রায়পুরায় উদ্ধার হওয়া দুই লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে

0
12
728×90 Banner

হলধর দাস, নরসিংদী : রায়পুরায় কলাবাগান থেকে রক্তাক্ত ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা দুই লাশের পরিচয় মিলেছে। গতকাল সোমবার দিবাগত মধ্যরাতে ও আজ মঙ্গলবার সকালে নিহত ব্যক্তিদের স্ত্রীরা থানায় এসে তাদের লাশ শনাক্ত করেন।
দুজনের স্ত্রীই বলছেন, তাদের স্বামী নিয়মিত জুয়া খেলতেন এবং তাদের হত্যার পেছনে জুয়া খেলা সংক্রান্ত দ্বন্দ্বই কারণ হতে পারে।
গতকাল দুপুরে উপজেলার আদিয়াবাদ ইউনিয়নের শেরপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের কলা বাগান থেকে ওই দুজনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নির্জন ওই কলাবাগানের দুই পাশে শিম ক্ষেত। এর এক পাশে ছোট পুকুর ও অন্য পাশে খোলা মাঠ। আশপাশের অন্তত এক কিলোমিটার এলাকায় কোনো বাড়িঘর নেই। এখানে কৃষিকাজ করতে আসা কৃষক ছাড়া সাধারণত আর কেউ চলাচল করেন না এ এলাকায়।
নিহত ব্যক্তিরা হলেন, নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার যোশর ইউনিয়নের পাহাড় ফুলদী গ্রামের আবদুল মান্নানের ছেলে দ্বীন ইসলাম (৩৪) এবং রায়পুরা উপজেলার উত্তর বাখরনগর ইউনিয়নের লোচনপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত আলাউদ্দীনের ছেলে আলী হোসেন (৪২)। দুজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে হত্যার পর তাদের লাশ কলাবাগানে ফেলে রেখেছিল দুর্বৃত্তরা।
জোড়া হত্যাকা-ের খবর পেয়ে পুলিশ সুপারসহ জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার(৫/১২/২০২২) দুপুর ১২টার দিকে স্থানীয় এক কৃষক ওই বাগানের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় দুই ব্যক্তির রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশে থাকা কৃষকেরা সেখানে ছুটে আসেন। পরে স্থানীয় এক ব্যক্তি জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে (৯৯৯) কল দিলে বেলা দেড়টার দিকে রায়পুরা থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে।
কলাবাগানের ভেতরে ১৫ হাত দূরত্বে ওই দুই ব্যক্তির লাশ পড়ে ছিল। নিহত দুজনের মাথাসহ মুখম-লে ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশের পাশে পাওয়া যায় একটি দড়ি ও কিছু টাকা। পরে পুলিশ লাশ দুটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
নিহত দ্বীন ইসলামের স্ত্রী শাহিদা বেগম বলেন, ‘এক গন্ডা জমিতে আমাদের ঘর। ঘরটিতে এক ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে আমরা থাকি। তিনি (স্বামী) কিছুই করতেন না, তবে নিয়মিত জুয়া খেলতেন। রোববার বিকেলে তার মুঠোফোনে একটি কল আসে। ওই ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলার পরই তিনি “বাজারে যাই” বলে বেরিয়ে যান। ওই রাতে আর বাড়িতে ফেরেননি। অনেকবার কল দিয়ে মুঠোফোন বন্ধ পাচ্ছিলাম। গতকাল দিনভর তার কোনো খোঁজ না পেয়ে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করি। পরে কলাবাগান থেকে দুজনের লাশ পাওয়া গেছে শুনে আজ সকালে রায়পুরা থানায় যাই। সেখানে গিয়ে পরনের কাপড় ও ছবি দেখে লাশ শনাক্ত করি।’ শাহিদা বলেন, ‘আমি নিশ্চিত, জুয়া খেলার কথা বলে ডেকে নিয়ে সঙ্গের লোকজনই তাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। আমি স্বামী হত্যার বিচার চাই।’
কাকে সন্দেহ করছেন জানতে চাইলে শাহিদা বেগম বলেন, ‘আমি আন্দাজে কাকে সন্দেহ করব? কই গেছে, কার সঙ্গে গেছে, কে ডেকে নিয়েছে, কিছুই তো জানি না। পুলিশকেই তাদের খুঁজে বের করতে হবে।’
নিহত আলী হোসেনের স্ত্রী রেনু বেগম বলেন, ‘তিনি (স্বামী) দিনমজুর ছিলেন এবং দুই সংসারে তার পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে আছে। প্রায়ই তিনি সুযোগ পেলে জুয়া খেলতেন। রোববার বিকেলে তার মুঠোফোনে কল করে কেউ তাকে যেতে বলেন। ওই কল পেয়ে তিনি তড়িঘড়ি করে বেরিয়ে যান। কোথায় যাচ্ছেন, তা–ও বলে যাননি। রাতে বাড়ি না ফেরায় বিভিন্ন জায়গায় খোঁজখবর করা হয়। পরে গতকাল রাতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া একটি ছবি আমাকে দেখান স্বজনেরা। পরে রাতে থানায় গিয়ে স্বামীর লাশ শনাক্ত করি।’
রেনু আরও বলেন, ‘জুয়া খেলা নিয়ে কারও সঙ্গে তার হয়তো দ্বন্দ্ব চলছিল। হয়তো ওই দ্বন্দ্বের জেরে তাকে ডেকে নিয়ে ওই কলাবাগানে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। কে বা কারা আমার স্বামীকে এত নির্মমভাবে হত্যা করেছে, আমি তাদের বিচার চাই।’
রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, নিহত দুজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। দিনের মধ্যেই তাদের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। কারা এই জোড়া হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত, তাদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এর সঙ্গে জুয়া খেলার বিষয়টি সম্পর্কিত কি না, তাও তদন্ত করে হবে।
এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি পুলিশ সূত্রে জানা যায়। নিহতের পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের বলেন, লাশ হস্তান্তরের পর দাফন শেষে তারা মামলা করতে আসবেন।’

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here