মুক্তিযোদ্ধাহীন মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স!

0
69
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর ডেস্ক: দেশের ৬৪ জেলা ও ৪৭০টি উপজেলায় ‘মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন’ নির্মাণে ২০১২ সালে প্রকল্প গ্রহণ করে সরকার। এ জন্য খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ২২৪ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে প্রকল্পের কাজ শেষ করার কথা থাকলেও তা করতে পারেনি বাস্তবায়নকারী সংস্থা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। এরপর সাত বছর কেটে গেলেও ‘স্বপ্নের ভবন’ বুঝে পাননি মুক্তিযোদ্ধারা। কিছু ভবন বুঝিয়ে দেয়া হলেও সেগুলোতে নানা কাজ অসম্পূর্ণ। এছাড়া নিম্নমানের কাজ হওয়ায় নতুন নির্মিত ভবনে ধসের ঘটনাও ঘটেছে।
এদিকে বেশকিছু ভবনের নির্মাণকাজ চার বছর আগে সম্পন্ন করেও বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। যে কারণে এসব ভবনে মুক্তিযোদ্ধারা উঠতে না পারলেও শুরু হয়েছে ইঁদুর, চামচিকাদের বাস। পরিত্যক্ত থাকায় চলে বখাটেদের আড্ডা ও নানা অসামাজিক কার্যকলাপ। এ নিয়ে জাতীয় সংসদের অনুমিত হিসাব কমিটি ক্ষোভ প্রকাশ করে অতিদ্রুত ভবন স্থানীয় কমান্ডারদের কাছে বুঝিয়ে দিতে বলেছে। তবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচন না হওয়ায় নেতৃত্ব পাচ্ছেন না তারা। তবে অনেক এলাকায় ভবন বুঝিয়ে দেয়া হচ্ছে। সম্প্রতি ১৬টি উপজেলায় ভবন বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। বাকিগুলোও হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলমান।
এ প্রসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়ে শেষ করা যাচ্ছে না। কারণ এর জন্য প্রয়োজনীয় জমি পাওয়া যাচ্ছে না। আবার কোথাও জমি নিয়ে মামলা আছে। তবে বেশির ভাগই বাস্তবায়িত হয়েছে। মাত্র ১০টি উপজেলায় আমরা এই কমপ্লেক্স নির্মাণের স্থান নির্ধারণ করতে পারিনি। তবে এখন এর কাজ এগোচ্ছে। আশা করছি সর্বশেষ একনেকে পাস হওয়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই প্রকল্পের কাজ শেষ করা সম্ভব হবে। এরপরই যতদ্রুত সম্ভব ভবনগুলো স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডারের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হবে।
নির্মাণকাজে নানা অনিয়ম, ঘটছে ভবন দেবে যাওয়ার ঘটনাও: মুক্তিযোদ্ধারা অভিযোগ করছেন, কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণকাজে নানা অনিয়ম হয়েছে লাগামহীন। যে কারণে ভবন দেবে যাওয়াসসহ নানা ধরনের সমস্যা বিদ্যমান। আশুগঞ্জের কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা জানান, নির্মাণের আড়াই বছরের মাথায় দেবে গেছে নতুন ভবনটির পার্কিং বেজমেন্ট। হেলে পড়েছে নিরাপত্তা দেয়ালের একাংশ। প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকায় চুরি গেছে অন্তত ৪০টি পাখাসহ বৈদ্যুতিক ও স্যানিটারি সরঞ্জাম। তারা জানান, ভবনের সামনে যে পাশে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি স্থাপন করা, সে পাশের প্রায় ২৪ বর্গফুট (৪ ফুট প্রস্থ ও ৬ ফুট দীর্ঘ) পার্কিং বেজমেন্ট দেবে গেছে। ফাটল ধরেছে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির বিভিন্ন স্থানে। দক্ষিণ পাশের নিরাপত্তা দেয়ালের প্রায় ১০ ফুটের একটি অংশও হেলে পড়েছে। এদিকে নির্মাণের তিন বছর পর কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স গত ২০ আগস্ট উদ্বোধন করা হলেও ভবনটিতে রয়েছে নানা ধরনের সমস্যা। বৃষ্টির পানি পড়ে দেয়ালের রং অনেকাংশেই নষ্ট হয়ে গেছে। ভেঙে গেছে কমপ্লেক্সটির অনেক জানালার কাচও। চেয়ার-টেবিল ভেঙে নষ্ট হয়ে গেছে। সাতক্ষীরা শহরের সিটি কলেজ সংলগ্ন কাশেমপুরস্থ আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন নির্মিত সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনেরও এমন চিত্র। এরইমধ্যে প্রাচিরে ফাটল দেখা দিয়েছে।
নতুন ভবনও নেতিয়ে পড়ছে অব্যবস্থাপনায়: দুই থেকে তিন বছর আগে নির্মিত এসব ভবনের বেশির ভাগই তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। কোথাও কোথাও দোকানের পরিবর্তে হাসপাতাল ও জীবন বীমা কোম্পানিকে ভাড়া দেয়া হয়েছে। তারা দোকানের কাঠামোই পরিবর্তন করে ফেলেছে। অথচ মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে ২০১৯ সালে জারি করা পরিপত্রে ‘দোকান’ ভাড়া দিতে বলা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের অগ্রাধিকার দিতে বলা হয়েছে। কিন্তু তা মানা হয়নি। জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনটি নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে দেড় বছর আগে। নির্মাণকাজ শেষে ভবনটি এলজিইডিকে বুঝিয়ে দিয়েছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এস আর এন্টারপ্রাইজ। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, উদ্বোধন না হওয়ায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সটি ভূতের বাড়িতে পরিণত হয়েছে। রাতের বেলায় সেখানে মাদকসেবী ও বখাটেরা আড্ডা জমায়।
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় দুই বছর আগে ভবনটি নির্মিত হয়। এরপর থেকে তালাবদ্ধ আছে। এখানকার চারজন বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্ষেপ করে বলেন, তারা জীবিত অবস্থায় ভবনটি ব্যবহার করতে পারবেন কি না, তা নিয়ে সন্দিহান। মুন্সীগঞ্জের লৌহজং মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে ১২টি দোকানের মধ্যে মাত্র দুটি দোকান ভাড়া দেয়া হয়েছে। বাকিগুলো বন্ধ। ভবনের আশপাশে বড় বড় ঘাস জন্মেছে। সিরাজদিখান উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের নিচতলা ও দোতলা একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ভাড়া দেয়া হয়েছে। ইসলামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের নিচতলায় দোকানের স্থলে উপজেলা সমবায় ও পরিসংখ্যান কার্যালয়কে ভাড়া দেয়া হয়েছে। বাকি ঘরগুলো বিভিন্ন সময় টিসিবির পণ্যের গুদাম হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এখানে মুক্তিযোদ্ধাদের আনাগোনা নেই। কোনো কর্মচারী নেই। ভবনের মেঝে স্যাঁতসেঁতে। জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনও মুক্তিযোদ্ধাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। সেটি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। সবকিছু নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এতে একদিকে সরকারের অর্থের অপচয় হচ্ছে, একই সঙ্গে একটি ভালো উদ্যোগ বিফলে যাচ্ছে।
রক্ষণাবেক্ষণের অভাবকে দায়ী করছে আইএমইডি: উন্নয়ন প্রকল্পে নজরদারি করা সরকারের একমাত্র সংস্থা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরীবিক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) প্রতিবেদনেও একই চিত্র ওঠে এসেছে।
কক্সবাজারের উখিয়া, মহেশখালী, নাটোর, নওগাঁ, রাজশাহীসহ অন্তত ১০টি কমপ্লেক্স ভবন পরিদর্শন শেষে আইএমইডি জানিয়েছে, রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ভবনগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আসবাব অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। ভবনের বাইরে ও ভেতরে দেয়াল দিন দিন খারাপ হচ্ছে। অনেক জায়গায় ফাইল ক্যাবিনেট, আলমারি ভেঙে গেছে। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল সক্রিয় না থাকায় নির্মিত ভবন যথাযথভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে না। ভবনগুলো রক্ষণা-বেক্ষণে করণীয় ঠিক করতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে আইএমইডি।
অসন্তোষ সংসদীয় কমিটিতেও: মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মণ হওয়ার পরও মুক্তিযোদ্ধাদের বুঝিয়ে না দেয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছে সংসদীয় কমিটিও। গত সোমবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত অনুমিত হিসাব কমিটির বৈঠকে কমিটির সদস্যরা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে অতিদ্রুত ভবনগুলো স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডারদের কাছে বুঝিয়ে দিতে বলেছে।
কমিটির সভাপতি মো. আব্দুস শহীদেও সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, এ বি তাজুল ইসলাম, ফজলে হোসেন বাদশা, বজলুল হক হারুন, আহসান আদেলুর রহমান এবং খাদিজাতুল আনোয়ার অংশগ্রহণ করেন। বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, বিভিন্ন দপ্তর সংস্থার প্রধানগণ, প্রকল্প পরিচালকগণসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া পিছিয়েছে আরও এক বছর: চলতি বছরের জুনের মধ্যে সারা দেশে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তা আর সম্ভব হচ্ছে না। সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া পিছিয়েছে আরও এক বছর। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০২৪ সালের জুন নাগাদ প্রকল্পটি শতভাগ আলোর মুখ দেখতে পারে। এর আগে ২০২৩ সালের ৩০ জুনের মধ্যে ৪৭০ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিল মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মূলত কয়েকটি কারণেই সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের নির্মাণকাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার সম্ভব হয়নি। এসব কারণে মধ্যে রয়েছে- প্রয়োজনীয় জমি প্রাপ্যতার অভাব, স্থান নির্বাচনে জটিলতা, জমি-সংক্রান্ত মামলার কারণে নির্মাণকাজে কাক্সিক্ষত অগ্রগতি অর্জিত না হওয়া। প্রকল্পের বর্তমান অবস্থা বিবেচনায় চলমান কাজগুলো সুষ্ঠুভাবে সমাপ্ত করার লক্ষ্যে ব্যয় বৃদ্ধি ব্যতিরেখে প্রকল্পের মেয়াদ আরও এক বছর অর্থাৎ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত সময় বাড়ানো প্রয়োজন বলে অভিমত দেয় পরিকল্পনা কমিশন। পরে প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ আরও এক বছর বাড়িয়ে ২০২৪ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত নির্ধারণীসহ প্রকল্প সংশোধনী প্রস্তাব উপস্থাপন করলে একনেক সভায় অনুমোদন করা হয়। উল্লেখ্য, বর্তমানে ৪৭০টি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের মধ্যে ৪২৯টির কাজ শেষ হয়েছে। ১৭টির কাজ চলমান রয়েছে। ১৩টি মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের জমি অধিগ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। একটির জমি-সংক্রান্ত মামলা আদালতে চলমান রয়েছে আর ১০টি মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের জন্য অদ্যাবধি কোনো স্থানই নির্বাচন করা হয়নি।
সূত্র:মানবকণ্ঠ

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here