রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হচ্ছে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা

0
13
728×90 Banner

ডেইলি গাজীপুর প্রতিবেদক : রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শেষ হবে। দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন দিল্লি নিজামুদ্দিন মারকাজের মাওলানা সাদ কান্দলভির বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্দলভি । আখেরি মোনাজাত সকাল ১০টা থেকে ১১ টার মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে।
বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেয়া লাখো মুসল্লির জিকির-আসকার ও তাবলীগের দেশী-বিদেশী মুরুব্বিদের বয়ানের মধ্যদিয়ে ইজতেমার আজ শনিবার অতিবাহিত হচ্ছে। কালেমা, নামাজ, মুসলিমীন ও তাসহীহে নিয়ত নিয়ে বিস্তারিত বয়ান করা হয়। ভারতের মাওলানা ইয়াকুব ছিলানী বাদ ফজর হিন্দি ভাষায় বয়ান করেন। তাৎক্ষণিকভাবে তা বাংলায় তরজমা করেন মাওলানা মনির বিন ইউসুফ।
বাদ জোহর বয়ান করেন মাওলানা ওমর তুর্কি। বাদ আসর বয়ান করেন মাওলানা ইলিয়াস বিন সাদ ও বাংলায় তরজমা করবেন মুফতি ওসামা ইসলাম। বাদ মাগরিব বয়ান করবেন মাওলানা আব্দুস সাত্তার নিজামুদ্দিন, বাংলায় তরজমা করেন মুফতি জিয়া বিন কাসিম।
বয়ানে তিনি বলেন, ইজতেমা ওয়ালাদের কাজ হলো পরিপূর্ণভাবে দ্বীনের দাওয়াতের কাজ করা। নবী করিম (সা.) দাওয়াতের মেহনতের জন্য মদিনা মনোয়ারা ছেড়ে হিজরত করেছিলেন। তারপর আবার নিজ এলাকায় এসে দাওয়াতের কাজ জিন্দা করেছিলেন। নবী করিম (স.) যেভাবে মেহনতের মাধ্যমে দ্বীনকে জিন্দা করেছিলেন। আমরাও ইজতেমা থেকে শিক্ষা নিয়ে দ্বীনের কাজে বেরিয়ে যাবো, যাতে দ্বীনকে দুনিয়ার বুকে জিন্দা রাখা যায়। দাওয়াতের মাধ্যমে ইমানওয়ালা জিন্দেগি, আমলওয়ালা জিন্দেগি ও সত্য ও সুন্দর জিন্দেগি তৈরি করতে হবে।
তিনি আরও বলেন, যারা সমাজে দাওয়াতের কাজ করবে দাওয়াত গ্রহণকারী যত নেক আমল করবেন তা থেকে ওই দাওয়াত দেয়া বান্দাও সমপরিমাণ সওয়াব পাবেন। আল্লাহর বড়ত্বের কথা বলাই নবী-রাসুলদের কাজ। আমাদের কাজ। তিনি বলেন, আল্লাহ সর্বজ্ঞানী। আল্লাহতায়ালা সবকিছুর উপরে ক্ষমতা রাখেন। পুরো দুনিয়ায় কোথায় কি আছে, তা আল্লাহতায়ালার নখদর্পণে।
আখেরাতের জিন্দেগি হলো চিরস্থায়ী জিন্দেগি। অবশ্যই প্রত্যেক মানুষকে আখেরাতের জিন্দেগিতে যেতে হবে। প্রত্যেক মানুষকে দুনিয়ার জিন্দেগি ছেড়ে যেতে হবে। এতে কোনো রকমের সন্দেহ নেই। তিনি বলেন, আমাদের দুই চোখে যা কিছু দেখি আর না দেখি আল্লাহ ছাড়া সবই মাখলুক। আর মাখলুক কিছুই করতে পারে না আল্লাহর হুকুম ছাড়া। আল্লাহ সবকিছু করতে পারেন মাখলুক ছাড়া। একমাত্র হুজুর (সা.) এর বাতানো তরিকায় দুনিয়া ও আখেরাতের শান্তি ও কামিয়াবী।
দ্বিতীয় দিনেও ইজতেমাস্থলে মুসল্লিদের আগমন অব্যাহত রয়েছে। আখেরি মোনাজাতে প্রায় ২০-২৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নিবেন বলে আয়োজকদের ধারণা। ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে শিল্প নগরী টঙ্গী ইতোমধ্যেই ধর্মীয় নগরীতে পরিণত হয়েছে। টঙ্গী শহর ও ইজতেমাস্থলের আশপাশ এলাকা যেন জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমায় আগত লাখ-লাখ মুসল্লির পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে। এদিনও টঙ্গী অভিমুখী বাস, ট্রাক, ট্রেন, লঞ্চসহ বিভিন্ন যানবাহনে ছিল মানুষের ভিড়। সেটি আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত মানুষের এ ঢল অব্যাহত থাকবে । আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত মানুষের এ আগমন ঢল অব্যাহত থাকবে।
দ্বিতীয় পর্বে বিদেশী মুসল্লিদের অংশগ্রহণ ঃ
করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে এ বছর স্বাভাবিকভাবেই বিদেশি মেহমানের সংখ্যা অন্যবারের তুলনায় বেশি। আর দু’বছরের বিরতির পর এ বছরের ইজতেমা নিয়ে উচ্ছ্বসিত বিদেশি মেহমানরা। বিদেশিদের সহযোগিতার জন্য সার্বক্ষণিক তাদের পাশে থাকছেন বাংলাদেশিরা। দ্বিতীয় পর্বে শনিবার পর্যন্ত সৌদি আরব, ভারত, পাকি¯হান, কাতার, জর্ডান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়াসহ ৬১টি দেশের প্রায় সাত হাজার সাত শত পঁচিশ জন বিদেশী মেহমান ময়দানে অবস্থান নিয়েছেন। এবং অনেকেই এখনো পথে রয়েছেন তারা আখেরী মোনাজাতের আগেই ময়দানে আসবেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমার গণমাধ্যম বিষয়ক সমন্বয়কারী মো: সায়েম। ইন্দোনেশিয়ার মুসলিম আহমদ ফওজী বলেন, আমি ইন্দোনেশিয়া থেকে ইজমেতায় এসেছি। বাংলাদেশের মানুষ খুবই বন্ধুসুলভ আচরণ করছেন। তারা আমাদের সকল কাজে সহায়তা করছেন। ইজতেমায় আসতে পেরে আমরা খুব খুশি।
ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে ৫ মুসল্লির মৃত্যু ঃ
বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৫টার দিকে ইজতেমা ময়দানে বরগুনার আব্দুল আলীর ছেলে মফিজুল ইসলাম বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান। শুক্রবার দিবাগত রাতে ঢাকার কদমতলী থানার পূর্ব জুরাইন এলাকায় মুসল্লি আব্দুল জব্বারের ছেলে আব্দুল হান্নান (৪৫), রাজধানীর গুলিস্তানের বঙ্গবাজার এলাকার ব্যবসায়ী বোরহান (৪৮), গাইবান্ধার শুকুর মন্ডলের ছেলে আব্দুল হামিদ মন্ডল (৫৫) ও ঢাকার সাভারের বাসিন্দা আব্দুল আলীমের ছেলে মফিজুল ইসলাম (৫৪) মারা গেছেন।
যান চলাচল বন্ধ থাকবে যেসব সড়কে ঃ
আখেরি মোনাজাত উপলক্ষ্যে গাজীপুর ট্রাফিকব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো হবে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম।
গতকাল শনিবার সকালে আহসান উল্লা মাষ্টার ষ্টেডিয়ামে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, আখেরি মোনাজাতে দেশ-বিদেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নেবেন। এ উপলক্ষ্যে আমরা প্রস্তুুত রয়েছি। মোনাজাত উপলক্ষ্যে বেশ কয়েকটি বিশেষ বাস ও ট্রেন চলাচল করবে।
তিনি আরও বলেন, আখেরি মোনাজাতে অংশ নেওয়া ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের যাতায়াত সুগম করার জন্য শনিবার রাত ১২টার পর থেকে টঙ্গী-কামারপাড়া রোড, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টঙ্গী থেকে গাজীপুরের ভোগরা বাইপাস পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া ময়মনসিংহ ও গাজীপুরগামী যানবাহন গাবতলী দিয়ে কোনাবাড়ি হয়ে এবং ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাগামী যানবাহনগুলোকে ভোগরা বাইপাস দিয়ে ৩০০ ফিট রাস্তা ব্যবহার করে চলাচল করতে বলা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান, উপপুলিশ কমিশনার (সদর ও অর্থ) মোহাম্মদ ইলতুৎ মিশ, উপপুলিশ কমিশনার মাহবুব-উজ-জামান প্রমুখ।
যৌতুকবিহীন বিয়ে ঃ
টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের দ্বিতীয় দিনে বাদ আছর আয়োজন করা হয়েছে যৌতুকবিহীন বিয়ের। ভারতের মাওলানা মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর ছোট ছেলে মাওলানা ইলিয়াস বিন সা’দ কান্ধলভী ওই বিয়ে পরিচালনা করবেন।
বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সমন্বয়ক মোহাম্মদ আবু সায়েম বলেন, বিদেশী মুসল্লিদের প্যান্ডেলের পাশে থাকা দোয়া মঞ্চে যৌতুক বিহীন বিয়ে অনুষ্ঠিত হবে। এদিন সকাল থেকেই বর-কনের নাম তালিকাভূক্তি শুরু হয়। বিয়ের আগ পর্যন্ত চলে ওই তালিকাভুক্তি হওয়ার কাজ। যৌতুক বিহীন বিয়ের ওই মঞ্চের সামনে কণের অনুপস্থিতে তার স্বজন এবং বর ও তার স্বজনদের উপস্থিতে ইসলামী শরীয়ত অনুয়ায়ি যৌতুকবিহীন বিয়ে সম্পন্ন করা হয়।গতকাল বিকেলে এ রির্পোট লেখা পর্ষন্ত ১৫ টি বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। বিয়ের পর আশে-পাশে থাকা মুসল্লীদের মধ্যে খেজুর ছুড়ে দেয়া হয়।
রোববার বাদ ফজর ভারতের মাওলানা বাংলাদেশী মুরসালিন, হেদায়তী বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা ইউসুফ বিন সা’দ কান্ধলভী, তার বাংলায় তরজমা করবেন মাওলানা জিয়া বিন কাসিম ।
রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হচ্ছে দ্বিতীয় পর্বের বিশ^ ইজতেমা।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here