেমা দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২০২৩ সালের দুই পর্বের বিশ্ব ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। ইজতেমা মাঠে স্বেচ্ছায় মুসল্লিরা খুঁটি, প্যান্ডল টাঙ্গানোসহ বিভিন্ন কাজ করছেন।
দুই পর্বের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব ১৩ থেকে ১৫ জানুয়ারি মাঝখানে চারদিন বিরতি দিয়ে ২০ থেকে ২২ জানুয়ারি দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। ১৫ জানুয়ারি রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে প্রথম পর্ব শেষ হবে। মাঝে চার দিন বিরতি দিয়ে ২২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে।
এর আগে আগামী ২, ৩, ৪ ও ৫ ডিসেম্বর স্বল্প পরিসরে ময়দানের উত্তর-পূর্ব কোনে স্থাপিত টিনশেডে দেশ-বিদেশের তিন চিল্লার সাথীদের সমন্বয়ে প্রথম পর্বের আয়োজকদের চারদিনের জোড় ইজতেমা সম্পন্ন হয়েছে। ইতোমধ্যে বিশ্ব ইজতেমা মাঠে স্বেচ্ছায় মুসল্লিরা খুঁটি, প্যান্ডল টাঙ্গানোসহ বিভিন্ন কাজ করছেন।
ময়দানে কাজ করতে আসা স্বেচ্ছাসেবীরা জানান, তুরাগ নদীর তীরের ১৬০ একর সুবিশাল ময়দান প্রস্তুত করতে শত-শত স্বেচ্ছাসেবী কাজ করে যাচ্ছেন। ২০২০ সালে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর করোনা মহামারীর কারণে গত দুইবছর ২০২১ ও ২০২২ সালে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়নি। আসন্ন বিশ্ব ইজতেমাকে সামনে রেখে ময়দানের প্রস্ততি কাজ স্বেচ্ছাশ্রমে এগিয়ে চলছে। টঙ্গী, গাজীপুর, তুরাগ, কামারপাড়া, আশুলিয়া, মিরপুর, উত্তরার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র ও মসজিদের মুসল্লিরা পালাক্রমে কাজ করছেন। কেউ কেউ আগাছা-ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, মাটি কাটা, পুরোনো ড্রেন সংস্কার, বাঁশের খুঁটি স্থাপন, পাটের চট দিয়ে সামিয়ানা তৈরি, ময়দানের চারপাশের ওজু-গোসলের চৌবাচ্চাগুলো সংস্কারের কাজে ব্যস্ত রয়েছেন। বিশ্ব ইজতেমা ময়দান ঘুরে দেখা যায়, একদল মুসল্লি স্বেচ্ছাশ্রমে ময়দানে বাঁশের খুঁটি স্থাপন, ময়লা আর্বজনা পরিষ্কারসহ বিভিন্ন কাজ করছেন।
তারা মহান আল্লাহপাকের দরবারে শুকরিয়া আদায় করেছেন। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি মো. শাহ আলম বলেন বলেন, আগামী ১৩ জানুয়ারি প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমাকে শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে ইজতেমা মাঠসহ পুরো এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here