বীর মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রী জিন্নাত আরা আয়শা বাড়ী ছেড়ে এখন পথে পথে

0
8
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : বীর মুক্তিযোদ্ধার ৯০ উর্ধ বিধবা স্ত্রী জিন্নাত আরা আয়শা বলেন, আমার এখন মৃত্যুর শেষ সময় এসে গেছে। এখনও যে বেঁচে আছি বিশ্বাস করতে পারছি না। মরে গেলেই মনে হয় ভালো হতো। তাহলে আজকে এই দিনটি দেখতে হতো না। আর আপনাদের কাছে হাজির হতাম না। অনেক দুঃখ কষ্ট নিয়ে আপনাদের কাছে উপস্থিত হয়েছি, আমি যাদেরকে গর্ভে ধারণ করেছি তাদের বিরুদ্ধেই আজ আমার অভিযোগ করতে হচ্ছে। আপনারা যারা উপস্থিত হয়েছেন, আপনারা শুনেছেন মাকে-বাবাকে ঘর থেকে বের করে দেয়া হয় সম্পত্তির লোভে। আজ আমি তারই উৎকৃষ্ট উদাহারণ।
আমার স্বামী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী মৃত্যুর আগে হাতিরপুলে আমার নামে একটি সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি করে দেন। আমি সেই সম্পত্তি আমার সন্তানদেরকে নিয়েই ডেভলপারের মাধ্যমে ১০ তলা ভবন তৈরী করি। ভবনটি সম্পন্ন না হওয়ার আগেই তারা তাদের মতো করে বিভিন্ন ফ্ল্যাট দখল করে নেয়। সে কারণে ডেভেলপার কোম্পানীর কাছে আমার বকেয় ১ কোটি টাকার অধিক টাকা এখনও পায়নি। আমি পরবর্তীতে আমার ছোট মেয়েকে নিয়ে একটি ফ্ল্যাটে উঠি। আমি শুধু তাদের নামে লিখে না দেয়ার কারণে আজ আমি যে ফ্ল্যাটটিতে থাকতাম সেই ফ্ল্যাটটির তালা ভেঙ্গে লুটপাট করে দখল করে নিয়েছে। আমি আমার ফ্ল্যাটে উঠতে গেলে আমার সন্তান ও নাতনিরাই আমার উপর আঘাত করেছে। আমি এমনিতেই প্রচন্ড অসুস্থ, তারপর এই আঘাত আমি কিভাবে সহ্য করবো। বিষয়টি আমি কোনভাবেই মেনে নিতে পারছি না। আর কোন মা যেন এভাবে বিপদগ্রস্থ না হয় সেই জন্যই আজ আমি এখানে এসেছি। আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রতিকার চাই। আমি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই। কলাবাগান থানার ওসি আমাকে কিছু টাকা নিয়ে আপোষ হতে বলেছিল। অথচ তার বিরুদ্ধে যখন ডিসির কাছে অভিযোগ করলাম সেই অভিযোগে তিনি ওসির কাছেই আমাকে পাঠিয়ে দিলেন। এ কেমন আইন। যার বিচার চাইলাম তার কাছেই আমার যেতে হবে। আমি কি তাহলে ন্যায্য বিচার পাবো। আমি একজন অসহায় মা, মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী। আমার দিকে আপনারা মানবিকভাবে তাকান।
২৩ জানুয়ারি ২০২৩ইং রোজ সোমবার সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির উদ্যোগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসার সভাপতিত্বে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, প্রত্যাশা বাংলাদেশের সভাপতি আব্দুল আল-মামুন।
সভাপতি মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা তার বক্তব্যে বলেন, গত ৫ দিন আগে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পাই, বৃদ্ধ মাকে মারধোর করে ফ্ল্যাট দখল করেছে ছেলে মেয়েরা, কলাবাগান থানা পুলিশ কোন সহযোগিতা করেনি, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারীর বিধবা স্ত্রী, ৯০ বছরোর্ধ্ব জিন্নাত আরা আয়শা খাতুনকে তার নিজ নামীয় হোল্ডিং ও নিজ নামীয় ফ্ল্যাট ২৩নং ফ্রি স্কুল স্ট্রীট, হাতিরপুল, কলাবাগান থেকে।
প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগে জানান, গত ২৩ ডিসেম্বর তাদের অনুপস্থিতিতে তালা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে আলমারিতে রক্ষিত নগদ ৭ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা ও সাড়ে ৭ ভরি স্বর্ণালংকারসহ অন্যান্য জিনিসপত্র লুটপাট করেছে তার মেয়ে হাসিনা বেগম, নাতি হোসনে আরা রোজি, মেয়ে ফাতেমা বেগম, ছেলে আব্দুল খালেক, নাতি অলিউল্লাহ রঞ্জন, নাতনি রোজিসহ আরো ৪ নাতি। সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ নষ্ট করেছে ফাতেমা বেগমের কাছে থাকা আইটি বিশেষজ্ঞ রেজাউল করিম। এ বিষয়ে কলাবাগান থানায় এবং স্থানীয় কাউন্সিলরের কাছে গিয়ে তারা কোন প্রতিকার না পেয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, পুলিশ কমিশনার এবং উপ পুলিশ কমিশনার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন তার ছোট মেয়ে মোসা. নাসিমা বেগম।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here