বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিনকে নিয়ে ‘গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে’ র‌্যাব

0
22
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নুর পরশের মৃত্যু নিয়ে বুধবার রাতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান জানান, ফারদিনের মৃত্যুর ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে এবং তদন্তে অগ্রগতি অর্জন করেছে র‌্যাব। তাই জরুরি ভিত্তিতে সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়েছে।
তিনি জানান, সংবাদ সম্মেলনটি বুধবার রাত সাড়ে ৭টায় কাওরানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। কী তথ্য পাওয়া গেছে সে বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হয়।
গত ৪ নভেম্বর রাজধানীর রামপুরা পুলিশ বক্সের সামনে বান্ধবী বুশরাকে নামিয়ে দেওয়ার পর নিখোঁজ হন ফারদিন নুর পরশ। এ ঘটনায় সন্তানের সন্ধান দাবিতে রামপুরা থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ফারদিনের বাবা কাজী নুর উদ্দিন রানা। ৭ নভেম্বর শীতলক্ষ্যা নদীতে তার লাশ পায় নৌপুলিশ। ময়নাতদন্ত করা চিকিৎসক, তার পরিবার ও সহপাঠীদের দাবি, ফারদিনকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে র‌্যাব ও ডিবি তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে।

গত ০৫ নভেম্বর ২০২২ তারিখ কাজী নুর উদ্দিন নামক একজন ব্যক্তি তার সন্তান বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ^বিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারদিন নুর পরশ এর নিখোঁজ সংক্রান্তে রাজধানীর রামপুরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। জানা যায় যে, তার সন্তান গত ০৪ নভেম্বর ২০২২ তারিখ বিকাল থেকে নিখোঁজ রয়েছে। এ প্রেক্ষিতে অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও র‌্যাব নিখোঁজ শিক্ষার্থীকে খুজে বের করতে তদন্ত শুরু করে। গত ০৭ নভেম্বর ২০২২ তারিখ নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে একটি মৃতদেহ উদ্ধার করে স্থানীয় নৌ পুলিশ। পরবর্তীতে জানা যায় যে, মৃতদেহটি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ^বিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী ফারদিন নুর পরশ (২৪)। মৃতদেহটি উদ্ধারের পর ফারদিনের বাবা কাজী নুর উদ্দিন রাজধানীর রামপুরা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। উক্ত ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমসমূহে বহুলভাবে প্রচারিত হওয়ায় দেশব্যাপী ব্যাপক চ্যাঞ্চলের সৃষ্টি হয়। এ প্রেক্ষিতে র‌্যাব উক্ত মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন পূর্বক জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে।
ফারদিন নুর পরশ নিহত হওয়ার ঘটনায় র‌্যাব তার পারিবারিক সূত্র, অধিকতর তথ্য প্রযুক্তির বিশ্লেষণ, সিসিটিভি ফুটেজসহ স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রের আলোকে রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা করে। জানা যায় যে, গত ০৪ নভেম্বর ২০২২ বিকাল ০৩.০০ ঘটিকায় রাজধানী ডেমরার কোনাপাড়া নিজ বাসা থেকে পরীক্ষার কথা বলে বুয়েটের হলের উদ্দেশ্যে বের হয় ফারদিন। বিকাল আনুমানিক ০৫.০০ ঘটিকায় ফারদিন সায়েন্স ল্যাব মোড়ে তার পরিচিতার সাথে তিনি দেখা করে। অতঃপর সেখান থেকে নীলক্ষেত ও ধানমন্ডিসহ পাশর্^বতী বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করে। পরবর্তীতে সাত মসজিদ রোডে একটি রেস্টুরেন্টে খাবার খেয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে রওনা করে। অতঃপর রাত আনুমানিক ০৮.০০ ঘটিকায় তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের টিএসসিসহ পাশর্^বর্তী বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করে। পরবর্তীতে তিনি রিক্সাযোগে রামপুরার উদ্দেশ্যে গমন করে। আনুমানিক রাত পৌনে ১০.০০ ঘটিকায় রামপুরা ব্রিজ এলাকায় তিনি রিক্সা হতে নেমে যায় এবং কিছুক্ষণ রামপুরা ব্রিজ এলাকায় ঘোরাফেরা করে। প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, পরবর্তীতে তিনি কেরানীগঞ্জের জিনজিরা, বাবুবাজার ব্রিজ সংলগ্ন এলাকা, পুরান ঢাকার জনসন রোড, গুলিস্তানের পাতাল মার্কেট এলাকায় গমন করে।
সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণের মাধ্যমে জানা যায় যে, রাত ০২.০১ ঘটিকায় (সিসিটিভি ফুটেজ টাইম ০২.০৩ ঘটিকা) যাত্রাবাড়ীর বিবিরবাগিচা হতে নিহত ফারদিনকে লেগুনায় উঠতে দেখা যায়। রাত আনুমানিক ০২.২০ ঘটিকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের অপর পাশে তারাবো বিশ^রোডের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় লেগুনা থেকে নেমে যায় ফারদিন। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে জানা যায় যে, রাত ০২.২৬ ঘটিকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের তারাবো প্রান্তে ফারদিনের অবস্থান ছিল। অতঃপর রাত ০২.৩৪ ঘটিকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের প্রায় মাঝখানে আসে ফারদিন। উল্লেখ্য যে, ব্রিজের তারাবো প্রান্ত হতে সুলতানা কামাল ব্রিজের মাঝখান পর্যন্ত দুরত্ব আনুমানিক ৪০০-৫০০ মিটার। রাত ০২.৩৪.০৯ ঘটিকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের রেলিং ক্রস করে ফারদিন এবং রাত ০২.৩৪.১৬ ঘটিকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের উপর থেকে স্বেচ্ছায় নদীতে ঝাঁপ দেয়। ঝাঁপ দেয়ার পর রাত ০২.৩৪.২১ ঘটিকায় শীতলক্ষ্যা নদীর পানিতে পড়ে ফারদিন। রাত ০২.৩৫.০৯ ঘটিকায় ফারদিনের মোবাইল ফোন বন্ধ হয়ে যায়। এছাড়াও রাত ০২.৫১ ঘটিকায় ফারদিনের হাতের ঘড়িতে পানি ঢুকে অকার্যকর হয়ে পড়ে।
সিসিটিভি ফুটেজ, ডিজিটাল ফুটপ্রিন্টসহ অন্যান্য সকল সংশ্লিষ্ট আলামত বিবেচনায় নিয়ে আমাদের তদন্তে বের হয়ে আসে যে, বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন স্বেচ্ছায় সুলতানা কামাল ব্রিজ হতে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে মৃত্যুবরণ করে। তদন্তকারী কর্মকর্তা কর্তৃক তদন্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ফারদিনের মৃত্যু সংক্রান্ত অন্য কোন সূত্র/আলামত পাওয়া গেলে, তবে তা বিবেচনায় নিয়ে মামলার বিজ্ঞ তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here