বিশ্ব রাজনীতিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শীর্ষে

0
24
728×90 Banner

মোঃ লোকমান খান: গত ৪ঠা অক্টোবর ২০২২ইং রোজ সোমবার আমেরিকার ওয়াশিংটন পোষ্ট পত্রিকায় শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রসংশা করিয়া একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। শেখ হাসিনাকে শক্তি ও সাহসের প্রতিচ্ছবি বলা হয়। সাংবাদিক পেটুলা ডভোরাক “দিস প্রাইম মিনিষ্টার লাফ্ড এ্যাট দ্যা মিম শি ইন্সফায়ার্ড: ডিসপাইট বিয়িং এ ওম্যান” শিরোনামে যে বক্তব্য তুলে ধরেছেন তাতে বাংলাদেশ, গনতন্ত্র, মানবাধিকার, দেশের উন্নয়ন সহ সার্বিক চিত্র ফুটে উঠেছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রসংশা করা হয়েছে। গত ১২ই অক্টোবর ২০২২ইং তারিখে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ ভোটে বাংলাদেশ জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এর চেয়ে বড় সাফল্য আর কি হতে পারে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আজ এশিয়া মহাদেশ ছাড়িয়ে পশ্চিমা বিশ্বে নিজের স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছেন। ১৬ই অক্টোবরের দৈনিক কালের কন্ঠে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ স্থানীয় নীতি গবেষনা প্রতিষ্ঠান উইলসন সেন্টারের দক্ষিন এশিয়া ইনিষ্টিটিউটের পরিচালক মাইকেল কুগেলম্যান এক সাক্ষাতকারে বলেছেন- বাংলাদেশ ভারসাম্য রক্ষাকারী দেশ। বড় দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশ সুসম্পর্ক চায়। তাই বাংলাদেশ কাহাকেও বিরক্ত করার ঝুঁকি নিতে চায় না। মানবাধিকার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অসামান্য অবদান রাখতে সক্ষম হবে। বর্তমানে বিশ্ব পরাক্রমশালী রাষ্ট্র আমেরিকা-চীন-রাশিয়া-ভারত-ইউরোপিয় ইউনিয়নের সহিত ভারসাম্য রক্ষ করে চলার জন্য অত্যান্ত যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন। সম্প্রতি ইন্দো-প্যাসেফিক প্লিটের অধিনায়ক এড্যমিরাল স্যামুয়েল পাপেরো বলেন-বাংলাদেশ-ইন্দোনেশিয়া-মালয়েশিয়া-সিংগাপুরের সঙ্গে যৌথ অনুশীলন অংশিদারী উদাহরন। আমেরিকার বহু জেনারেল চীন-রাশিয়াকে ঠেকাতে বাংলাদেশকে কাছে পেতে চায়। কিন্তু বাংলাদেশ অত্যান্ত সচেতনতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। এ বিষয়ে কালের কন্ঠের ৩রা অক্টোবর এক বিরাট প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। একের পর এক আমেরিকান প্রতিনিধি বাংলাদেশে আসছেই। তাছাড়া এবার জাতিসংঘের সাধারন পরিষদের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং তার স্ত্রী সহ শেখ হাসিনাকে বিশাল সংবর্ধনা এবং সাক্ষাতকার দান করেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে যা বিরল। ২০১৪ইং সালের বিএনপি-জামাতের চরম আগুন সন্ত্রাসের সময় যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিলো আমি সেই নির্বাচন সম্পর্কে লিখেছিলাম যে, “জ্ঞান পাপীরাই ১৫৩ জন সংসদ সদস্যের নির্বাচন নিয়া অপব্যখ্যা করে”। যা ৩১ শে মার্চ দৈনিক এশিয়া বানীসহ বিভিন্ন পত্রিকায় উপ-সম্পাদকীয়তে প্রকাশিত হয়েছে। আমি বলেছিলাম আইনের সকল দৃষ্টিকোন থেকে ৫ই জানুয়ারী নির্বাচন ছিল বৈধ, স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য। শুধুমাত্র কিছু ছিটকে পড়া মানষিক ভারসাম্যহীন রাজনীতিবিদ, কিছু সাবেক আমলা, কিছু বিদেশী প্রভু এবং কিছু তথাকথিত এদেশীয় মানবতাবাদী এ নির্বাচনকে নিয়ে অযথা মাথা ঘামিয়ে বিএনপি’র ঘুম হারাম করে দিয়েছিলো। বিএনপিও তাদের সুরে সুর মিলিয়ে আন্দোলনের নামে হুমকি ধামকি দিয়ে চলেছেন । যা হালে পানি পায়নি বা পাবেও না। এদেশের দলছুট কিছু মতিভ্রম ব্যক্তি টক শো’র মাধ্যমে জ্ঞানপাপীর ভূমিকা নিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে মাত্র। অথচ এদেশের সচেতন মানুষ বিএনপি/জামায়াতের আন্দোলনকে গুরুত্ব না দিয়ে সকলেই যার যার কাজ নিয়ে ব্যস্ত। দেশকে গড়ার কাজে সকলেই অগ্রনী ভূমিকা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। নির্বাচনকে নিয়ে এতো দাঙ্গা হাঙ্গামা, জ্বালাও পোড়াও আন্দোলনের মাঝেও দেশ হতে রের্কড পরিমান মালামাল বিদেশে রপ্তানী হয়েছে। শ্রমিকরা তাদের কাজ ঠিকমত অব্যাহত রেখেছে। দেশে বিনিয়োগ এসেছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি আস্থা রেখে দেশের আপামর সাধারণ মানুষ আন্দোলনকে প্রত্যাখান করছে। প্রবাসী ভাইয়েরা বিপুল পরিমান রেমিটেন্স পাঠিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ভরে দিয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান রিজার্ভ প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার। রপ্তানী আয়ে বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা আয় হচ্ছে। আমদানী ব্যয় কমেছে। ফলে দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে চলছে। দেশে প্রবৃদ্ধির হার বাড়ছে তো বাড়ছেই। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ ঘোষণা করা হয়েছে। শেখ হাসিনা ৪র্থ বারের মত প্রধানমন্ত্রী হয়ে বিচক্ষনতার সঙ্গে দেশ পরিচালনা করছেন। ২০১৭ইং সালের মিয়ানমার হতে বিতাড়িত হয়ে আসা ১০ লক্ষ রোহিংগাকে আশ্রয় দিয়ে শেখ হাসিনা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। তার পূর্বেও ২ লক্ষ রোহিংগা বাংলাদেশে অবস্থান করছিলো। এতো বিশাল রোহিংগা জনগোষ্ঠিকে ঠাঁই দেয়া পৃথিবীর কারো পক্ষে সম্ভব নয়। ইতিমধ্যে ৬ বছর হতে চললো- কোন রাষ্ট্রই একজন রোহিংগাকেও তাদের দেশে নেয় নাই। বিশ্ব ক্ষমতাধর আমেরিকা তাদের দেশে রুহিঙ্গা নিবে বলে ঘোষনা দিলেও আজ পর্যন্ত একজনও নেয় নাই। ১২ লক্ষ রোহিংগাকে আশ্রয়, খাদ্য দেয়া মোটেই ছোট্ট কাজ নয়। এতো বিশাল রোহিংগা গোষ্ঠি এমনিতে বিভিন্ন চোরা চালান, মাদক, অপহরন, খুন খারাবি এবং বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িত। চট্টগ্রামের বিশাল এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রোহিংগাদেরকে সামাল দেয়া কত বড় কঠিন কাজ তা বিশ্ব সম্প্রদায় উপলব্ধি করেছে। তাদের নিরাপত্তা, খাওয়ানো, চিকিৎসা সেবা, আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করা দারুন দূরুহ। তারপরেও শেখ হাসিনা অত্যন্ত বিচক্ষনতার সহিত ১২ লক্ষ রোহিংগাকে আশ্রয় দিয়ে বিশ্ব সভায় দক্ষ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন। শেখ হাসিনাকে “মানবতার মাতা” হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন বিশ্ব সভা। পৃথিবীর জলবায়ু সম্বেলনে শেখ হাসিনা জলবায়ুর বিভিন্ন প্রভাব সম্পর্কে বিশ্বকে সতর্ক করায় এবং পর্যায়ক্রমে তার প্রভাব পড়ার ফলে শেখ হাসিনা অত্যান্ত যোগ্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা বিশ্ব সভায় বিভন্ন ক্ষেত্রে নিজেকে যোগ্য আসনে বসাতে সক্ষম হয়েছেন। বর্তমান জাতিসংঘের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমান সময়ে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধেরে ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা বা বিভিন্ন অবরোধ আরোপ বাদ দিয়ে আলোচনার মাধ্যমে যুদ্ধ বন্ধ করার আহবান জানিয়েছেন।
গত ৩ বছর আগে চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিন পিং বাংলাদেশে এসে শেখ হাসিনার সহিত সাক্ষাত করে বিভিন্ন মেঘা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। বাংলাদেশ নিজস্ব অর্থায়নে বিশে^র সেরা পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন। মেট্রো রেল, কর্নফুলী টানেল বাংলাদেশের অহংকার। ফ্লাই-ওভার সহ রাস্তাঘাটের ব্যপক উন্নয়নে বাংলাদেশ আজ বিশে^ মাথা উঁচু করে দাড়িয়েছে। দেশী-বিদেশী কল-কারখানায় পূর্নোদ্যমে উৎপাদন হচ্ছে। লক্ষ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। দেশে প্রবৃদ্ধির হার দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার সময় বাংলাদেশকে শক্ত অবস্থানে রাখার জন্য বিশ্ব নেতৃবৃন্দ “বাংলাদেশকে রোল মডেল” হিসেবে দেখছেন। বাংলাদেশ বর্তমানে খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ন। শিক্ষা ব্যবস্থায় বিরাট সাফল্য এসেছে। কাপড়ে বাংলাদেশ সেরা অবস্থানে রয়েছে। বাংলাদেশের অসহায় মানুষের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা “আশ্রায়ন” নামক প্রকল্প তৈরী করে বাংলাদেশের গরীব মানুষের আবাসিক সমস্যা দূর করেছেন। দেশে আইনের শাসন কায়েম হয়েছে। শুধুমাত্র বিএনপি ও তার কিছু মিত্র আর্তনাদ করে বলছেন- বাংলাদেশে নাকি কোন উন্নয়নই হয় না। অপরদিকে নারীরা আজ সেনাবাহিনী সহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ে সমাসীন। এমনকি নারীরা বিচার বিভাগের আপিল বিভাগেও বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অর্থাৎ নারীরা সর্বত্র এগিয়ে। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী নারী, স্পীকার নারী, বিরোধী দলীয় নেতা নারী। এটা কি কম কথা ? গত ২ বছর যাবত করোনার তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থ বিশ্ব থেকে বাংলাদেশের জনগনকে রক্ষার জন্য বিচক্ষনতার পরিচয় দেয়ায় পৃথিবীর প্রায় সকল রাষ্ট্রপ্রধান ভূয়সী প্রসংশা করেছেন। তাছাড়াও করোনাতে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন মৃত্যুতে বিশ্ব অবাক হয়েছে। সকলে মনে করেছিলেন-বাংলাদেশ ছোট্ট দেশ এবং ঘন জনগোষ্ঠির দেশ। এদেশের মানুষ করোনায় বিরাণ হযে যাবে। কিন্তু তা হয় নাই। সময় মতো টিকা এনে মানুষকে বিনা পয়সায় টিকা দেওয়ায় ১৬ কোটি মানুষ রক্ষা পেয়েছে। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ^ নেতৃবৃন্দ “উন্নয়নের রোল মডেল” হিসেবে ঘোষনা করেছেন।
বিশ্ব আইনী সহায়তায় এবং দৃঢ় রাজনৈতিক প্রজ্ঞা দ্বারা মিয়ানমার এবং ভারতের নিকট হতে ন্যায্য হিস্যা হিসেবে আরেকটি বাংলাদেশের সমপরিমান সমুদ্র সীমা আমাদের আয়তনে যোগ হয়েছে। সমুদ্রের বিপুল সম্পদ তথা ১৬ কোটি মানুষের জন্য মৎস্য আহরণ আমাদের জন্য কি বিরাট প্রাপ্তি নয়? সমুদ্রের তলদেশের গ্যাস, কয়লা, মূল্যবান খনিজ সম্পদ, স্বর্ণ, তেল ইত্যাদি ১৬ কোটি কি লোক ভোগ করছে না ? এ সম্পদ আহরণ করতে যে দক্ষ বিশাল জনবল লাগবে তা বাংলাদেশে তৈরি হচ্ছে। এদেশের ৪ কোটি যুবক-যুবতী বাংলাদেশের শিক্ষিত সম্পদ। শেখ হাসিনা এদেশে প্রায় ৩০টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন দিয়ে ছেলেমেয়েদেরকে শিক্ষিত করে তোলে এদেশের কাজে লাগাচ্ছেন। এমনকি বিদেশে গিয়েও বাঙ্গালী ছেলে-মেয়েরা দক্ষতা দেখাচ্ছেন। ২৫টি টিভি চ্যানেল অনুমোদন দিয়ে দেশের সকল খবরা খবর আনাচে কানাচ হতে তুলে আনছেন। বিপুল সংখ্যক যুবক-যুবতী চাকরী করছেন। দেশ মোবাইল ফোনে ৪জি সুবিধা ভোগ করছে। ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার ও তথ্য প্রযুক্তি তৈরি করে দেশকে ডিজিটাল করেছেন। বাংলাদেশে ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সাফল্যের দরুন গত ২০১৪ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর বিশ্ব দরবার/মেক্সিকো হতে বাংলাদেশ সেরা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে। বাংলাদেশের টানা ২য় মেয়াদে সরকার গঠন করে শেখ হাসিনা মিয়ানমার গিয়ে বিম্সটেক সম্মেলন করে ঢাকায় সচিবালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন। ওআইসি মহাসচিব ঢাকায় এসে শেখ হাসিনার সাহস ও দৃঢ়তার প্রশংসা করেছেন। বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধী বিচার ট্রাইবুন্যালের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন এবং আরব লীগের সমর্থনের কথা জানান। মালয়েশিয়ার কিংবদন্তী ড. মাহাথীর মোহাম্মদ বাংলাদেশে সফরকালীন সময়ে বিরোধীদলকে সরকারের সহযোগীতা করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। যুক্তরাস্ট্রের প্রশাসন বলেছেন-বাংলাদেশের উন্নয়নে যুক্তরাষ্ট্র অধীর আগ্রহে অংশীদার হতে চায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র দামোরদাস মোদী পররাষ্ট্র মন্ত্রী জয় শংকরকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে অমিমাংসিত বিষয় সমূহ সমাধানের কথা বলেছেন। বাংলাদেশের সহিত বানিজ্য ঘাটতি কমাবার কথা বলেছেন। বাংলাদেশের উন্নয়নে সকল প্রকার সহযোগীতার আশ্বাস দিয়েছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন-“বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ স্বাধীন করেছেন এবং তার মেয়ে শেখ হাসিনা দেশকে উন্নত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন”। এটা কী কূটনৈতিক বিজয় নয়? শেখ হাসিনা জাপান গেলে তাকে রাজকীয় সম্মান দেয়া হয়, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিরাট ভূমিকার প্রতিশ্রুতি দেয়ার কথা বলেন। বেশ কিছু দ্বিপাক্ষিক চুক্তিও হয়। বাংলাদেশের উন্নয়নে আরও অবদান রাখার আশ্বাস দেন। রাশিয়া সফরে গেলে পুতিন তাকে বিশাল লালগালিচা সম্বর্ধণা দিয়েছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ভূয়সী প্রশংসা করা হয়। বাংলাদেশের উন্নয়নে রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ চুল্লী সহ আরও বিভিন্ন উন্নয়নে আগ্রহ প্রকাশসহ বিভিন্ন চুক্তি হয়। অতি সম্প্রতি শেখ হাসিনা জাতিসংঘে গেলে তাহাকে গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে মর্যাদা দেয়া হয়। বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করা হয়। বিশেষ করে নারীদের মাতৃত্ব, স্বাস্থ্য, শিশু মৃত্যু, পুষ্টি, সরকারী প্রশাসনে নারীদের অংশগ্রহন সহ ইত্যাদি বিষয়ে বিশ্ব দরবারে এমওডিজি পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে। নারীদের ক্ষমতায়নে শেখ হাসিনাকে সেরা অবদান রাখায় তুমুল করতালীর মাধ্যমে সম্মানিত করা হয়েছে। ফিলিস্তিনী ভাইদের সহিত সংহতি প্রকাশ করায় মুর্হুমুহু করতালির মাধ্যমে তাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে । বাংলাদেশ খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে এবং বাংলাদেশ হতে চাল রপ্তানী হচ্ছে। বাংলাদেশের খাদ্য মজুদসহ কৃষিতে অসামান্য সাফল্য জাতিসংঘের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। বাংলাদেশ হতে ইউরোপে জাহাজ রফতানী হচ্ছে। বাংলাদেশের জাহাজ শিল্প বিশ্ব দরবারে দারুন আগ্রহ সৃষ্টি করেছে। শিক্ষার ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান বিশেষ করে মেয়েদেরকে বিএ পর্যন্ত বিনা বেতন পড়ার সুযোগ দেয়ায় সরকারের অবদানকে বিশ্ব নেত্রীবৃন্দ অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবে দেখছে। বাংলাদেশের মাটিতে জঙ্গি ঘাটির তৎপরতা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তারপরেও তারা বিভিন্ন নামে তাদের তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করছে। সরকার আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বিশেষ করে র‌্যাব জঙ্গীদের আস্থানা চিহ্নিত করে তাদেরকে ধরতে সক্ষম হচ্ছে। জাতিসংঘে বিশ্ব নেত্রীবৃন্দ তথা জো বাইডেন, জাতিসংঘের মহাসচিব গুতেরেস এনথেনিও, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাষ্টিন ট্রুডো, অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী এন্থনি এলবানিজ, নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী ইয়েনেস ষ্টলটেনবার্গ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বেলারুশের প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিয়াসনিকোভিচ, কাতারের আমীর শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি, নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক করেন এবং অত্যন্ত ইতিবাচক সাড়া পান। বাংলাদেশের তরুণদের উপযোগী করে বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং ও বৃত্তিমূলক কারিগরি শিক্ষা বাংলাদেশকে উন্নতির শিখরে পৌছাতে সক্ষম হচ্ছে। আমেরিকার ব্যবসায়ীদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানালে অভূতপূর্ব সাড়া পাওয়া যায়। বিশ্বের সকল নেতৃবৃন্দের নিকট বাংলাদেশে পুজিবিনিয়োগের আহ্বান জানালে তিনি সকল সুযোগ সুবিধাদানের আশ্বাস দেন। বাংলাদেশ হতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পন্যের উপর শুল্ক রেয়াত সহ বিভিন্ন সুবিধা দেবার জন্য নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানালে সকলেই এতে সায় দেন। জাতিসংঘের মহাসচিব গুতেরেস এনথেনিও জাতিসংঘের শান্তি রক্ষায় শেখ হাসিনার ভূয়ংসী প্রশংসা করেন। জাতিসংঘের বিভিন্ন অধীবেশনে শেখ হাসিনাকে সভাপতিত্ব করতে দেয়ায় বাংলাদেশে মুখ উজ্জ্বলতর হয়েছে। বাংলাদেশ বর্তমানে স্থিতিশীল অবস্থায় বিরাজ করছে। বিশ্বে একমাত্র বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছে। বাংলাদেশে একসঙ্গে ঈদ ও দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। বাংলাদেশে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান, শিখ সহ সকলেই নির্বিঘ্নে যার যার ধর্ম পালন করছে। বিশ্ব নেতৃবৃন্দ উপলব্ধি করতে সক্ষম হয়েছে যে–শেখ হাসিনার সরকারই পারবে বাংলাদেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে। বাংলাদেশের উন্নতিতে যুক্তরাষ্ট্র অংশীদার হতে ইচ্ছুক এবং বাংলাদেশের আভ্যন্তরীন রাজনীতি বাংলাদেশের জনগনই মিটাবে। বাহিরের হস্তক্ষেপের কোন প্রশ্নই উঠে না। যথা সময়ে নির্বাচন হবে। জনগন ভোট দিয়ে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করবে বলেও জানান বিদেশী কুটনীতিকরা। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ, জ্বালানী, গ্যাস, শিল্প কলকারখানা, পোশাক শিল্প, কৃষি ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতায় সন্তোষ প্রকাশ করে বাংলাদেশের উন্নতিতে বিদেশী পুঁজি বিনিয়োগের জন্য উপযুক্ত ক্ষেত্র বলেও মত প্রকাশ করেন কুটনীতিকরা। এতে কি প্রমাণিত হয় না যে, শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের কারনেই দেশ সমৃদ্ধির পথে এগুচ্ছে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে দক্ষিন পূর্ব এশিয়ায় একটি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হবেন। দেশের সকল জনগনের প্রতি আহ্বান – আপনারা নেতিবাচক রাজনীতি না করে সরকারের উন্নয়নমূলক সকল কাজে সহযোগীতা করুন। উন্নয়নের ধারা বজায় রাখুন। শুধু শুধু সমালোচনা না করে ভাল কাজ করার প্রশংসা করুন। খারাপ কিছু হলে গঠনমূলক সমাধানের আহ্বান জানান। শুধু শুধু টকশো’র মাধ্যমে নিজেদেরকে অপাংতেয় বানাবেন না। অপরাজনীতির কারনে নিজেকে ডাস্টবিনে ঠেলে দিবেন না। যারা রাজনীতিতে ভুল করেছেন তারা আজ কোথাও নেই। টিভিতে চেহারা দেখালেও জনগন কিন্তু তাদেরকে গ্রহণ করে না। জয় হোক বাংলার মেহনতি জনতার। জয় হোক সরকারের। জয় হোক শেখ হাসিনার। জয় বাংলা।

-লেখক কলামিস্ট ও রাজনীতি বিশ্লেষক

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here